কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

খালেদা জিয়া এখন শিমুল বিশ্বাসের কারাগারে বন্দী ॥ মেজর আখতার

প্রকাশিত : ১৪ মার্চ ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গুলশান কার্যালয়ের ভেতরে চোর-বাটপার বসে আছে। অথচ যারা প্রকৃত বিএনপি করে তাদের গুলশান কার্যালয়ের ভেতরে ঢুকতে দেয়া হয় না। গুলশান কার্যালয়ের ভেতরে খালেদা জিয়া আছেন। আর তিনি যে কারাগারে বন্দী আছেন তার জেলার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মেজর (অব) আখতারুজ্জামান।

দীর্ঘদিন পরে শুক্রবার গুলশান কার্যালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। বিকেল পৌনে ৫টায় সংবাদ সম্মেলনে আসেন তিনি। এর আগেই সাংবাদিকরা গুলশান কার্যালয়ের ভেতরে প্রবেশ করেন। সংবাদ সম্মেলনের আগে বিএনপির এই সাবেক সংসদ সদস্য শুক্রবার গুলশান কার্যালয়ে প্রবেশ করার চেষ্টা করেন। কিন্তু ভেতর থেকে তাকে গুলশান কার্যালয়ে প্রবেশে বাধা দেয়া হয়। ফলে তিনি সেখানে ঢুকতে না পেরে প্রচ- ক্ষোভে ফেটে পড়েন। এ সময় তিনি তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, বিএনপি দলটা তো এখন শিমুল বিশ্বাসের হাতে জিম্মি। বিএনপিকে এমন কিছু মানুষের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে যারা অযোগ্য। দলটাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। দলটা এখন দালাল আর ধান্ধাবাজদের হাতে জিম্মি।

এ সময় তিনি সরকারেরও কড়া সমলোচনা করেন। বলেন, সরকার আর কত বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করবে। কত ধরে নিয়ে যাবে। খালেদা জিয়া তো এখন গ্রেফতার রয়েছেন। তাকে গ্রেফতার করে রাখা হয়েছে। খালেদা জিয়ার প্রতি ইঙ্গিত করে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, তিনি কেন গুটিকয়েক মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন, তিনি কি পারেন না বারান্দায় এসে সবার সঙ্গে কথা বলতে। দেশের পরিস্থিতি, রাজনীতির হালচাল বুঝতে? তিনি বলেন, গুলশান কার্যালয়ের ভেতরে সরকারের এজেন্ট আছে। তারা খালেদা জিয়াকে দিয়ে সরকারেরই কথা বলাবে। এজন্য আমাকে ভেতরে ঢুকতে দিচ্ছে না।

শুক্রবার দীর্ঘদিন পরে বেগম জিয়া সংবাদ সম্মেলনে হাজির হলেও সেখানে বিএনপির সিনিয়র কোন নেতাকে দেখা যায়নি। বাইরে থেকে কোন নেতাও সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেয়ার জন্য গুলশান কার্যালয়ে আসেননি। ফলে ভেতরে যেসব নেতাকর্মী অবস্থান করছেন তাদের নিয়ে বেগম জিয়া সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন। অন্য কোন নেতা গুলশান কার্যালয়ে না এলেও বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মেজর (অব) আখতারুজ্জামান শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেয়ার জন্য ভেতরে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ভেতর থেকে তাকে প্রবেশে বাধা সৃষ্টি করা হয়। ফলে তিনি সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিতে পারেননি। সম্প্রতি খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সনের ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর চেহলাম অনুষ্ঠিত হয়। সে অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার জন্য বিএনপির এই সাংসদ ভেতরে প্রবেশ করেন। কিন্তু শুক্রবার শত চেষ্টা করেও বাধার কারণে তিনি প্রবেশ করতে না পেরে ক্ষোভে ফেটে পড়েন। সাংবাদিকদের কাছে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

এক-এগারোর প্রেক্ষাপটে আখতারুজ্জামান বিএনপির সংস্কারপন্থী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। বিভিন্ন সময়ে তিনি বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ও তার বড় ছেলে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে বিতর্কিত মন্তব্য করেন। এমনকি সংসদে দাঁড়িয়ে বিএনপির সমালোচনা করেন। এ কারণে তাকে দল থেকেও বহিষ্কার করা হয়। গুলশান কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে মেজর (অব) আখতারুজ্জামানের বিএনপির বিরুদ্ধে বিতর্কিত কর্মকা-ের কারণেই তাকে ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি।

এদিকে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির কোন সিনিয়র নেতা উপস্থিত না থাকায় বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদের মধ্যে কানাঘুষা হয়। প্রায় আধা ঘন্টাব্যাপী সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ৪ পৃষ্ঠার একটি লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। কিন্তু বিপুলসংখ্যক সাংবাদিক সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিলেও কাউকে হরতাল-অবরোধ বা বিএনপির কর্মসূচী সম্পর্কে প্রশ্ন করার কোন সুযোগ দেয়া হয়নি। ফলে সাংবাদিকদের বিষয়টি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।

প্রকাশিত : ১৪ মার্চ ২০১৫

১৪/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: