কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বাংলাদেশের স্বপ্নপূরণ এবার ...

প্রকাশিত : ১১ মার্চ ২০১৫
বাংলাদেশের স্বপ্নপূরণ এবার ...
  • জাহিদুল আলম জয়

নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা সাফল্য পেয়েছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে চলমান বিশ্বকাপ ক্রিকেটে গ্রুপ পর্বের এক ম্যাচ বাকি রেখেই প্রথমবারের মতো কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। এখন পর্যন্ত এটিই বাংলাদেশের সেরা সাফল্য।

সেরা সাফল্যকে এই বিশ্বকাপেই ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন মুশফিক, মাহমুদুল্লাহ, সাকিব, রুবেলরা। শেষ আট নিশ্চিত হওয়ায় এখন সেমিফাইনালে খেলারও সুযোগ থাকছে লাল-সবুজের এই দেশের। কোয়ার্টার ফাইনালে জয় পেলেই আসরের সেরা চারের টিকেট পাবে টাইগাররা। দেশের অগণিত ভক্ত-সমর্থকরা এখন এই প্রত্যাশাই করছেন।

পুল ‘এ’ তে বাংলাদেশের চতুর্থ হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। সেক্ষেত্রে পুল ‘বি’ এর প্রথম দল ভারতের বিরুদ্ধেই কোয়ার্টার ফাইনাল খেলতে হতে পারে বাংলাদেশের। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে আলোচনা-পর্যালোচনা। মজার ব্যাপার হচ্ছে, সোমবার ইংল্যান্ডকে হারানোর পর এক টিভি উপস্থাপক বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফিকে বারবার বলার চেষ্টা করেন শেষ আটে তাদের প্রতিপক্ষ হবে ভারত। সেক্ষেত্রে ওই ম্যাচে বাংলাদেশের কৌশল কি হবে এমন প্রশ্ন করেন উপস্থাপক। টাইগার অধিনায়ক আত্মবিশ্বাসী ঢংয়ে বলেছেন, আমি মনে করি, আমাদের জন্য এটা অনেক বড় মুহূর্ত। কোয়ার্টার ফাইনালে সম্ভবত আমাদের বিশ্বের অন্যতম বড় দল ভারতের মুখোমুখি হতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে খেলতে আমরা প্রস্তুত।

মাশরাফি আরও বলেন, তবে তার আগে আমাদের নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ম্যাচ আছে। আগে এ ম্যাচের জন্য প্রস্তুত হতে হবে। এরপরই আমরা ভারত ম্যাচ নিয়ে ভাবব। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে আমাদের ভালো করতে হবে এবং ভারত ম্যাচের আগে এখান থেকে আত্মবিশ্বাস নিতে হবে। শেষ আটে যদি প্রতিপক্ষ ভারতই হয় তাহলে পোর্ট অব স্পেনের স্মৃতি খুব বেশি মনে রাখার পক্ষে নন মাশরাফি। সতীর্থদের নিয়ে নতুন করে জ্বলে উঠতে চান তিনি। এ প্রসঙ্গে নড়াইল এক্সপ্রেস বলেন, একটা স্মৃতিই মনে আছে। ওই ম্যাচে আমি সেরা পারফর্মার হয়েছিলাম। আসলে সেটা অনেক আগের। আট বছর পেছনের কথা। এই মুহূর্তে আমি শুধু বলতে পারি, নির্দিষ্ট দিনে আমাদেরকে ভালো খেলতে হবে। আশা করি আমরা পারব।

সুযোগ পেলেই তথাকথিত বড় দেশের ক্রিকেট প-িতরা বাংলাদেশকে নিয়ে সমালোচনায় মেতে ওঠেন। এবারের বিশ্বকাপের আগেও অনেকে বিরূপ মন্তব্য করেন। শেষ আটে ভারত সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ হবে ধরে নিয়ে এখন থেকেই বাংলাদেশকে নিয়ে কথা শুরু হয়েছে। ছলে-বলে কৌশলে টাইগারদের এখনও খাটো করে দেখার অপপ্রয়াস অব্যাহত আছে! ইংলিশ বধের দিন টিভি উপস্থাপকের প্রশ্নের মধ্যেও বিষয়টি লক্ষ্য করা গেছে। তবে যে যাই বলুক না কেন, নিশ্চিতকরেই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ভারতের পা কাঁপতে শুরু করেছে। এই প্রমাণ মিলেছে দেশটির সাবেক তারকা ক্রিকেটার সুনীল গাভাস্কারের কথাতে। ভারতের এই ব্যাটিং কিংবদন্তি মনে করেন, শেষ আটে বাংলাদেশের বদলে ইংল্যান্ডকে পেলেই নাকি ভাল হতো মহেন্দ্র সিং ধোনির দলের জন্যে। এক সাক্ষাতকারে গাভাস্কার বলেন, কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলাই ভারতের জন্য সহজ হতো।

এবারের বিশ্বকাপে দুর্দান্ত ধারাবাহিক পারফরমেন্স প্রদর্শন করে চলেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। পাঁচ ম্যাচের মধ্যে মাত্র একটিতে হেরেছে টাইগাররা। জয় তিনটিতে আর বৃষ্টির কারণে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে খেলা হয়নি মাশরাফি, সাকিবদের। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মুখোমুখি লড়াইয়ে অনেক এগিয়ে ভারত। এ পর্যন্ত ২৮ ম্যাচ খেলে ২৪টিতেই জিতেছে বিশ্বকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। তিনটিতে জিতেছে বাংলাদেশ। আরেকটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। ভারতের তিন হারের একটি বিশ্বকাপে। সেটি ২০০৭ বিশ্বকাপে। সেবার বাংলাদেশের কাছে হারের কারণে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হয়েছিল ভারতকে। ২০১২ সালের এশিয়া কাপের ফাইনালে ওঠার পথেও ভারতকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ।

ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ডকে আবারও নাকানিচুবানি খাওয়ানোর পর উৎসব, উচ্ছ্বাস আর আনন্দে ভাসছে গোটা দেশ। সোমবার বিকেলে ইংলিশদের পতনের পরপরই সারাদেশের আনাচে-কানাচে আনন্দের জোয়ার বইয়ে যায়। টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া সর্বত্র আনন্দের ফল্গুধারা বইয়ে যায় সবার মাঝে। তরুণ-তরুণী, ছেলে-বুড়ো, শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে সব বয়সী মানুষই উৎসবে শামিল হন। ইংল্যান্ডকে মাটিতে নামানোর পরপরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে উৎসব-আনন্দে মেতে ওঠেন শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সব শ্রেণীপেশার মানুষ। ‘জয় বাংলাদেশ, বাংলাদেশের জয়’, ‘জয় বাংলা’, ‘বাংলাদেশই সেরা’ বিভিন্ন সেøাগানে মুখরিত হয়ে ওঠে টিএসসি প্রাঙ্গণ। এ সময় আনন্দের আতিশয্যে মিষ্টিমুখও করতে দেখা যায় অনেককে। সুখের স্রোতে ভেসে যাওয়া শিক্ষার্থীরা রঙের খেলায়ও মেতে ওঠেন। এছাড়াও টিএসসি এলাকায় চারিদিক থেকে মানুষ ছুটে আসে আনন্দ ভাগাভাগি করতে। এ সময় পুরো এলাকা পরিণত হয় জনসমুদ্রে। প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রুবেল রানা বলেন, ‘এ জয় গোটা জাতিকে আনন্দে ভাসিয়েছে। আমরা গর্বিত। প্রাণঢালা অভিনন্দন জানাই মাশরাফিদের। আশা করছি বাংলাদেশ সেমিফাইনালে খেলবে। কোয়ার্টার ফাইনালে প্রতিপক্ষ যারাই হোক না কেন তাদেরকেই টাইগাররা হারাতে পারবে বলে আমার বিশ্বাস।’

প্রকাশিত : ১১ মার্চ ২০১৫

১১/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: