আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

লিবিয়ায় জাতিসংঘের সামরিক অভিযান চায় মিসর

প্রকাশিত : ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

আইএস জঙ্গীদের হাতে ২১ মিসরীয় খ্রিস্টানের শিরñেদের পর লিবিয়ায় জাতিসংঘ সমর্থিত সামরিক অভিযান চালানোর আহ্বান জানিয়েছে কায়রো। সহিংসতা বিক্ষুব্ধ পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্রগুলোকে সহিংসতার বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালানোর জন্য মধ্যপ্রাচ্যে বিভিন্ন দেশের সরকারগুলোর ক্রমবর্ধমান ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটেছে মিসরের এক আহ্বানে। খবর ওয়াশিংটন পোস্ট অনলাইনের।

মিসরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাতাহ আল-সিসি এক ফরাসী রেডিও স্টেশনের সঙ্গে এক সাক্ষাতকারে এ আবেদন জানান। সিসি বলেছেন, লিবিয়া সামরিক অভিযান চালাতে হবে। অন্য কোন বিকল্প নেই। তিনি এ গোলযোগ সহিংসতাকে আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার প্রতি এক হুমকি বলে আখ্যায়িত করেছেন। ২১ মিসরীয় খ্রিস্টানকে বিভৎসভাবে হত্যার জন্য ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য লিবিয়ায় জঙ্গী সংগঠনটির অবস্থানে মিসরীয় যুদ্ধ বিমান থেকে বোমা হামলা চালানো হয় এবং ওই হামলার একদিন পর তিনি এ কথা বললেন।

আইএস এক আটক জর্দানি বৈমানিককে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যা করার পর জর্দান এ মাসের শুরুতে সিরিয়ায় এক আবস্মিক বিমান হামলা চালায়। সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতও আইএসের ওপর ওই বিমান হামলায় অংশ নিয়েছে। এই আইএস গত গ্রীস্মে সিরিয়া ও ইরাকে খিলাফত রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয়। এক মার্কিন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা বলেছেন, এ অঞ্চলের সামরিক বাহিনীর হামলা এ দৃষ্টান্ত তুলে ধরে যেÑ আরব রাষ্ট্রগুলোর অন্যান্য দেশ আইএসের হুমকি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। পরচিয় গোপন রাখার শর্তে কর্মকর্তাটি বলেন, মিসরীয় সরকার ওয়াশিংটনকে আগাম সতর্কতা বিষয়ে কিছু জানায়নি। মিসরীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, তাদের কূটনীতিকরা মঙ্গলবার কায়রোয় ইউরোপীয় রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন। তারা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মিসরকে সহায়তার জন্য তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্র ও অন্য পাঁচটি দেশ মঙ্গলবার এক যৌথ বিবৃতিতে লিবিয়ায় আলোচনার মাধ্যমে একটি জাতীয় ঐক্যের সরকার গঠনের আহ্বান জানানো হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের উদ্যোগে এ আলোচনা চলছে। ফ্রান্স, ইতালি, জার্মানি, স্পেন, ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্র সরকার স্বাক্ষরিত ওই বিবৃতিতে বলা হয়, যারা গণতান্ত্রিক উত্তরণ বাধাগ্রস্ত করছে তাদের গোলযোগও সন্ত্রাসের জন্য লিবিয়ার বিরুদ্ধে নিন্দা প্রকাশ করতে দেয়া হবেন। তাদের অপতৎপরতার জন্য লিবীয় জনগণ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে দায়ী থাকবে।

কি ধরনের আন্তর্জাতিক সামরিক অভিযান মিসর চালাতে চায়, সে ব্যাপারে মিসরীয় কর্মকর্তারা বিস্তারিত কিছুই কোম্পানি।

প্রকাশিত : ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৯/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: