মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

অপ্রতিরোধ্য ভারতের কাছে নাকাল আমিরাত

প্রকাশিত : ১ মার্চ ২০১৫

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ চ্যাম্পিয়নরা খেলল চ্যাম্পিয়নদের মতোই। শনিবার সহযোগী দেশ সংযুক্ত আমিরাতকে ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে উড়িয়ে দেয় ভারত। পার্থের ওয়াকা গ্রাউন্ডে টস জিতে ব্যাটিং নেয়া আমিরাত ৩১.৩ ওভারে ১০২ রানে অলআউট হয়। জবাবে ১৮.৫ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় মহেন্দ্র সিং ধোনির দল। ৪ উইকেট নেয়ার পথে চমৎকার বোলিং করে ম্যাচসেরা হন স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন। ফলে ৩ খেলার সব জিতে ৬ পয়েন্ট নিয়ে পুল ‘বি’ এর শীর্ষে থাকা ভারত কোয়ার্টার ফাইনালের পথে অনেক দূর এগিয়ে গেল। দুটি করে জয় নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে যথাক্রমে দক্ষিণ আফ্রিকা ও আয়ারল্যান্ড। টস জয় ছাড়া ম্যাচের সবকিছুই ছিল ভারতীয়দের অনুকূলে। স্পিনার অশ্বিন নায়ক বনে গেলেও আমিরাতের ইনিংসে প্রথম ধাক্কা দেন পেসাররাই। ওপেনার আন্দ্রে বেরেঙ্গার ৪ রানে সাজঘরে পাঠান উমেশ যাদব। ইনজুরি কাটিয়ে ফেরা অপর পেসার ভুবনেশ্বর কুমার তুলে নেন সঙ্গী আমজাদ আলিকে (৪)। এরপরই আমিরাতের ওপর দিয়ে বয়ে যায় অশ্বিনের ঘূর্ণিবিষের মরণ-ছোবল। দলীয় ২৮ রানে তৃতীয়, ৪১ রানে চতুর্থ, ৪৪-এ পঞ্চম, ৫২-এ ষষ্ঠ, ৬১-এ সপ্তম ও ৬৮ রানে অষ্টম উইকেট হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়ে মোহাম্মদ তৌকিরের দল।

দুই অঙ্কের রান করতে পারেন মাত্র তিন ব্যাটসম্যান। ফর্মের তুঙ্গে থাকা সাইমান আনোয়ার ছয় নম্বরে নেমে করেন সর্বোচ্চ ৩৫ রান। অভিজ্ঞ খুররম খানের ১৪ ও শেষ ব্যাটসম্যান মানজুলা গুরুগের অপরাজিত ১০ উল্লেখ। চ্যাম্পিয়ন বোলিংয়ের মুখে তাসের ঘরের মতো ভেঙ্গে পড়ে আগের ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে দারুণ ফাইট করা আমিরাতের ব্যাটিংলাইন। ম্যাচসেরা অশ্বিন ১০ ওভারে ২৫ রান দিয়ে নেন ৪ উইকেট। বিশ্বকাপে কোন ভারতীয় স্পিনারের দ্বিতীয়সেরা বোলিং এটি। ভাল বল করেন যাদবও। ২ উইকেট শিকারের জন্য ৬.৩ ওভারে মাত্র ১৫ রান দেন ফর্মে থাকা এই পেসার। এছাড়া স্পিনার রবীন্দ্র জাদেজা নেন ২ উইকেট। ১০ উইকেটের ৬টিই নেন দুই স্পিনারÑ অস্ট্রেলিয়ার বাউন্সি উইকেটে চ্যাম্পিয়ন ভারতের জন্য এটি সত্যি রোমাঞ্চকর।

জবাবে দলীয় ২৯ রানে ওপেনার শিখর ধাওয়ানকে (১৪) হারালেও কোহলিকে নিয়ে দলকে সহজ লক্ষ্যে নিয়ে যান রোহিত শর্মা। ওয়ানডে ইতিহাসের দু-দুটি ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো ওপেনার রোহিত ৫৫ বলে ১০ চার ও ১ ছক্কায় ৫৭ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন। আর ৪১ বলে ৩৩ রানের পথে ক্রেজি কোহলি মারেন ৫টি চারের মার। আমিরাতের হয়ে একমাত্র উইকেটটি নেন মোহাম্মদ নাভিদ। ম্যাচ শেষে সন্তুষ্ট ভারত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি বলেন, ‘উপহাদেশের বাইরে যখন আমরা হারতে থাকি তখন বোলিং নিয়েই বেশি কথা হয়। মিডল-ওভারে প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলতে পারি না, বলে অপবাদ শুনতে হয়। বিশ্বকাপে আমাদের সেই সমস্যা নেই। এটা দারুণ বিষয়। আজ বোলাররা শুরুতেই জয়ের পথ তৈরি করে দিয়েছে। যে যার অবস্থান থেকে চমৎকার বোলিং করেছে।’

এ ধারা অব্যাহত রাখতে চান ধোনি। তিনি আরও যোগ করেন, ‘আত্মতৃপ্তিতে ভোগার সুযোগ নেই। বিশ্বকাপ সবে শুরু। আমাদের অনেক পথ যেতে হবে। বড় দলগুলোর বিপক্ষেও বোলারদের এই ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।’ প্রথম ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তান, এরপর শক্তিধর দক্ষিণ আফ্রিকাকে উড়িয়ে দেয়া চ্যাম্পিয়নদের এবারের আসরেও শুরুটা দারুণ।

প্রকাশিত : ১ মার্চ ২০১৫

০১/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: