মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান ॥ বঙ্গবন্ধু ও আজকের বাংলাদেশ

প্রকাশিত : ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • তোফায়েল আহমেদ

প্রতিবছর ২৩ ফেব্রুয়ারি যখন ফিরে আসে দিনটি আমি গভীরভাবে স্মরণ করি। এদিনটি আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ দিন। ১৯৬৯-এর ২৩ ফেব্রুয়ারি ইতিহাসের মহামানব, বাংলার মুকুটহীন সম্রাট জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানকে জাতির পক্ষ থেকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছিল। প্রিয় নেতা তাঁর যৌবনের চৌদ্দটি মূল্যবান বছর পাকিস্তানের কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে কাটিয়েছেন। কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে বসে যে নেতা প্রিয় মাতৃভূমি বাংলার ছবি হৃদয় দিয়ে এঁকেছেন, ফাঁসির মঞ্চে দাঁড়িয়ে হাসিমুখে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছেন, সেই নেতাকেই জাতির পক্ষ থেকে সেদিন কৃতজ্ঞচিত্তে বঙ্গবন্ধু উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছিল।

তিনি শুধু বাঙালি জাতিরই মহান নেতাই ছিলেন না, সারাবিশ্বের নিপীড়িত মানুষের অন্যতম শ্রেষ্ঠ নেতা ছিলেন। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পরপরই তিনি হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করেছিলেন এই পাকিস্তান বাঙালীদের জন্য হয়নি। একদিন বাঙালীকেই বাংলার ভাগ্যনিয়ন্তা হতে হবে। সেই লক্ষ্যকে সামনে নিয়ে জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের সুদীর্ঘ পথে নেতৃত্ব দিয়ে বাঙালী জাতীয়তাবাদী আন্দোলন সংগঠিত করে স্বাধীন ও সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছেন।

আজকের বাংলাদেশে আন্দোলনের নামে যা চলছে তাতে দেশের মানুষের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। ’৬৯-এর মহান গণআন্দোলনে বাংলার মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার বিষয়টিই মুখ্য ছিল। দেশের আপামর জনসাধারণের স্বার্থে আমরা ১১ দফা প্রণয়ন করে পাকিস্তানের ভিত কাঁপিয়ে দিয়ে তথাকথিত ফিল্ডমার্শাল আইয়ুব খানের পতন ঘটিয়েছিলাম। সেই আন্দোলন ছিল প্রকৃতপক্ষেই জনগণের ভোটাধিকারসহ রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন। ’৬৯-এর গণআন্দোলন ছিল একটি কণ্ঠকে বাঁচাবার জন্য আন্দোলন। সেই কণ্ঠটি ছিল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কণ্ঠ। তাঁর বজ্রকণ্ঠে ধ্বনিত-প্রতিধ্বনিত হয়ে উচ্চারিত হতো সারাদেশের মানুষের কণ্ঠ। এই কণ্ঠটিকে যখন ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলিয়ে নিস্তব্ধ করতে চেয়েছিল তখন জাগ্রত ছাত্রসমাজ বাংলার গণমানুষকে সংগঠিত করে বাংলার মানুষের নয়নের মণি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবসহ সকল রাজনৈতিক বন্দীকে কারাগার থেকে মুক্ত করেছিল। সেদিনও আমরা হরতাল করেছি। বিভিন্ন কর্মসূচী প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়ন করেছি। সেসব কর্মসূচীতে মানুষের অংশগ্রহণ ছিল স্বতঃস্ফূর্ত। আমরা যখন তৎকালীন জিন্নাহ এভিনিউ যা আজকের বঙ্গবন্ধু এভিনিউ থেকে কোন কর্মসূচী দিতাম, তখন সচিবালয়সহ বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী অফিস, শিল্প-কল-কারাখানা থেকে সর্বশ্রেণী ও পেশার মানুষ মিছিল করে বেরিয়ে আসত। আমাদের কর্মসূচী স্বতঃস্ফূর্তভাবে পালন করত। রাস্তায় কোন গাড়ি চলত না, অফিস-আদালত বন্ধ হয়ে যেত। এমনকি প্রত্যন্ত গ্রামে কৃষক পথে লাঙল ফেলে, জেলে জাল গুটিয়ে, মাঝি নৌকা সড়কে তুলে দিয়ে নজিরবিহীন অবরোধ সৃষ্টি করেছিল। পল্টনে যখন আমরা জনসভা দিতাম, সেই জনসভা কানায়-কানায় পরিপূর্ণ হয়ে যেত। কারণ সেই আন্দোলন ছিল জনগণের সার্বিক মুক্তির আন্দোলন। যে আন্দোলনের পথ বেয়ে পরবর্তীতে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে আমরা স্বাধীন ও সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ অর্জন করেছি এবং এই কারণেই আমাদের জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে ’৬৯-এর গণআন্দোলন এক গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায়। কারণ ঐ কালপর্বটি ছিল মহান মুক্তিযুদ্ধের ‘ড্রেস রিহার্সেল।’

গণমানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার যে আন্দোলন তার একটি রাজনৈতিক-সংস্কৃতি থাকে। যা অভিব্যক্ত হয় নিয়মতান্ত্রিকতা তথা গণতান্ত্রিক আচরণের মাধ্যমে। যা আমরা অর্জন করেছি জাতির জনকের নেতৃত্বে দীর্ঘ চব্বিশ বছরব্যাপী জাতীয় মুক্তি সংগ্রামের মধ্য দিয়ে। কিন্তু আজ আমরা স্বাধীন বাংলাদেশে কী দেখছি? এ কোন মানসিকতার আন্দোলন দেখছি? আজকে হরতালের নামে অবরোধের নামে পৈশাচিক কর্মকা- করা হচ্ছে। এগুলো আমাদের জীবনে চিন্তার মধ্যেও ছিল না। যেদিন ’৬৯-এর ২০ জানুয়ারি আসাদকে গুলি করে হত্যা করা হলো, ২৪ জানুয়ারি মতিয়ুর-মকবুল-রুস্তমকে হত্যা করল, সেদিন দাবানলের মতো আগুন জ্বলে উঠেছিল। সারাদেশের মানুষ রাজপথে নেমে গণঅভ্যুত্থান সংঘটিত করেছিল। সেটিই ছিল মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার সত্যিকারের আন্দোলন। সেসব দিনের কথা আজ স্মৃতির পাতায় ভেসে ওঠে।

আমরা তখন ছাত্রদের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করেছি। আর আজকে দেখি ১৫-১৬ লাখ নিষ্পাপ ছাত্র-ছাত্রী-তাদের পরীক্ষার দিনেও বিএনপি-জামায়াত লাগাতার হরতাল-অবরোধের কর্মসূচী দিয়ে তাদের পরীক্ষাকে বাধাগ্রস্ত করছে। পবিত্র হজের পরে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম সম্মিলন বিশ্ব এজতেমার দিনেও-যেদিনে লাখ লাখ নিরপরাধ ধর্মপ্রাণ মানুষ একটি স্থানে সমবেত হয়, একত্রিত হয়-সে দিনটিতেও হরতাল-অবরোধ দিয়ে বিএনপি-জামায়াত মানুষ পুড়িয়ে মারে। এমনকি মহান একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসও তাদের হরতাল-অবরোধ কর্মসূচী থেকে রেহাই পায়নি। এ ধরনের ন্যক্কারজনক গণবিরোধী কর্মসূচী দেশের মানুষ অতীতেও মানেনি, এখনো মানছে না, ভবিষ্যতেও কোনদিন মেনে নেবে না। আজ যখন ২৩ ফেব্রুয়ারি ফিরে এসেছে তখন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কথা, সুমহান সংগ্রামের গৌরবোজ্জ্বল দিনগুলোর কথা গভীরভাবে আমাকে নাড়া দেয়। কারণ সংগ্রামমুখর ওই দিনগুলোতে আমরা দেখেছি, শিখেছি মানুষের ভালোবাসায় কিভাবে সিক্ত হতে হয়। বাঙালী জাতির ইতিহাসে ২৩ ফেব্রুয়ারি একটি ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ দিন। যতদিন বেঁচে থাকব হৃদয়ের গভীরে লালিত এ দিবসটিকে স্মরণ করব।

লেখক : আওয়ামী লীগ নেতা, মন্ত্রী, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার tofailahmed69@gmail.com

প্রকাশিত : ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

২৩/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: