আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

এবার ভারতের কাছে নাকাল দক্ষিণ আফ্রিকা

প্রকাশিত : ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
এবার ভারতের কাছে নাকাল দক্ষিণ আফ্রিকা
  • ১৩ রানে বিশাল জয় ধোনিদের, ম্যাচসেরা সেঞ্চুরিয়ান শিখর ধাওয়ান

শাকিল আহমেদ মিরাজ ॥ বিশ্বকাপের ‘আগুন’ ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১৩০ রানের বড় জয় পেয়েছে ভারত! মেলবোর্নে জয়ের নায়ক শিখর ধাওয়ানের দুরন্ত সেঞ্চুরির ওপর ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে ৩০৭ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে চ্যাম্পিয়নরা। জবাবে ৪০.২ ওভারে ১৭৭ রানে গুটিয়ে যায় প্রোটিয়াদের ইনিংস! টানা দুই জয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের শীর্ষে মহেন্দ্র সিং ধোনির দল। নিজেদের প্রথম ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানকে ৭৬ রানে হারায় তারা। অস্ট্রেলিয়া সফরে ভরাডুবির পর বিশ্বকাপে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়াল ক্রিকেট মোড়লরা। শনিবার দুর্বল আরব আমিরাতের বিপক্ষে পরবর্তী ম্যাচ খেলবে ভারত।

শিখর ধাওয়ান সেঞ্চুরি করেছে, এমন ওয়ানডেতে কখনই হারেনি ভারত। সে ধারা অব্যাহত থাকল বিশ্বকাপেও। ম্যাচটিকে দেখা হচ্ছিল ভারতীয় ব্যাটিং বনাম দক্ষিণ আফ্রিকার বোলিংয়ের লড়াই হিসেবে। সেখানে ব্যাট হাতে নেতৃত্ব দিয়ে শুরুতেই প্রোটিয়াদের ব্যাকফুটে ঠেলে দেন ২৯ বছর বয়সী দিল্লী প্রতিভা। বড় ম্যাচে বড় সংগ্রহের পথে তাকে দারুণ সঙ্গ দেন হাফ সেঞ্চুরিয়ান অজিঙ্কা রাহানে ও ৪ রানের জন্য হাফ সেঞ্চুরি বঞ্চিত তারকা উইলোবাজ বিরাট কোহলি। সুন্দর দিনের ইঙ্গিত দিয়ে টস জেতেন চ্যাম্পিয়ন সেনাপতি মহেন্দ্র সিং ধোনি। ব্যাটিং নেয়ার সিদ্ধান্তটা যে ভুল ছিল না, ধাওয়ান, রাহানেরা তা ভালভাবেই প্রমাণ করেন। ধাওয়ানের ক্যারিয়ারসেরা ১৩৭ (সপ্তম সেঞ্চুরি), রাহানের চমৎকার ৭৯, আর ক্রেজি কোহলির ৪৬ রানের ইনিংসে ভর করে প্রোটিয়াদের সামনে বিশাল টার্গেট ছুড়ে দেয় চ্যাম্পিয়ন ভারত।

শুরুতেই অবশ্য হোঁচট খায় ভারত। স্কোর বোর্ডে ৯ রান যোগ হতেই রান আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন ওয়ানডেতে দু-দুটি ডাবল সেঞ্চুরির মালিক রোহিত শর্মা। অন্যপ্রান্তে ধাওয়ান ছিলেন দারুণ সাবলীল, আর প্রত্যয়ী। বিরাট কোহলিকে সঙ্গে নিয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ১২৭ রানের কার্যকর জুটি গড়ে তোলেন তিনি। ব্যক্তিগত ৪৬ রানে কোহলি ফ্যাফ ডুপ্লেসিসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেও থামেননি ধাওয়ান। তৃতীয় উইকেটে রাহানেকে নিয়ে গড়েন আরও একটি বড় জুটি। মাত্র ১৬.৩ ওভারে ১২৫ রান যোগ করেন তারা। এই দুই জুটির সৌজন্যেই বড় সংগ্রহের দিকে ছুটে যায় ভারত। ১৪৬ বলে ১৬ চার ও ২ ছক্কায় ১৩৭ রান করে পেসার ওয়েইন পারনেলের বলে হাশিম আমলার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ধাওয়ান। বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কোন ব্যাটসম্যানের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ইনিংসের রেকর্ড এটি। রাহানের ৬০ বলে ৭৯ রানের ঝড়ো ইনিংসে ছিল ৭ চার ও ৩ ছক্কার মার। শেষ দিকে অবশ্য আর কেউই বড় রান করতে পারেননি। অধিনায়ক ধোনির ১১ বলে ১৮ উল্লেখ্য। যে বোলিং নিয়ে অহংকার ছিল প্রোটিয়াদের সেখানেই ব্যর্থ তারা। ডেল স্টেইন, ভারনন ফিল্যান্ডার, ইমরান তারিদের কেউই সেভাবে জ্বলে উঠতে পারেননি। পেসার মরনে মরকেল নেন ২ উইকেট। স্টেইন, তাহির ও পারনেলের শিকার ১টি করে। ৯ ওভারে ৮৫ রান দিয়ে সবচেয়ে বেশি মার খান পারনেল। ভারতের দেয়া ৩০৮ রানের বড় লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই দিশেহারা হয়ে পড়ে প্রোটিয়ারা। দলীয় ৪০ রানে সাজঘরে ফেরেন দুই ওপেনার কুইন্টন ডি’কক ও হাশিম আমলা। এবি ডি ভিলিয়ার্স, ডেভিড মিলার ছিলেন বলে তখনও নড়ে চড়ে বসেন দর্শকরা। হয়ত ব্যাট হাতে ঝড় তুলবেন তারা। কিন্তু ডুপ্লেসিস ছাড়া আর কেউ ভারতীয় বোলিংয়ের বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারেননি! তৃতীয় উইকেটে ভিলিয়ার্স-ডুপ্লেসিস চেষ্টা চালিয়েছিলেন, তা ভেস্তে যায় মোহিত শর্মার দারুণ এক থ্রোতে। ৩০ রান করে রান আউট হন অধিনায়ক ভিলিয়ার্স।

এ পর্যায়ে দেয়াল হয়ে দাঁড়ানোর শেষ চেষ্টাটা করেছেন ডুপ্লেসিস। এবারও ব্রেক থ্রুর রূপকার মোহিত। ধাওয়ানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ৫৫ রান করে। ৭১ বলের ইনিংসে ছিল ৫টি চারের মার। ২২.৪ থেকে ৪০.২ ওভারে ১০৮/২ থেকে ১৭৭-এ অলআউট দক্ষিণ আফ্রিকা! ৬৯ রানে পড়ে শেষ ৮ উইকেট। তৃতীয় সর্বোচ্চ ২২ আমলা ও মিলারের। ভারতের সফল স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন ৪১ রান দিয়ে নেন ৩ উইকেট। বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা-গেড়ো খোলে ভারত। আগের তিনবারের দেখায় সব কটিতেই হারা চ্যাম্পিয়নরা এবার তুলে নেয় দুর্দান্ত সাফল্য। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতেও প্রথমবারের মতো প্রোটিয়াদের হারায় ধোনির দল। সম্প্রতি দুর্দান্ত পারফর্মেন্সের বিচারেই এবারের বিশ্বকাপের হট-ফেবারিট দক্ষিণ আফ্রিকা। বাজিকরদের বাজির পাল্লাও ভারি প্রোটিয়াদের দিকে। দুই স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের পর সবচেয়ে ভয়ঙ্কর দল। অথচ ডি ভিলিয়ার্সাদের খেলা দেখে সেটি মনে হচ্ছে না। প্রথম ম্যাচে দুর্বল জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে জিতলেও ঠিক নিজেদের চেহারায় দেখা যায়নি। আর ভারতের কাছে বড় ম্যাচে তো বড় লজ্জাতেই ডুবল ক্রিকেটের চির-চোকার দক্ষিণ আফ্রিকা! শুক্রবার পরের ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

দারুণ জয়ে খুশি ভারত অধিনায়ক ধোনি বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জয়ে খুশি আমি। তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি বড় ম্যাচে আমরা যেভাবে জিতলাম। দুটি ম্যাচেই বোলিং-ব্যাটিং সব বিভাগে শতভাগ সামর্থ্য প্রকাশিত হয়েছে। প্রথমে ধাওয়ান আজ দারুণ একটি ইনিংস খেলেছে। ভাল করেছে রাহানে আর কোহলিও। পরে বল হাতে শামি-মোহিত দুজনেই ছিল দুর্দান্ত। অস্ট্রেলিয়ার কন্ডিশনে স্পিনার হিসেবে অশ্বিনের ৩ উইকেট অবশ্যই বিশেষ কৃতিত্বের দাবি রাখে। তবে অতি উৎসাহে গা ভাসানোর সুযোগ নেই। সামনে অনেক পথ যেতে হবে।’

প্রকাশিত : ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

২৩/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: