কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ভারতের ওপর শিরোপার চাপ!

প্রকাশিত : ১৮ মার্চ ২০১৫
  • কোয়ার্টারে এগিয়ে টাইগাররা
  • অতশী আলম

টাইগারদের থাবায় ক্ষতবিক্ষত হয়ে বিদায়ঘণ্টা বেজেছে ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ডের। ইতিহাস গড়ে বাংলাদেশে এখন চলমান বিশ্বকাপ ক্রিকেটের কোয়ার্টার ফাইনালে। সেমিফাইনাল নিশ্চিত করার মিশনে বৃহস্পতিবার বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ভারতের বিরুদ্ধে খেলবে লাল-সবুজের এই দেশ। ‘মোড়ল’ ভারতকে হারিয়ে শেষ চারে খেলার স্বপ্নে বিভোর মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। টাইগারদের গর্জনে নাকি কাঁপতে শুরু করেছে চ্যাম্পিয়নদের ভিত! স্বয়ং ভারতের সাবেক তারকা ক্রিকেটার ও সংবাদমাধ্যমেও এমন আলোচনা চলছে।

আরেকবার ভারত বধ করতে পারবে বাংলাদেশ? এই প্রশ্নটিই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে দেশের খেলাপাগল মানুষের কাছে। পুল ‘বি’ থেকে বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিন ভারত প্রথম ও পুল ‘এ’ থেকে বাংলাদশ চতুর্থ হওয়ায় দল দুটি কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে। মহেন্দ্র সিং ধোনির ভারত অপ্রতিরোধ্য ছন্দ ধরে রেখে এখন পর্যন্ত অপরাজিত আছে। গ্রুপ পর্বে ছয় ম্যাচের সবকটিই জিতেছে তারা। যে কারণে ভারতের বিরুদ্ধে জয় পাওয়াটা সহজ হবে না বলেই মনে করছেন ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা। তবে বাংলাদেশকে খাটো করে দেখছে না ভারতও। দেশটির সাবেক তারকারা ইতোমধ্যে বলেছেন, কোয়ার্টারে বাংলাদেশকে এড়াতে পারলে ভারতের জন্য ভাল হতো! তাদের এমন বলার কারণ, বাংলাদেশ এবারের বিশ্বকাপে চমকের পর চমক দেখিয়ে চলেছে। ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ডকে হারিয়ে শেষ আট নিশ্চিত করেছে। গ্রুপ পর্বের ছয় ম্যাচের মধ্যে জয় তিনটিতে, হার দুটিতে ও একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। হারা ম্যাচেও দারূণ লড়াই করে টাইগাররা। এ কারণে নিজেদের সাফল্যের খতিয়ানটা আরও লম্বা করার স্বপ্ন দেখছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। ভারতকে হারিয়েই প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে খেলতে চায় বাংলাদেশ।

অবশ্য ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মুখোমুখি লড়াইয়ে অনেক এগিয়ে ভারত। এ পর্যন্ত ২৮ ম্যাচ খেলে ২৪টিতেই জিতেছে বিশ্বকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। তিনটিতে জিতেছে বাংলাদেশ। আরেকটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। ভারতের তিন হারের একটি বিশ্বকাপে। সেটি ২০০৭ বিশ্বকাপে। সেবার বাংলাদেশের কাছে হারের কারণে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হয়েছিল ভারতকে। এবারও ২০০৭ বিশ্বকাপের পুনরাবৃত্তি করার স্বপ্ন দেখছে টাইগাররা। ২০১২ সালের এশিয়া কাপের ফাইনালে ওঠার পথেও ভারতকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এসব সাফল্যই ভারতের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে মাশরাফি, মাহমুদুল্লাহ, সাকিব, রুবেলদের অনুপ্রাণিত করবে বলে বিশ্বাস ভক্ত-সমর্থকদের।

স্মরণীয় বিশ্বকাপকে আরও সাফল্যম-িত করতে বাংলাদেশ দল মুখিয়ে আছে। এদেশের অগণিত ভক্ত-সমর্থকরাও মনেপ্রাণে চাচ্ছেন আরেকবার ‘ভারত বধ’ করে স্বপ্নের সেমিফাইনালে খেলুক লাল-সবুজের এই দেশ। বাংলাদেশের ক্রিকেটসংশ্লিষ্টরা অভিমত জানিয়েছেন, এবারের বিশ্বকাপটি স্বপ্নের। স্বপ্নের পরিধি আরও বাড়িয়ে নেয়ারও সুযোগ থাকছে ক্রিকেটারদের। স্মরণীয় বিশ্বকাপে বাংলাদেশ আরও অনেক দূর যেতে চায় বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী। সাক্ষাতকারে এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অসাধারণ সাফল্যে বিশ্বকাপকে স্মরণীয় করেছে ক্রিকেটাররা। যে কারণে দলের ওপর আমাদের বিশ্বাস অনেকখানি বেড়ে গেছে। আমি আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশের ক্রিকেট অনেক দূর যাবে।

কোয়ার্টার ফাইনালে নাম লিখিয়েই ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশ। সেমিতে পাড়ি জমিয়ে এটিকে আরও উচ্চতায় ক্রিকেটাররা নিতে পারবেন কিনা সেটা সময়ই বলে দেবে। তবে দল যে ধারাবাহিকতা দেখিয়েছে তাতে ভবিষ্যতের উন্নতির জন্য সহায়ক হবে বলে মনে করছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ এ প্রসঙ্গে বলেন, বিশ্বকাপে ভাল খেলা সম্ভব হয়েছে। খেলার প্রতি ক্রিকেটারদের অনেক বেশি ভালবাসা আছে। বাংলাদেশ দলের ভাল পারফরম্যান্সে মুগ্ধ গোটা জাতি। সবার মধ্যে এখন এই আত্মবিশ্বাস জন্মেছে, বাংলাদেশ আরও ভাল করতে পারে।

নিউজিল্যান্ডের কাছে হারলেও বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে মুগ্ধ সবাই। কিউই অধিনায়ক ব্র্যান্ডন ম্যাককুলাম আগেও টাইগারদের প্রশংসা করেছেন। এ ধারাবাহিকতা ধরে রেখে তিনি আরেকবার বলেন, আমার ধারণা সবক্ষেত্রে বাংলাদেশ উন্নতি করেছে। তারা তাদের যোগ্যতা প্রমাণ করেছে। ইংল্যান্ডকে তারা যেভাবে হারিয়েছে সেটা সত্যিই প্রশংসনীয়। আমাদের বিরুদ্ধেও অনেক ভাল খেলেছে। এ ধারা ধরে রাখতে পারলে বাংলাদেশের ক্রিকেট আরও এগিয়ে যাবে। বাংলাদশের চোখ ধাঁধানো সাফল্যের কারণেই কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের বিরুদ্ধে ম্যাচ ঘিরে এখন সবার আগ্রহ। অনেকেই মনে করছেন, ভারতকে হারিয়ে শেষ চারে যাওয়ার যোগ্যতা আছে টাইগারদের। স্বয়ং ভারতের সাবেক তারকারাই সমীহ করছেন বাংলাদেশকে। মাশরাফি, মুশফিকদের হালকাভাবে না নিতে মহেন্দ্র সিং ধোনিদের পরামর্শ দিয়েছেন সুনীল গাভাস্কার, মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন, কিরণ মোরেরা। অবশ্য সৌরভ গাঙ্গুলী বলেছেন, ভারতকে হারাতে পারবে না বাংলাদেশ!

সাবেক ভারতীয় অধিনায়ক গাভাস্কার বলেন, প্রতিটি দলেরই কিছু না কিছু দুর্বলতা থাকে। তবে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচটির মধ্য দিয়ে কিউইদের অনেক দুর্বলতা উন্মোচিত হয়েছে। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ম্যাচটিও তাই খুব একটা সহজ হবে না। ম্যাচটিকে হালকাভাবে না নিয়ে যা যা করণীয় তার সবকিছুই করতে হবে ধোনির দলকে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশকে সহজভাবে নেয়ার কোন সুযোগ নেই ভারতের। নকআউট পর্বের এই ম্যাচে নিজেদের দিনে একটি দল যে কোন কিছুই ঘটাতে পারে। ভারতের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন বলেন, নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ যে রোমাঞ্চকর ক্রিকেট খেলেছে, এরপর আর কোয়ার্টার ফাইনালে ওদের হালকাভাবে নেয়া মোটেই ঠিক হবে না। আমি যখন অধিনায়ক ছিলাম, তুলনামূলক ছোট দলগুলোর সঙ্গেই বেশি সতর্ক থাকার চেষ্টা করতাম। বিশ্বকাপে ভারতের কাঁটা হওয়ার ইতিহাসও আছে বাংলাদেশের। ২০০৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজে ম্যাচ হেরেই তো বিদায় নিয়েছিল ভারত। কিরণ মোরের ভাষ্য, কোয়ার্টার ফাইনালে ছোট দল বলে কিছু নেই। যে দলটা শেষ আটে উঠে এসেছে, বুঝতে হবে তাদের সামর্থ্য আছে বলেই তারা এ পর্যন্ত এসেছে। মানসিকভাবে তারা এখন আরও শক্তিশালী থাকবে। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স মুগ্ধ সৌরভ গাঙ্গুলী। তবে কোয়ার্টার ফাইনালে মাশরাফির দল ভারতকে হারাতে পারবে না বলেই মনে করছেন সাবেক ভারতীয় অধিনায়ক। এ প্রসঙ্গে সৌরভ বলেন, আমি তাদের (বাংলাদেশ) শেষ তিন চারটা বিশ্বকাপ দেখছি, ইংল্যান্ডকেও হারাতে দেখেছি। নিউজিল্যান্ডের ওপর তারা প্রচন্ড চাপ সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশ এখন অনেক ভাল দল। তাদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই বলছি, তাদের যে উন্নতি হয়েছে সেটা এ মুহূর্তে ভারতকে হারানোর জন্য যথেষ্ট নয়। গত শনিবার বিশ্বকাপ ক্রিকেটে স্টার স্পোর্টসে ধারাভাষ্যের সময় এমন মন্তব্য করেন কলকাতার বাঙালী বাবু।

প্রকাশিত : ১৮ মার্চ ২০১৫

১৮/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: