আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ব্যাংকগুলো মানছে না কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশ

প্রকাশিত : ১৪ মার্চ ২০১৫
  • এটিএম বুথ পরিচালনা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ এটিএম বুথ পরিচালনার ক্ষেত্রে দেশের তফসিলি ব্যাংকগুলো ঢালাওভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অমান্য করে যাচ্ছে। প্রতিটি বুথে ‘অন্য ব্যাংকের কার্ড ব্যবহারের চার্জ তালিকা’ টানানোর কথা থাকলেও সে বিষয়ে কারও কোন তোয়াক্কা নেই। আর এরই আড়ালে ব্যাংকগুলো চার্জ কাটছে ইচ্ছেমতো। এ বিষয়ে চলতি বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় ব্যাংক একটি সার্কুলার জারি করে। এতে বলা হয়, ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ বাংলাদেশ (এনপিএসবি) এ অংশগ্রহণকারী ব্যাংকের সব এটিএম বুথের দৃশ্যমান জায়গায় অন্য ব্যাংকের কার্ড ব্যবহার করে অর্থ উত্তোলন, স্থিতি অনুসন্ধান এবং ক্ষুদে বিবরণী সংগ্রহের ক্ষেত্রে গ্রাহকের নিকট থেকে ধার্যযোগ্য সার্ভিস চার্জের হার সুস্পষ্টভাবে প্রদর্শনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

যার কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়, এনপিএসবি এ অংশগ্রহণকারী ব্যাংকসমূহের আন্তঃব্যাংক এটিএম সেবাগ্রহণের ক্ষেত্রে অন্যের বুথ ব্যবহারে প্রযোজ্য সার্ভিস চার্জ সম্পর্কে অবহিত না থাকায় গ্রাহকরা অনেক ক্ষেত্রেই বিভ্রান্তির শিকার হচ্ছেন। কিন্তু সার্কুলার জারির প্রায় এক মাস পার হলেও সে অনুযায়ী কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি ব্যাংকগুলোকে। ঢাকার মতিঝিল, যাত্রাবাড়ী, ধানম-ি, পল্টন, গুলশান, সায়েন্সল্যাব, নীলক্ষেত, নিউমার্কেট এলাকার বিভিন্ন ব্যাংকের বুথগুলো ঘুরে দেখা গেছে, একটিতেও টানানো হয়নি এ চার্জ তালিকা। ফলে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে গ্রাহকদের। কেটে নেয়া হচ্ছে ইচ্ছেমতো চার্জ। সম্প্রতি এ নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে বেশ কিছু অভিযোগও জমা হয়েছে। অভিযোগগুলোর তথ্যানুযায়ী, একজন গ্রাহক ডাচ্-বাংলার বুথ থেকে ওয়ান ব্যাংকের টাকা তুলতে গেলে তার কাছ থেকে ৩৪ টাকা ৫০ পয়সা ফি কেটে নেয়া হয়। যেখানে গ্রাহকের কাছ থেকে ফি নেয়ার কথা ১৫ টাকা করে। এ ধরনের বেশি চার্জ কাটার অভিযোগ উঠেছে ব্র্যাক ব্যাংকের বিরুদ্ধেও।

গত পহেলা ফেব্রুয়ারি থেকে এটিএমে অর্থ উত্তোলনে গ্রাহকের সর্বোচ্চ চার্জ ১৫ টাকা নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু ওয়ান, ব্র্যাকসহ কয়েকটি ব্যাংক গ্রাহকের কাছ থেকে সেবা মাসুলের নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকে এ সব বিষয়ে অভিযোগ করেছে গ্রাহকরা।

চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি অপর একটি সার্কুলারে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ভিন্ন এটিএম ব্যবহারে নতুন করে চার্জ নির্ধারণ করে দেয়। এ সার্কুলার অনুযায়ী গ্রাহকের কাছ থেকে ১৫ টাকা করে কাটার কথা, যা আগে ছিল ১০ টাকা। সার্কুলারটি ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর করার কথা থাকলেও তা মানছে না ব্যাংকগুলো।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র ম. মাহফুজুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা সব ব্যাংককেই মানতে হবে। এটার ব্যতিক্রম ঘটার কোন উপায় নেই। যদি ঘটে তাহলে আমরা বরাবরের মতোই ব্যবস্থা নেব। কোন প্রকার ছাড় দেয়া হবে না।

উল্লেখ্য, ৪০টি ব্যাংক বর্তমানে এনপিএসবির আওতায় রয়েছে। বিভিন্ন ব্যাংকের ৬ হাজার ২০২টি এটিএম বুথ রয়েছে। এছাড়া পয়েন্ট অব সার্ভিস মেশিন রয়েছে ২২ হাজার ১২৩টি। ডেবিট কার্ড রয়েছে ৭২ লাখ ৮৫ হাজার ও ক্রেডিট কার্ড ৭ লাখ ৭০ হাজার।

প্রকাশিত : ১৪ মার্চ ২০১৫

১৪/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: