রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

একজন নির্মাতা রাকেশ বসু

প্রকাশিত : ১২ মার্চ ২০১৫

শুরুটা থিয়েটার দিয়ে। গ্রামের বাড়ি রূপদিয়ায় ছোটবেলায় শিশু-কিশোরদের দিয়ে ‘অরুণদয়’ নামে একটি নাটকের দল গড়েছিলেন। আশপাশের জেলায় সুযোগ পেলেই দল নিয়ে চলে যেতেন নাটক করতে। কলেজে পড়ার সময় বাম রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। পুরনো দিনের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে কিছুটা আবেগতাড়িত হয়ে এই নির্মাতা বলেন, ‘বাদল সরকারের থার্ড ফর্মে কাজ করাটা আমাদের জন্য সহজ ছিল। নিজেরাই মঞ্চ বানাতাম, নিজেরাই অভিনয় করতাম।’ পড়াশোনা শেষ করে কিছুকাল কলেজে পড়িয়েছেন তিনি। কাছ থেকে দেখেছেন মানুষকে। বই পড়তে খুব ভালবাসেন। এখনও শত ব্যস্ততার মাঝে সুযোগ পেলেই চলে যান যশোর। প্রিয় বন্ধুদের সঙ্গে গভীর রাত অবধি চলে আড্ডাবাজি। ২০০৫ সালে ঢাকাতে চলে আসেন। এসেই পরদিন থেকে শুরু করে দেন মিডিয়াতে কাজ। রাকেশ বসুর সঙ্গে কথা হচ্ছিল উত্তরার বারো নম্বর সেক্টরের অফিসে বসে। মিডিয়াতে পরিচালক ফেরদৌস হাসান রানা, মাসুদ সেজান, অম্লান বিশ্বাস, আফসানা মিমির সঙ্গে কাজ করেছেন। রাকেশ বসুর এবং আফসানা মিমির পরিচালনায় দীর্ঘ ধারাবাহিক ‘সাতটি তারার তিমির’ কিছুদিন আগে পার করেছে ৫০ তম পর্ব। সাতটি তারার তিমির সম্পর্কে বলতে গিয়ে রাকেশ বসু বলেন, ‘সাতটি তারার তিমির মূলত : বন্ধুত্বের জয়গানের গল্প। শৈশব-কৈশোরের সাত বান্ধবীর জীবনের আনন্দ বেদনার গল্প সাতটি তারার তিমির। সাতটি চরিত্রে অভিনয় করেছেনÑ মৌসুমি হামিদ, মৌটুসী বিশ্বাস, টয়া, শর্মিমালা, সানজিদা প্রীতি, জয়িতা মহলানবীশ এবং স্বর্না। এছাড়া আরও অভিনয় করেছেন সুবর্না মুস্তাফা, দিলারা জামান, বন্যা মীর্জা, ইন্তেখাব দিনার প্রমুখ। ২০০৯ সালে জনপ্রিয় ধারাবাহিক ডলস হাউসের কাজ চলছে। সেই সিরিয়ালে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছিলেন রাকেশ বসু। এরপর ২০১০ সালে ‘পৌষ ফাগুনের পালা’-তে যৌথভাবে পরিচালনার সুযোগ পান তিনি। আগামী ঈদে বেশ কয়েকটি খ- নাটক নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। ‘আমাদের এ জেনারেশনের পড়ার অভ্যাসটা কমে গিয়েছে। বর্তমান সময়ের সংস্কৃতির পালাবদল নিয়ে কিছুটা হতাশই শোনালো এই পরিচালকের কণ্ঠে, ‘জানালার পাশের গাছের ডালে একটা সুন্দর পাখি দেখলে আমাদের ভেতরে কিছু ঘটছে না। যার ফলে আমাদের সংস্কৃতি ঠিক রুটলেস হয়ে যাচ্ছে। এখন ফেসবুক এবং আকাশ সংস্কৃতি কেড়ে নিচ্ছে সব। জীবনটা গ-ির মধ্যে আটকা পড়েছে সবার। নাটকের মধ্য দিয়ে আমরা সে গ-ি ভেঙ্গে বের হবারই চেষ্টা করেছি। সাতটি তারার তিমিরের চরিত্রগুলো একদমই বর্তমান সময়ের গল্প। আমার নাটকের মধ্যে সমস্যার কথা বলেছি এবং সঙ্কটের কথাও বলেছি।’ নাটক বা সিনেমার ধারা বদলাতে হলে আরও বেশি ফিল্ম এবং অভিনয় স্কুল প্রতিষ্ঠা করা জরুরী বলে মনে করেন তিনি।

প্রকাশিত : ১২ মার্চ ২০১৫

১২/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: