আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ধানের নাম বর্ণমালায়

প্রকাশিত : ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • জাফর ওয়াজেদ

ধানের দেশ বাংলাদেশ। দিগন্তপ্রসারী ফসলের মাঠ জুড়ে সোনালি রঙের ধান ঝিকমিক করে। জুড়িয়ে যায় চোখ। ধানের সোঁদা গন্ধ মউ মউ করে গ্রাম বাংলার মানুষের হৃদয় জুড়ে। অমিয়সুধা যেন। কিষাণ-কিষাণীর প্রাণে জাগে সাড়া। যখন মাঠ থেকে ধান উঠানে এসে জড়ো হয়, শুরু হয় ধান মাড়াই। অনির্বচনীয় আনন্দ এসে ধরা দেয়। কতরূপ ধান আর তার কতরূপ নাম। আর কী চমৎকার পরিভাষা ধানের।

প্রাচীন বাংলার মানুষেরা ধানের শীষে জীবনকে উজ্জীবিত করতো। ঘরে ঘরে ধান মানেই স্বচ্ছলতা, অনাহার, অর্ধাহারমুক্ত জীবন। তাই সেকালের কবি প্রার্থনা করেছিলেন, ‘আমার সন্তান যেন থাকে দুধেভাতে’। অঘ্রাণে নবান্নে ধানের গানে মাতোয়ারা করে গ্রামবাংলা কত যে ধান আর কত যে তার নাম। প্রাচীন সাহিত্যে, ইতিহাসে, ছড়ায় এবং গানে গানে ধানের বর্ণনা পাওয়া যায়, আর নামগুলোর ঐতিহ্যও বেশ চমৎকার। কে দিয়েছিল এসব ধানের নাম, কে জানে। তবে মজার যে, বাংলা ভাষায় প্রথম বর্ণমালা থেকে শেষ বর্ণমালা পর্যন্ত মেলে ধানের নাম। বাংলা বর্ণমালাকে অবলম্বন করে এই নামকরণ কিনা, তা স্পষ্ট নয়।

বাংলা বর্ণমালায় ক্রমানুসারে ধানের নামের একটি তালিকা করা যায়। অনেক ধান এখন আর মেলে না। হয়ত তা বিলুপ্ত হয়ে গেছে। বাংলা স্বরবর্ণ ও ব্যঞ্জন বর্ণরা ঠাঁই নিয়ে আছে ধানের নামে। নামগুলো স্পষ্ট করে বাঙালীর ভাষার প্রতি মমত্ববোধ পুরনোকাল হতেই। ধানের নামগুলোতে তাকালেই বিস্ময় বাড়ে। বর্ণমালা অনুযায়ী সাজানো হলো নামগুলো-

অঞ্জনলক্ষ্মী, অমৃতশালী, আকাশমণি, আঙ্গুর, ইরি, উত্তমশালী, কনকচূড়া, কপিলাভোগ, করমশাল, কমলা, কাজলা, কাটারিভোগ, কামিনী, কার্তিকা, কালিজিরা, কালোমানিক, কার্তিকজুল, কাশফুল, কুসমকলি, কুটি আংটি, কৃষ্ণকলী, খয়েরশালী, খেজুরছড়া, খেজুরখুপি, রাজমুক্তা, গন্ধরাজ, গন্ধেশ্বরী, গুয়াশালী, গৃহিণীপাগল, গিরীকাজল, ঘিশালী, ঘৃতকলা, ঘোড়াশাল, চন্দনচূড়া, চন্দনশালী, চান্দিনা, চন্দ্রকুলি, চন্দ্রমণি, চামরশালী, চিনিসাগর, ছত্রমালী, জষাশালী, জনকরাজ , জামালি তুলসীমালা, দাদখানি, দুধকমল, দুধরাজ, যুবরাজ, নন্দনশালী, নীলকণ্ঠী, পক্ষীরাজ, পানকাইচ, সাতসাভোগ, পায়রাবক, পিঁপড়াবাক, বংশীরাজ, বাকশালী, বাদশাভোগ, বোরো, বিন্নি, বহুরী, কোমমাছন্দ, বালাম, বাসমতি, বিরই, ভাদ্রমুখী, ভোগরাজ, সউলতা, মতিহার, মালতি, মধুমালতি, ময়ূরপক্সক্ষী, মধুশোভা, মুক্তরাধু, মুক্তাশালী, রক্তশালী, রঙ্গজয়, রাজভোগ রাজম-ল, রাঁধুনীপাগল, রানীপাগল, রূপশালী, লক্ষ্মীকাজুল, লীলাবতী, লোকধন, লতামাইল, শাক্ষরগানী, শঙ্করজটা, শঙ্খনাদ, সজনী, সন্ধ্যামনী, সুন্দরী, সূর্যমচি, সূর্যমুখী, সোনামুখী, হরিকালি, হাতীখোলা, জাবাশালী, ইত্যাদি কত কত ধানের নাম যে রয়েছে এদেশে, তার পূর্ণাঙ্গ তালিকা মেলে না। একালের ধানের নাম পারিজাত, নাজিরশাইল, ঝিঙ্গাশাইল, পাইজাম, মিনিকেট, ইত্যাদি।

বাংলা বর্ণমালা ধারণ করে থাকা সব ধানের নাম হয়ত মিলে যাবে একদিন গবেষকের হাত ধরে।

প্রকাশিত : ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

২৮/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: