আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

দাবিতে শিক্ষকদের আন্দোলন বাকৃবি উপাচার্যের পদত্যাগ

প্রকাশিত : ২৩ মার্চ ২০১৫
  • নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগ ॥ সংবাদ সম্মেলনে নির্দোষ দাবি

বাকৃবি সংবাদদাতা ॥ সম্প্রতি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ রফিকুল হকের নৈতিক স্খলন, নিয়োগে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে পদত্যাগ চেয়ে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন গণতান্ত্রিক শিক্ষক ফোরাম। অন্যদিকে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে নৈতিক স্খলনের অভিযোগ মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত দাবি করে জড়িতদের শাস্তি দাবি করে পাল্টাপাল্টি মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বাকৃবি প্রাতিষ্ঠানিক কমান্ড। এদিকে উপাচার্যের সম্মানহানি করে তার বিরুদ্ধে প্রপাগন্ডা ছড়ানোর অভিযোগে ওই মহিলা কর্মচারীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে প্রশাসন। অন্যদিকে সংবাদ সম্মেলন করে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন উপাচার্য। প্রত্যক্ষদর্শীসূত্রে জানা যায়, রবিবার সকাল ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে গণতান্ত্রিক শিক্ষক ফোরাম। ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. এ কে এম শামসুদ্দীনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. এনামুল হকের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন শিক্ষক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. আবু হাদী নূর আলী খান, অধ্যাপক ড. এ কে এম জাকির হোসেন, অধ্যাপক ড.মোঃ রকিবুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. মোঃ মনিরুজ্জামান প্রমুখ। বক্তারা বলেন, উপাচার্যের নৈতিক স্খলন হয়েছে। তিনি এই বয়সে ৩য় শ্রেণীর এক নারী কর্মচারীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক করে পুরো শিক্ষক সমাজের ওপর কলঙ্ক লেপে দিয়েছেন। তাঁরা শিক্ষক ফোরাম থেকে উপাচার্যকে বহিষ্কার করে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের হস্তক্ষেপ কামানা করেন। সেই সাথে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান।

এদিকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে উপাচার্য মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ড. রফিকুল হকের বিরুদ্ধে স্বার্থান্বেষী মহল সাইবার ক্রাইম করে নারী কেলেঙ্কারির মিথ্যা প্রপাগান্ডা ছড়িয়ে একজন মুক্তিযোদ্ধাকে অসম্মান করেছেন এমন অভিযোগে পাল্টা মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বাকৃবি প্রাতিষ্ঠানিক কমান্ড। সকাল ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ বিজয় ’৭১ সামনে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেন তারা। পরে ১টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে তাঁরা দাবি করেন, উপাচার্য মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ড. রফিকুল হককে বিরুদ্ধে যড়যন্তমূলকভাবে কুৎসা রটানো হয়েছে। সাইবারক্রাইম করে জাতীয় শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাকে অপদস্থ করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মুক্তিযুদ্ধা সিরাজুল ইসলাম। এই অপপ্রচারের সাথে জড়িত সকল ব্যক্তির শাস্তিও দাবি করেন উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধারা।

অপরদিকে উপাচার্যের সাথে যে মহিলা কর্মচারীর অশালীন কথোপকথনের অডিও রেকর্ড নিয়ে উপাচার্যের বিরুদ্ধে নৈতিক স্খলনের অভিযোগ করা হয়েছে সেই মহিলা কর্মচারীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে প্রশাসন।

প্রকাশিত : ২৩ মার্চ ২০১৫

২৩/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: