মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ডাক্তারের জন্যই শিশু সমুনের দু’চোখ উপড়ে ফেলে গলা কেটে হত্যা করা হয়

প্রকাশিত : ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৫, ১২:৪৩ এ. এম.
  • রবিনের স্বীকারোক্তি

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ ॥ না’গঞ্জের ফতুল্লায় দু’চোখ উপড়ে নিয়ে ৪ বছরের শিশু সুমনের গলাকাটা লাশ উদ্ধারের ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। ঘাতকের ছেলে আটক শিশু রবিন এ বিষয়ে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় না’গঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট চাঁদনী রূপমের আদালতে রবিনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী রেকর্ড করা হয়। জবানবন্দী রেকর্ড শেষে আদালত রবিনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়। রবিন ফতুল্লার রেললাইন এলাকার দিনমজুর কাঞ্চন মিয়ার ছেলে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ফতুল্লা মডেল থানা এসআই আশীষ কুমার দাস জানিয়েছেন, কাঞ্চন মিয়া নিজের দৃষ্টি ফিরে পেতে নৃশংসভাবে শিশু সুমনকে হত্যা করেছে বলে আটক রবিন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে জানিয়েছে। রবিনের বাবা কাঞ্চন মিয়াকে গ্রেফতার করতে পারলে তিনি কোন চিকিৎসকের পরামর্শে শিশু সুমনের দু’চোখ তুলে গলা কেটে হত্যা করেছে সে বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ফতুল্লার রেললাইন এলাকার শিখা রানীর বাড়ির ভাড়াটিয়া কাঞ্চন মিয়া দিনমজুর কাঞ্চনের বাঁ চোখ নষ্ট। কিন্তু টাকার অভাবে তাঁর চোখের চিকিৎসা করানো সম্ভব হয়নি। তাঁকে কোন এক চিকিৎসক জানিয়েছেন কেউ যদি তাঁকে চোখ দেয় তাহলে তাঁর চোখ ভাল করা সম্ভব। সূত্র মতে রবিবার প্রতিবেশী নুরুউদ্দিনের ছেলে শিশু সুমন ও রবিন বাড়ির পাশের মাঠে খেলা করছিল। কাঞ্চন মিয়া সুমনকে তার কাছে রেখে রবিনকে চলে যেতে বলে। রবিন চলে যাওয়ার পর কাঞ্চন মিয়া সুমনকে নিয়ে চিকিৎসকের কাছে যায়। পরে সুমনের দু’চোখ উপড়ানো গলা কাটা লাশ ফতুল্লার পোস্ট অফিস এলাকায় বুড়িগঙ্গার তীর থেকে উদ্ধার হলে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রবিন তার জবানবন্দীতে জানায়, রবিবার তার বাবা বাসায় ফিরলে বাবার কাছে সুমন কোথায় সে কথা সে জানতে চায়। অনেক পীড়াপীড়িতে রবিন জানায় বাবা সুমনের দু’চোখ তুলে নিয়ে গলা কেটে হত্যার কথা জানান। এ কথা কাউকে বললে বাবা কাঞ্চন মিয়া তার রবিনের মা, বোনসহ সবাইকে হত্যা করার হুমকি দেন। লাশ উদ্ধারের পর পরই কাঞ্চন মিয়া পলাতক রয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত সোমবার ফতুল্লার পোস্ট অফিস এলাকার বুড়িগঙ্গার তীর থেকে শিশু সুমনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় প্রতিবেশী রবিনকে (১০) আটক করেছে পুলিশ।

প্রকাশিত : ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৫, ১২:৪৩ এ. এম.

২৬/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: