কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ক্যারিয়ার হোক শুরু

প্রকাশিত : ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

কলেজের সীমানা পেরিয়ে শুরু হয় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিযুদ্ধ। এ লড়াইয়ে পছন্দের বিষয় কিংবা যুৎসই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ জোটে খুব কমসংখ্যক শিক্ষার্থীর। প্রিয় বিশ্ববিদ্যালয় ও বিষয় নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক থেকেই যারা জোর প্রচেষ্টা চালান, তারাই হন সফলকাম। তবে এ যাত্রাতেও ভবিষ্যতের সব প্রস্তুতি শেষ হয় না। বরং লক্ষ্যে পৌঁছাতে প্রয়োজন আরও দৃঢ়তা, এগিয়ে যেতে হয় আরও গুরুত্বপূর্ণ ধাপে। যা হলো ক্যারিয়ার কিংবা পেশাজীবন। বর্তমানের প্রতিযোগিতামূলক চাকরির বাজারে ক্যারিয়ার সচেষ্ট হওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ক্যারিয়ারের প্রস্তুতি নিতে তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের শুরু থেকেই চাই প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা, সঠিক প্রস্তুতি এবং মানসিক দৃঢ়তা।

ইদানীং তরুণ প্রজন্ম বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়কালীন সুযোগ পায় বিভিন্ন কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান কিংবা অন্যত্র পার্টটাইম বা সাময়িক চাকরি। তবে জীবনের মূল লক্ষ্য কিংবা বাস্তবজীবনে এসব পার্টটাইম চাকরির সামঞ্জস্যতা না থাকলেও, তা ভবিষ্যত ক্যারিয়ারের জন্য অত্যন্ত সহায়ক। যা জীবনের অভিজ্ঞতাকে পূর্ণ করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি এসব পার্টটাইম জব তরুণদের আত্মনির্ভরশীল হতেও সাহায্য করে। এছাড়া পরিবারের প্রতি দায়বদ্ধতা বৃদ্ধি ও নির্ভরশীলতা কমাতে তরুণ বয়সে ক্যারিয়ার শুরু করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীরা ইদানীং ফ্রিল্যান্সিং ও ই কমার্সের কাজ করছেন। এছাড়া কলসেন্টার, স্কুল কিংবা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানেও কাজ করার সুবিধা তাদের ভবিষ্যত কর্মজীবনে অভিজ্ঞতা অর্জন এগিয়ে রাখে।

ইদানীং নানা ফাস্টফুড ও গিফট শপগুলোতেও চাকরির সুযোগ রয়েছে তরুণ প্রজন্মের। শিফটভিত্তিক এসব চাকরির কারণে তাদের পড়াশোনাও খুব একটা ব্যাহত হয় না। বরং দেখা যায় উচ্চ মাধ্যমিকের পর খুব বেশি অলস সময় অনেক তরুণকে কুপথে নিয়ে যায়। যে পথ থেকে বেরিয়ে আসতে কেটে যায় পুরোটা যৌবন। যৌবনের উত্তাল সময়ে তাই কাজে মনোনিবেশ ও ক্যারিয়ার নিয়ে ব্যস্ত থাকা অত্যন্ত জরুরী। বর্তমানে অসংখ্য প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানের সুবাদে সৃষ্টি হয়েছে নতুন নতুন চাকরি ও পেশার ক্ষেত্র। এসব নতুন পেশায় যোগদানের সুবিধার্থে বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। স্বল্পসময়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে এসব প্রতিষ্ঠানে কাজ এখন অত্যন্ত সহজ। অতীতে দেখা যেত, গ্র্যাজুয়েশনের পূর্বে শিক্ষার্থীরা চাকরির ব্যাপারে আগ্রহী হতেন না। কিন্তু এখন পরিস্থিতি ভিন্ন। পছন্দের সেক্টরে কাজ করতে এখন পড়াশোনার পাশাপাশি চাই সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে কাজের পূর্ব অভিজ্ঞতা। তবেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে সার্থক হবে প্রজন্ম।

ডিপ্রজন্ম ডেস্ক

প্রকাশিত : ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

২৪/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: