রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

পাবনার চরাঞ্চলে সিসা ঢালাই কারখানায়

প্রকাশিত : ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • জনস্বাস্থ্য বিপন্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা, পাবনা, ১৪ ফেব্রুয়ারি ॥ বেড়া উপজেলার প্রত্যন্ত যমুনার চরসাফুল্লায় প্রায় ২শ’ সিসা ঢালাই কারখানা গড়ে উঠেছে। পরিবেশ অধিদফতরের অনুমোদনহীন এসব কারখানার বিষাক্ত গ্যাসে চরে বসবাসরত ৬ হাজার মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাপন ব্যহত হচ্ছে। অন্যদিকে শিশা কারখানার রাসায়নিক ফসলের ক্ষেতে ছড়িয়ে পড়ায় আবাদী জমি দুষিত হয়ে পড়ছে। প্রভাবশালী কারখানা মালিকদের ভয়ে চরবাসী অবর্ণনীয় দুর্ভোগের মধ্যে জীবন যাপনে বাধ্য হচ্ছে। চরবাসীর অভিযোগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জেলার নগরবাড়ী ঘাট থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার দূরের যমুনা পাড়ের চরসাফুল্লায় দীর্ঘদিন যাবত প্রায় ২শ’ চুল্লিতে পুরনো ব্যাটারি ও শিশাযুক্ত বিভিন্ন দ্রব্যাদি পুড়িয়ে শিশা বের করা হয়। এলাকাবাসী জানিয়েছেন, প্রভাবশালী ঘুটু ম-ল, আলম খাঁ, দাউদসহ কয়েকজন ব্যক্তির সিন্ডিকেটে এ কারখানা গড়ে উঠেছে। পাবনা, রাজবাড়ী, নাটোর, বগুড়া, সিরাজগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলা থেকে বিপুল পরিমাণ ড্রাইসেল ব্যাটারি ও সিসাযুক্ত বিভিন্ন দ্রব্যাদি ফরিয়া ও হকারদের মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয়। এরপর সোনাপদ্মা ও রাকসার আড়তে এগুলো জমা করা হয়। এসব দ্রব্যাদি আড়ত থেকে প্রতিদিন বিকেলে ২০-২৫টি নৌকাযোগে যমুনা পাড়ি দিয়ে চরসাফুল্লা কারখানায় নেয়া হয়। রাত হলেই চুল্লিতে শিশা ঢালাই শুরু হয়। চরবাসী মজিদ ম-ল, আব্দুল মজিদ সরকার, আব্দুল করিম শেখ অভিযোগে জানিয়েছেন রাতে শিশা ঢালাই শুরু হলে এলাকাজুড়ে কেমিক্যালের বিষাক্ত গ্যাস ও দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় তাদের স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে কষ্ট হয়। এলাকাবাসীর আরও অভিযোগ, শিশা কারখানার কেমিক্যাল কৃষি জমিতে ছাড়িয়ে পাড়ায় মাটিও দূষিত হয়ে পড়ছে। এসব মাটি স্পর্শ করলেই শরীরে নানান চর্মরোগ সৃষ্টি হচ্ছে। এ জমিতে ফসল যেমন ভাল হচ্ছে না, তেমনি দূষিত জমির ঘাস খেয়ে তাদের গরু ছাগল নানা রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে।

প্রকাশিত : ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৫/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: