মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মিসরের আদর্শ মা

প্রকাশিত : ২৫ মার্চ ২০১৫

একজন মিসরীয় গর্ভধারিণী মা সন্তানের বেঁচে থাকার অন্ন যোগাতে দীর্ঘ ৪৩ বছর ধরে পুরুষের বেশভূষা ধারণ করে কাজ করে বেড়াতেন। রক্ষণশীল আরব সমাজে দরিদ্র নারীর কর্মসংস্থানের সুযোগ না থাকায় এ মহীয়সী নারী এ পন্থা অবলম্বন করেন। সিসা আবু দাউ নামের ৬৪ বছর বয়সী এ নারী মাত্র ২১ বছর বয়সে বিধবা হন। গর্ভবতী অবস্থায় বিধবা হওয়া সিসা দাউ সন্তান প্রসবের পর কর্মযজ্ঞে ঝাঁপিয়ে পড়েন। আরব পুরুষদের মতো আলখেল্লা লাগিয়ে শ্রমিক হয়ে কাজে যোগ দেন। সিসা দাউ রাস্তায় মুচির কাজও করতেন। একমাত্র কন্যা হাউদার স্বামী অসুস্থ হওয়ার দরুন পুরো পরিবারের অন্ন যোগদানের ভার পড়ে সিসা আবু দাউর উপর। সমাজ, পুরুষের কটু মন্তব্য কিংবা হয়রানি হতে রেহাই পেতেই মূলত আবু দাউ এমন বেশভূষা পরিধান করতেন। পুরুষের মতোই পরিশ্রমের কাজ করতেন এ মহিলা। ভারী বোঝা বহন কিংবা কৃষিতে কাজ করার অভিজ্ঞতাও আছে এ মিসরীয় মহিলার। শেষ বয়সে অবশ্য জুতা পরিষ্কারের কাজ নেন। সম্প্রতি মিসরীয় সরকার সিসা আবু দাউকে বিশেষ সম্মানে ভূষিত করেন এবং তাঁকে মিসরের আদর্শ মা হিসেবে ঘোষিত করেন।

পুলিশ-অপরাধীর ‘দোস্তি’

পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ সম্প্রতি কলকাতার একটি পতিতালয়ে তল্লাশি অভিযান চালিয়ে প্রতিবেশী ঝাড়খ- রাজ্যের তিন পুলিশকে গ্রেফতার করে। আটককৃত তিন পুলিশকে একজন অপরাধীর মেডিক্যাল চেকআপের উদ্দেশ্যে কলকাতা পাঠানো হয়েছিল। ঝাড়খ-ের পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত কারাগারটিতে অপরাধীটি অবশ্য ফিরে আসে এবং কর্তৃপক্ষকে ঘটনা খুলে বলে। অপরাধীটি জানায়, তার মেডিক্যাল চেকআপ শেষে পুলিশ কর্মকর্তারা মধ্যপানের পর বাড়তি আনন্দের জন্য নিকটস্থ একটি পতিতালয়ে প্রবেশ করেন। তাদের পরনে পুলিশী পোশাক না থাকলেও আগ্নেয়াস্ত্র সঙ্গে ছিল। তাদের মধ্যে একজন পতিতালয়ের পরিবর্তে ঘরে ফিরে ঘুমানোতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন ও ঘরে ফিরে যান। কিন্তু অপরাধী ও অন্য তিন পুলিশ সময়কে উপভোগ করতে পতিতালয়ে যাওয়াকে শ্রেয় মনে করেন। কিন্তু বাদসাধে পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ। তাদের তল্লাশি অভিযানে বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল। তবে অপরাধী পালিয়ে কারাগারে ফিরে আসেন এবং কর্তৃপক্ষের কাছে ঘটনা খুলে বলেন।

প্রকাশিত : ২৫ মার্চ ২০১৫

২৫/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: