মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

আপনি যখন বাসযাত্রী ...

প্রকাশিত : ২ মার্চ ২০১৫
  • শহিদুল ইসলাম

যথেষ্ট পরিমাণ আধুনিক, স্মার্ট, সচেতন ছেলে শাকিল। অফিসিয়াল কাজের জন্য তাকে প্রতিদিনই ঢাকা সিটির বাসে যাতায়াত করতে হয়। একদিন বাসে করে কোন এক জায়গায় যাওয়ার সময় এক অপ্রত্যাশিত ঘটনার সম্মুখীন হতে হয় তাকে। বাসে উঠে ভাড়া দিতে গিয়ে দেখতে পান, তার পকেটের মানিব্যাগটি নেই। এভাবেই তিনি বাসের ভিতর তার মানিব্যাগের সঙ্গে হারান এটিএম কার্ড, জাতীয় পরিচয়পত্র, অফিসের আইডি কার্ডসহ কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র।

ব্যাংক কর্মকর্তা আজাদ সাহেব প্রায় ৭-৮ বছর ধরে ঢাকার বাসে যাতায়াত করেন। চলার পথে তিনি অনেক সাবধানেই থাকেন, যেন কিছু হারানো না যায়। তবুও প্রতিদিনের মতো অফিস শেষে বেতনের টাকা নিয়ে পল্টন থেকে শেওড়াপাড়া বাসায় যাচ্ছিলেন। কিন্তু তিনি শাহবাগ মোড়ে এসে পকেটে হাত দিয়ে দেখেন তার টাকাগুলো চুরি হয়ে গেছে।

কর্মজীবী মহিলা জুলেখা আক্তার। অফিস থেকে বাসায় ফেরার পথে বাসে উঠে সিটে বসেই দেখেন, তার ব্যাগের পকেটে মোবাইল ফোনটি নেই। তিনি কিন্তু কিছুই বুঝতে পারেননি।

ঢাকা সিটিতে বাসের ভিতর এ রকম অনেক অপ্রত্যাশিত ঘটনা হরহামেসাই ঘটে থাকে, যা চলার পথে মানুষের অনেক সমস্যার সৃষ্টি করে। যেহেতু, ঢাকাতে চলতে গেলে বাসে উঠতেই হয়, তাই আপনাকে আরও বেশি সচেতন হয়ে বাসে চলাচল করতে হবে। আপনি যদি কিছু সাবধানতা অবলম্বন করে বাসে চলতে পারেন তাহলে নিজেকে এ সব অপ্রত্যাশিত ঘটনাসহ নানারকম প্রতিকূল অবস্থা থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারবেন।

বাসের ভিতর যে ঘটনাগুলো বেশি ঘটে তার মধ্যে দুটি হলো : মোবাইল ফোন, মানিব্যাগ হারানো। বাসে ওঠানামার সময় এবং বাসে প্রচ- ভিড়ে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় এই ঘটনা ঘটে। তাই এই সময়গুলোতে অবশ্যই মোবাইল, মানিব্যাগ পকেট থেকে হাতে রাখুন।

আর একটি ঘটনা হলো ভাড়া দেওয়া নিয়ে কন্ডাক্টরের সঙ্গে ১-২ টাকা নিয়ে ঝগড়া লেগে যাওয়া। বাসের ভিতর ভাড়া দেয়ার এই ঘটনাগুলো নিজের সম্মান ঠিক রাখতেই আপনাকে এড়িয়ে চলা উচিত। কারণ বাসের বেশিরভাগ ড্রাইভার হেল্পার অশিক্ষিত, কম শিক্ষিত হয়ে থাকে।

মনে রাখবেন, বাসের বেশিরভাগ যাত্রী অনেক বেশি ক্লান্ত থাকে। তাই অযথা আপনি অপ্রয়োজনীয় কথা (রাজনৈতিক ব্যক্তিগত) বলা থেকে বিরত থাকুন। সবচেয়ে ভাল হয় চুপ করে বসে থাকলে।

বাসের ভিতর সিটে বসা নিয়ে প্রতিযোগিতায় যাবেন না। কারণ এ বিষয়টা খুবই খারাপ দেখায়। ঢাকার ভিতর বাসে যাওয়ার গন্তব্য বেশি দূর হয় না। তাই সিট না পেলে ধৈর্য্য ধরুন।

মহিলাদের জন্য রাখা সংরক্ষিত আসনে না বসাই ভাল। তবে সিটটি খালি থাকলে আপনি বসলেও, অবশ্যই কোন মহিলা আসার সঙ্গে সঙ্গে সিটটি ছেড়ে দিন। ঢাকা সিটির ড্রাইভাররা তাদের ইচ্ছামতোই গাড়ি চালায়, তাই অযথাই তাদের সঙ্গে তর্ক করে নিজের ওজন নষ্ট করতে যাবেন না। কারণ আপনার সুবিধামতো কখনই সে গাড়ি চালাবে না।

বাসের ভিতর অনেক ভিড় থাকলেও একজনের সঙ্গে অন্যজনের একটু লাগতেই পারে। তাই, সাবধান থাকুন যেন এই ছোট বিষয়টি নিয়ে তর্ক না হয়। ভদ্রতার খাতিরে আপনাকে এসব বিষয় এড়িয়ে চলতেই হবে, তা যদি হয় বাসের ভিতর।

মহিলা, যারা বাসে যাতায়াত করেন তারা অবশ্যই প্রয়োজনীয় জিনিস (মোবাইল, টাকা, ঘড়ি) ব্যাগের ভিতরের পকেটে রেখে বাসে যাতায়াত করুন। কারণ ব্যাগের বাইরের পকেটে কিছু রাখলে, তা সহজেই হারাতে পারে।

বর্তমান সময়ে পেট্রোল বোমার আতঙ্ক বিরাজমান। তাই গাড়ি বা বাসের জানালা সবসময় বন্ধ রেখে সিটে বসা উচিত। সব সময় সচেতন থেকে রাস্তায় চলাচল করা উচিত। কোন কিছুতে আতঙ্কিত না হয়ে বুদ্ধিমত্তা দিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিন।

অপরিচিত মানুষের সঙ্গে কথা না বলাই ভাল। কোন কিছু না খাওয়া আরও ভাল। সাবধান থাকুন যাত্রাপথে। গাড়িতে না ঘুমানই ভাল। মনে রাখবেন, ঘটনা যাতে না ঘটে তাই আগেই সাবধান থাকা ভাল। ব্যাস্ত ঢাকায় আপনাকে যেহেতু বাইরে যেতেই হবে। সেহেতু অনেক অনেক বেশি সাবধান থাকুন যাত্রা পথে। প্রত্যেকটি যাত্রা সবার জন্য মঙ্গল হোক। শুভ কামনা রইল।

প্রকাশিত : ২ মার্চ ২০১৫

০২/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: