আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

পুরনো ঢাকার হারানো দিন

প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৫

‘... অনেকটা ভেনিস শহরের মতো ঢাকা শহরে খাল ও পুকুরে ভরা ছিল। ধোলাইখালটি সূত্রাপুর রায়সাহেব বাজার, বংশাল হয়ে নাজিমুদ্দিন রোডের হোসনী দালান পর্যন্ত। বংশাল হতে একটি শাখা খাল নয়াবাজার ও বাবুবাজার হয়ে বুড়িগঙ্গার সাথে মিশল। নাজিমুদ্দিন রোডের একটি শাখা খাল নিমতলী মেডিক্যাল কলেজের উত্তর দিক দিয়ে শাহবাগের কাছদিয়ে মগবাজারের খালের সঙ্গে সংযুক্ত ছিল।’ বর্তমান ঢাকার বাস্তবতায় এমন দৃশ্য শুধু কল্পনাই করা যায়। ঢাকার খালের যে বর্ণনা আমরা পেলাম তা এই ঢাকাবাসী বা আদি ঢাকাবাসী এক নাগরিকের। তিনি বা তার পরিবার যদিও ছিল উর্দুভাষী কিন্তু বাংলা ও বাংলা ভাষার জন্য ছিল তাঁর অপরিসীম দরদ। ভাষা আন্দোলন থেকে মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত সব আন্দোলনেই ছিল তাঁর সমান অংশগ্রহণ। বঙ্গবন্ধু, তাজউদ্দিন প্রমুখের সঙ্গে তিনি খেটেছেন জেল। এই নিভৃতচারী ত্যাগী মানুষটির নাম মীর ফজলুল হক। তিনি পুরান ঢাকার মানুষ। তাঁর দেখা পুরান ঢাকার জীবন, জীবনাচরণ, সংস্কৃতি ও এর অনুষঙ্গ উপাদান এবং চোখের সামনে দ্রুত পরিবর্তনশীল এক ঢাকার চিত্র তিনি এঁকেছেন ‘পুরনো ঢাকার হারনো দিন’ গ্রন্থে। ভূমিকা লিখেছেন ইতিহাসবিদ অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন।

শ্রেষ্ঠ কবিতা

এ বছর একুশের বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে কবি মতিন বৈরাগীর কাব্যগ্রন্থ শ্রেষ্ঠ কবিতা। বিভিন্ন সময়ে কবির বেশ কিছু কাব্যগ্রন্থ থেকে বাছাই করা কবিতা নিয়ে এ বইটি। কবিতার পাঠকের সঙ্গে মতিন বৈরাগীর পরিচিতি সেই গত শতাব্দীর সত্তর দশক থেকে। কবিকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেয়ার প্রয়োজন নেই। তাঁর কবিতার মানস এক ভিন্ন ঘরানায় পরিচালিত। শিল্পের মানদ-ে দোলা দেয় আলাদা দ্যোতনা। সময় ও বাস্তবতাকে ধরতে তাঁর কলম সদা তৎপর। সামাজিক দায়বদ্ধতা কবিতায় তাই ধরা দেয় প্রকটভাবে। প্রকৃতিপ্রেমের মধ্যে হেঁটে শেষ পর্যন্ত থিতু হয় মানবপ্রেমে তাঁর কবিতার শব্দেরা। সমাজ, সময়, মানুষের মৌলিক চাওয়া বা যন্ত্রণার চিত্র বৈরাগীর কবিতার মূল অনুষঙ্গ। মুখের আদলে তুমি বুঝতে পার না মানুষ আর জন্তুর ব্যবধান/সব মানুষের মতো দাঁত কিংবা জিহ্বা স্বাদ কিংবা বলার তাড়না/মুখের উপরে নাক চোখ ভ্রƒ দেখার বাসনা/ভাঁজে খোঁজে লুকানো কোঁচানো যা আমরা দেখি; দেখা যায়/ভয়ঙ্কর সব মুখ, ওইসব মুখ কী করে আঁকে ভিঞ্চির হাতের পেনসিল,/না-কি থেমে যায়!

এমন অনেক প্রশ্ন বা উত্তরের পথ দেখানো হৃদয়ে ঢেউ তোলা কবিতা পাবেন পাঠক এ গ্রন্থে। কবিতার পাশাপাশি একটি উন্নতমানের প্রকাশনা পাবেন। নান্দনিক কবিতার হাত ধরে নব চিন্তার খোরাক পাঠক পাবেন তা অনেকটা নিশ্চিত করেই বলা যায়।

প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৫

২০/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: