কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মালয়েশিয়ায় ১০৭ বাংলাদেশী গ্রেফতার

প্রকাশিত : ২২ মার্চ ২০১৫
  • অবৈধ অভিবাসী আটক অভিযান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মালয়েশিয়া আবার অবৈধ অভিবাসী আটকের বিশেষ অভিযান শুরু করেছে। শুক্রবার বিকেল থেকে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন দেশের ৮৬৭ জন অবৈধ অভিবাসীকে গ্রেফতার করেছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের ১০৭ জন নাগরিক রয়েছে। অভিযান শুরু করা হয় দেশটির পেনাং প্রদেশ থেকে। সেখানে একটি নির্মাণ সাইটে অবৈধ অভিবাসীদের আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের ডিটেনশন ক্যাম্পে রাখা হয়েছে। দেশটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, অভিযান অব্যাহত থাকবে। ১০৭ বাংলাদেশীকে আটকের বিষয়টি মালয়েশিয়ার অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশন স্বীকার করেছে। হাইকমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আটককৃতদের কাগজপত্র পরীক্ষা করা হচ্ছে। অবৈধ না হলে তারা ছাড়া পাবে। আর যদি অবৈধ হয় তাহলে মালয়েশিয়ার আইন অনুযায়ী তাদের কারাগারে যেতে হবে। কারাগারে যাতে যেতে না হয় সেজন্য দেশটির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করা হচ্ছে।

মালয়েশিয়া থেকে রেজা নামের এক অভিবাসী টেলিফোনে জানান, এবারও বিদেশী অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে দেশটির কর্তৃপক্ষ কঠোর অবস্থান নিয়েছে। এই অভিযানে দেশটির কয়েকটি সংস্থা অংশ নিয়েছে। পেনাং কনস্ট্রাকশন সাইটে পুলিশ প্রথমে অভিযান শুরু করে। এখান থেকেই ৮৬৭ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করা হয়। আটককৃতদের মধ্যে বাংলাদেশ ছাড়াও পাকিস্তান, নেপাল, মিয়ানমার ও ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক রয়েছে। মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষ অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কোন কারণ জানায়নি। তবে দেশটির সরকার বলছে, তাদের আভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার স্বার্থে কোন অবৈধ অভিবাসীকে থাকতে দেয়া হবে না। অবৈধদের বৈধ হওয়ার জন্য পাঁচ দফায় সুযোগ দেয়ার পরও যারা এই সুযোগ নিতে ব্যর্থ হয়েছেন তাদের স্ব-স্ব দেশে ফেরত যেতেই হবে। পুলিশের হাতে আটক হলে জেল জরিমানা হতে পারে। এমনকি জেল জরিমানা হওয়ার পর ছাড়া পেয়ে নিজ খরচে দেশে ফিরতে হবে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, মালয়েশিয়ার সরকার অবৈধ কর্মীদের পাঁচ দফা সুযোগ দেয়ার পরও যারা বৈধ হতে পারেনি এ দায় তাদেরই নিতে হবে। সরকার এ দায় নেবে না। তবে যদি কোন বৈধ কর্মী পুলিশের হাতে আটক হন সেক্ষেত্রে মালয়েশিয়ায় অবস্থিত হাইকমিশনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার। যারা অবৈধ হিসেবে পুলিশের হাতে আটক হবেন তাদের একটা না একটা শাস্তি পেতেই হবে। দেশটির আইনে অবৈধদের জেল জরিমানা হতে পারে। অথবা শুধু জেল হতে পারে। আবার জরিমানা হলে সেই টাকা পরিশোধ করে নিজ খরচে দেশে ফিরতে হবে। এখানে মন্ত্রণালয়ের কোন কিছু করার নেই। হাইকমিশন পুলিশের হাতে আটকদের বিষয়ে খোঁজখবর নিচ্ছে। এখানে যদি কোন বৈধ কর্মী থাকেন তাহলে তাদের ছাড়ানোর ব্যবস্থা নেবে।

সূত্র জানিয়েছে, অবৈধ অভিবাসীদের আটক করতে পুলিশের বেশ কয়েকটি টিম করেছে দেশটির সরকার। প্রয়োজনে পুলিশের টিম আরও বাড়ানো হতে পারে। মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক নির্দেশে পুলিশ অভিযান চালানো শুরু করে। অবৈধ কর্মীদের সেখানে দেখা যাবে সেখান থেকেই তাদের আটক করার সিদ্ধান্ত রয়েছে। হোটেল-মোটেল, রেস্টুরেন্ট, বাজার মহাসড়ক, দোকান এবং জনসাধারণের চলাচল আছে এমন সব জায়গায় অভিযান চালানো হবে। পুলিশের বিশেষ টিমগুলো বিদেশী কর্মীদের থাকার জায়াগাগুলোতেও ‘রেইড’ দিয়ে কর্মীদের পারমিট এবং কর্মস্থলের বৈধতা আছে কিনা তাও যাচাই বাছাই করবে। কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তের পর দেশটি বিদেশী অবৈধ কর্মীদের ‘আউট পাস’ নিতে শুরু করেছেন। এ দফায় পুলিশী অভিযানে পুলিশকে জেল, জরিমানাসহ বিভিন্ন ধরনের ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। গঠন করা হয়েছে টাস্কফোর্স।

জানা গেছে, অভিযান চলাকালে বৈধ কাগজপত্রে লেখা পেশা এবং নিজ কর্মস্থল ছাড়া অন্য জায়গায় কর্মরত শ্রমিকদের অবৈধ হিসেবে বিবেচনা করা হবে। এমনকি বাইরে কাজ করতে দেয়ার অপরাধে মালিককেও জরিমানা করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

প্রকাশিত : ২২ মার্চ ২০১৫

২২/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: