রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

এখনও সময় আছে ক্ষমা চেয়ে গণতন্ত্রের পথে আসুন

প্রকাশিত : ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • খালেদার উদ্দেশে নাসিম

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, বিএনপি সন্ত্রাস ছেড়ে জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়ে শান্তিপূর্ণ মিছিল-সমাবেশ করতে চাইলে কেউ বাধা দেবে না। আর নির্বাচন চাইলে ২০১৯ সালে হবে, সেটা সংবিধান অনুসারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনেই হবে। খুনী-সন্ত্রাসীদের সঙ্গে সংলাপের প্রশ্নই ওঠে না।

সোমবার বিকেলে উত্তরার আজমপুরে ১৪ দল আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি-জামায়াতের হরতাল-অবরোধের নামে মানুষ পুড়িয়ে হত্যার প্রতিবাদে ধারাবাহিক কর্মসূচীর অংশ হিসেবে এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজ, সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, ১৪ দলের নেতা এস কে শিকদার, শাহাদাত হোসেন।

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া- এখনও সময় আছে ক্ষমা চেয়ে গণতন্ত্রের পথে আসুন। শান্তিপূর্ণ মিছিল-সমাবেশ করুক কেউ বাধা দেবে না। আমরা যখন আন্দোলন করতাম তখন রাজপথে নির্যাতিত হয়েছি, নিজেরা মার খেয়েছি। মানুষের ওপর নির্যাতন করিনি। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে রাজপথে আন্দোলন করেছি। কিন্তু আন্দোলনের নামে বিএনপি মানুষের ওপর নির্যাতন করছে, মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করছে। খালেদা জিয়ার আন্দোলনে জনগণ তো দূরের কথা, বিএনপির নেতাকর্মীরাও মাঠে নেই। অথচ বার্ন ইউনিট মানুষের কান্নায় ভরে গেছে। হরতালের নামে মানুষকে নিষ্ঠুর ও পৈশাচিকভাবে পুড়িয়ে মারা হচ্ছে। দেশবাসী আর এসব সহ্য করবে না। জনগণের রুদ্ররোষ থেকে খালেদা জিয়া নিজেকে রক্ষা করতে পারবেন না।

বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, সংলাপ এখন খারাপ শব্দ হয়ে গেছে। ১/১১ সময়ে যারা সংলাপের কথা বলেছেন, তাদের লক্ষ্য ছিলÑ দুই নেত্রীকে মাইনাস করা। আজকেও আবার নতুন করে সেই সংলাপেরই কথা উঠেছে। এটা পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার ষড়যন্ত্র। তবে যতই ষড়যন্ত্র হোক না কেন, কেউ পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় যেতে পারবেন না।

তথাকথিত বুদ্ধিজীবীদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, বিএনপি রাজনীতির মাঠে হেরে গিয়ে এখন বিশিষ্ট কিছু ব্যক্তি আর বুদ্ধিজীবীকে মাঠে নামিয়েছে; যারা বিশেষ সময়ে সুবিধা লুটে। এই সুবিধাবাদীরাই এখন সংলাপের কথা বলছে। সন্ত্রাস ছেড়ে গণতন্ত্রের পথে এলেই আপনাদের (বিএনপি) সঙ্গে আলোচনা সম্ভব হতে পারে বলেও জানান চৌদ্দ দলের এই শীর্ষ নেতা।

চূড়ান্ত পরিণতি ভোগ করতে হবে বিএনপিকে- সুরঞ্জিত ॥ মঙ্গলবার রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু একাডেমি আয়োজিত আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত সহিংসতা, হত্যা এবং রক্তপাতের পথ ছেড়ে দিয়ে গণতন্ত্রের পথে আসার জন্য বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, নইলে এর যা পরিণতি হওয়া দরকার সেই পরিণতিই তাদের ভোগ করতে হবে। সুপ্রীমকোর্টের রুলের চূড়ান্ত শুনানি পর্যন্ত আমরা অপেক্ষা করব। এরপর আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। খন্দকার ডাঃ ইমদাদুল হক সেলিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু একাডেমির উপদেষ্টা ইঞ্জিনিয়ার আবদুল মোতালেব, মহাসচিব হুমায়ুন কবির মিজী, সাম্যবাদী দলের হারুন চৌধুরী প্রমুখ।

প্রকাশিত : ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৭/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: