মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

শহীদের স্বপ্ন পূরণের দায়

প্রকাশিত : ২১ মার্চ ২০১৫

আর যদি একটা গুলি চলে,-আর যদি আমার লোকের উপর হত্যা করা হয়, -তোমাদের কাছে আমার অনুরোধ রইলো,-প্রত্যেক ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলো,- এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম...।” বঙ্গবন্ধুর বজ্রকণ্ঠে ধ্বনিত ১৯৭১-এর এ শব্দগুচ্ছ এখনও ভেসে বেড়াচ্ছে বাংলার আনাচ-কানাচ, রাস্তা-ঘাট, মাঠ-প্রান্তর, খাল-বিল-নদী, শহর-বন্দর, গ্রাম সর্বত্র।

জীবিত ও শহীদ সব মুক্তিপাগলের স¦প্ন ছিল অনাচার-অত্যাচার বিভেদ-বিদে¦ষ, অন্যায়, শোষণ, অবিচার ইত্যাদি বর্জিত ন্যায়পরায়ণ একটা অসাপ্রদায়িক গণপ্রজাতন্ত্রী দেশ প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু স্বাধীনতার অল্প পরেই বঙ্গবন্ধুর মহানুভবতায় তাঁর, তাঁর পরিবারের এবং দলের ভাবমূর্তি বিনষ্টের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হল উচ্চাভিলাষী ও ক্ষমতালোভীসহ স্বাধীনতাবিরোধীরা। এরা সুচতুর কূটকৌশলে মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক চেতনা ও স্বপ্ন বাস্তবায়নে অঙ্গীকারাবদ্ধ দেশপ্রেমিক নেতাকর্মীদের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর মনস্তাত্ত্বি¡ক দ¦ন্দ¦ সৃষ্টি করে চলল। ১৫ আগস্ট ১৯৭৫, লাখ শহীদের সুমহান অমূল্য ত্যাগের বিনিময়ে পরাধীনতা মুক্ত বাংলাদেশে এ সাম্প্রদায়িক পাক অনুরাগীদের ছলাকলার প্রথম শিকার হলেন বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বয়ং। ৩ নবেম্বর ১৯৭৫, ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে এর পরবর্তী শিকার মুক্তিযুদ্ধের সফল ও বিচক্ষণ পরিচালক তাজউদ্দীন অহমেদ, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, ক্যাপটেন মনসুর আলি ও কামরুজ্জমান। স্বাধীনতার শত্রুরা দেশের শাসনদ- ও পতাকা হস্তগত করে মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক চেতনা ও আকাঙ্খা এবং এর ধারক ও বাহকদের পদপিষ্ট করে দেশে সৈ¦রতন্ত্র কায়েম করল। এর পর বহু নির্যাতন নিপীড়ন ভোগ শেষে ১৯৯৬ এ রাষ্ট্রক্ষমতা হাতে পেল মুক্তিযুদ্ধের প্রধান নেতৃত্বদাতা দল আওয়ামী লীগ ও এর সতীর্থরা। এরপর ২০০১-এ আবারও ক্ষমতা হারাতে হলো এ দলকে। বহু ঘটনাবহুল সময় পাড়ি দিয়ে ২০০৯-এ আবারও রাষ্ট্র-ক্ষমতায় ফিরে এসেছে স্বাধীনতার পক্ষশক্তিটি। তবে এ পর্যন্ত অতীতের বিশাল ক্ষতের অর্ধেকও সারিয়ে তুলতে পারেনি এ দল ও এর অনুগামীরা। তৃতীয় মেয়াদে দেশ শাসনে ফিরে আসা এ জোট কিছুটা সংশোধন করতে পেরেছে এবং মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক আশা-আকাক্সক্ষা প্রতিষ্ঠার লক্ষে নিরলস প্রয়াসও চালাচ্ছে। দেশকে স্বাধীনতার মূল স্র্রোতধারায় ফিরিয়ে এনে যথাযথ দায়িত্ব পালন করবেন জাতির জনক দুহিতা শেখ হাসিনা ও তার সরকার- এটাই দেশের সুধী সমাজের একান্ত প্রত্যাশা।

অরূপ কুমার দেবনাথ

বাগেরহাট-

ফবনহধঃযধৎঁঢ়শঁসধৎ@মসধরষ.পড়স

প্রকাশিত : ২১ মার্চ ২০১৫

২১/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: