কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

আইএসে যোগ দিতে সিরিয়ার পথে তিন ব্রিটিশ স্কুলছাত্রী

প্রকাশিত : ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • দুই কিশোরী বাংলাভাষী

পূর্ব লন্ডনের তিন স্কুলছাত্রী বিমানে তুরস্ক যাত্রা করেছে এবং আশঙ্কা করা হচ্ছে, তারা সিরীয় সীমান্ত অতিক্রম করে ইসলামিক স্টেট (আইএস) সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠীতে যোগদান করতে পারে। শামিমা বেগম (১৫), খাদিজা সুলতানা (১৬) ও এক অজ্ঞাতনামা (১৫)- তিন কিশোরীর বেথলাল গ্রিন একাডেমির ছাত্রী। অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার ছুটিতে মঙ্গলবার তারা লন্ডনের গ্যাটউইক বিমানবন্দর থেকে যাত্রা করে। খবর বিবিসির।

মেট্রোপলিটন পুলিশের কমান্ডার রিচার্ড ওয়াল্টন বলেন, তাঁর ভয় হচ্ছে তারা ‘রেল ঝুঁকিতে’ রয়েছে। তিনজনের সঙ্গেই চতুর্থ আরেকটি মেয়ের বন্ধুত্ব হয় গত ডিসেম্বরে, যে সিরিয়া ভ্রমণ করেছিল। এ ঘটনায় কিশোরীদের পরিবার ‘প্রচ- আঘাত’ পেয়েছে। তবে তাদের এখনও তুরস্কে অবস্থান করার ‘ভাল সম্ভাবনা’ রয়েছে। তিনি আশা প্রকাশ করেছেন যে, সামাজিক গণমাধ্যমে প্রচারিত পুলিশের একটি আবেদনে সাড়া দিয়ে তারা হয়ত সিরিয়ায় প্রবেশ করবে না। পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার সকালে তাদের শেষবারের মতো নিজেদের বাড়িতে দেখা যায়। তারপর তাদের পরিবারকে ‘যৌক্তিক কারণ’ দেখিয়ে তারা সেদিনের মতো বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। তারা টার্কিশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে আরোহণ করে এবং সেদিন সন্ধ্যায় বিমানটি তুরস্কে অবতরণ করে। পরিবারের অনুরোধে তৃতীয় মেয়েটির নাম প্রকাশ করা হয়নি। শামিমা সম্ভবত তার ১৭ বছর বয়সী বোন আকলিমা বেগমের নামে ভ্রমণ করছে। ওয়াল্টন বলেন, তাঁর আশা, তিন কিশোরী তাদের নিরাপত্তার ব্যাপারে আমাদের উদ্বেগে কান দেবে এবং তাদের পরিবারের সঙ্গে যোগ দিতে এখনই ফিরে আসার সাহস দেখাবে। তাদের পরিবার তাদের ব্যাপারে খুবই উদ্বিগ্ন। অল্পবয়সী মেয়েদের মধ্যে আইএসে যোগ দেয়ার ক্রমবর্ধমান আগ্রহ দেখে তাঁর বাহিনী ক্রমশ ‘বেশি করে উদ্বিগ্ন’ হয়ে পড়ছে। ‘ইসলামিক স্টেটের খপ্পরে একবার পড়ে গেলে সিরিয়া থেকে ফিরে আসার সুযোগ প্রায়ই থাকে না। যুক্তরাজ্যে তাদের পরিবারবর্গ এতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়বে এবং তাদের নিরাপদে ফিরিয়ে আনার খুব কম বিকল্প পথই খোলা থাকবে।’ তুরস্কে থাকাকালেই যদি আমরা তাদের অবস্থান খুঁজে পাই তবে তাদের ফিরিয়ে এনে পরিবারগুলোর কাছে তুলে দেয়ার ভাল সম্ভাবনা আছে।

শামিমা ও ১৫ বছর বয়সী অজ্ঞাতনামা মেয়েটি মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে নিখোঁজ বলে তাদের পরিবার থেকে জানানো হয়। আর খাদিজা বুধবার সকাল থেকে নিখোঁজ হয়। পুলিশ তিন মেয়ের যে বর্ণনা প্রকাশ করেছে তাতে বলা হয়, খাদিজা সুলতানা ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি লম্বা ও হাল্কা-পাতলা গড়নের। সে লন্ডনের উচ্চারণ ভঙ্গিতে ইংরেজী ও বাংলার কথা বলে। শামিমা বেগম ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি লম্বা। সে লন্ডনের উচ্চারণে ইংরেজী ও বাংলায় কথা বলে। ১৫ বছর বয়সী অজ্ঞাতনামা মেয়েটি ইংরেজী ও ইথিওপীয় আমহারিক ভাষায় কথা বলে। পূর্ব লন্ডন মসজিদের একজন মুখপাত্র সালমান ফারসি বলেন, তাঁর ধারণা, মেয়েগুলোকে ‘বিভ্রান্ত’ করা হয়েছে।

প্রকাশিত : ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

২২/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

বিদেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: