মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

রোহিতের প্রথম সেঞ্চুরি বিশ্বকাপে

প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৫
রোহিতের প্রথম সেঞ্চুরি বিশ্বকাপে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইংল্যান্ড আম্পায়ার ইয়ান গোল্ড যেন বাংলাদেশের বিপক্ষেই শুধু সিদ্ধান্ত দিতে উঠে পড়ে লেগে গিয়েছিলেন। রোহিত শর্মাও ৯০ রানে সেই সিদ্ধান্তে ‘নতুন জীবন’ পেলেন। এরপর শুধু প্রথমবার বিশ্বকাপ খেলতে নেমে প্রথম শতকই পেলেন না, শেষপর্যন্ত করলেন ১৩৭ রান। ১২৬ বলে ১৪ চার ও ৩ ছক্কায় করা ওপেনার রোহিতের এ রানে ভারতও জয়ের ভীত গড়ে ফেলল। জয়ও পেয়ে গেল। বিশ্বকাপের সেমিফাইনালেও উঠে গেল।

তখন ভারতের ১৯৬ রান। রোহিতের ৯০ রান। এমন মুহূর্তে বল করলেন রুবেল। ফুল টস বল। তবে বলটি কোমড়ের নিচেই থাকে। বোঝাই যায়। রোহিত ডিপ মিডউইকেটে খেললেন। ক্যাচও ধরে নেয়া গেল। কিন্তু আম্পায়ার গোল্ড ‘নো’ দিলেন! কী আশ্চর্য্য সবাই হতভম্ব হয়ে গেল। আম্পায়ারের এ ভুল সিদ্ধান্তে রোহিতও আরও দুর্ধর্ষ হয়ে উঠলেন। বিশ্বকাপে শতক করলেন। ভারতকেও চাপ থেকে বাঁচিয়ে অনেক দূর নিয়ে গেলেন। দলীয় ২৭৩ রানে গিয়ে তাসকিন আহমেদের বলে বোল্ড হলেন রোহিত।

বিশ্বকাপে একেবারে জ্বলে উঠতে পারছিলেন না রোহিত। বিশেষ করে বড় দলগুলোর বিপক্ষে। গ্রুপ পর্বে দুটি অর্ধশতক থাকলেও বড় ইনিংস ছিল না। শতকের দেখা পাচ্ছিলেন না। গ্রুপ পর্বের ৬ ম্যাচে রান ছিল ১৫৯। অথচ এক ম্যাচেই ১৩৭ রান করে ফেললেন এ ওপেনার। পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৫, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে শূন্য, সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে অপরাজিত ৫৭, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৭, আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৬৪ ও জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে ১৬ রান করেন। শেষপর্যন্ত কোয়ার্টার ফাইনালে এসে বিশ্বকাপে প্রথম শতকটির দেখা পেলেন রোহিত। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরিও পেয়ে গেলেন।

এ পর্যন্ত ১৩৪ ম্যাচ খেলে ৭ শতকসহ ৩৯.৪৯ গড়ে ৪১৮৬ রান করেন রোহিত। তবে রোহিত এমন এক কীর্তি গড়ে রেখেছেন যা বিশ্ব ক্রিকেটের শীর্ষে আছে। একদিনের ক্রিকেটে এক ইনিংসে সর্বাধিক রান করেছেন রোহিত। অতীতের সব রেকর্ড ভেঙ্গে দিয়েছিলেন। কলকাতার ইডেন গার্ডেনে নবেম্বরে বিশ্বকাপের ঠিক আগেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২৬৪ রানের ইনিংস খেলেন রোহিত। যা এখন পর্যন্ত ওয়ানডে ক্রিকেটে একদিনে সর্বাধিক রান। শ্রীলঙ্কার বোলারদের তুলোধুনো করে ১৭৩ বলে ২৬৪ রানের অবিশ্বাস্য ইনিংস খেলেন তিনি। পুরো ৫০ ওভার খেলে ৩৩ চার ও ৯ ছয়ের সাহায্যে তিনি ওই রান সংগ্রহ করেন। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ২৫০ রানের নজিরবিহীন রেকর্ড গড়ার পাশাপাশি এক ইনিংসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ চারের রেকর্ডও এখন রোহিতের। এ বছর এখন পর্যন্ত ৮ ম্যাচ খেলেন রোহিত। তিন ম্যাচই খেলেন মেলবোর্নে। বছরটিতে প্রথম সেঞ্চুরি যে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে করেন, সেটি মেলবোর্নেই। বৃহস্পতিবার এ বছরে যখন দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নিলেন, তখনও সেই মেলবোর্নেই সেঞ্চুরির দেখা পেলেন। মাঝখানে বিশ্বকাপে মেলবোর্নে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কোন রান না করেই আউট হন রোহিত। বাংলাদেশের বিপক্ষে ৬ ম্যাচ খেলে প্রথম শতক পান রোহিত। এর আগে ২০০৮ সালে দুইবার, ২০১০, ২০১২ ও ২০১৪ সালে একবার করে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলেন রোহিত। কিন্তু কোন ম্যাচেই অর্ধশতকও ছিল না। অথচ সঠিক সময়ে এসে জ্বলে উঠলেন। বাংলাদেশের বিপক্ষে তো বটেই, বিশ্বকাপেও প্রথম শতক তুলে নিলেন। শতকের পর রোহিত খুব আপ্লুতও। বলেছেন, ‘এটা অনেক বড় ম্যাচ। ম্যাচটিতে কিছু করে দেখাতে চেয়েছি। আমি উইকেটে যত বেশি সম্ভব থাকতে চেয়েছি। এমনকি ইনিংস শেষ করে আসতে চেয়েছি। অনেক আনন্দিত আমি।’

প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৫

২০/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: