মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ফিরে দেখা ভাষা আন্দোলন ॥ পলাশী ব্যারাক

প্রকাশিত : ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • এমআর মাহবুব

রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর প্রথম শারীরিক হামলা ও রক্তপাতের ঘটনা ঘটে ১২ ডিসেম্বর ১৯৪৭ তারিখে ঢাকার পলাশী ব্যারাকে। এদিন একদল সন্ত্রাসী উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে স্লোগান দিয়ে বাস ও ট্রাকে চড়ে পলাশী ব্যারাকে উপস্থিত হয়। তারা আহসান উল্লাহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকে। বিভিন্ন ধরনের লাঠি, রড, ইত্যাদি ব্যবহারের মাধ্যমে আক্রমণ চালানোর পর কয়েক রাউন্ড গুলিবর্ষণও করা হয়। এতে বহু লোক আহত হয়। সন্ত্রাসীরা যে বাসটি ব্যবহার করে সেটির নাম ছিল ‘মুকুল’। বাসে দুটি মাইক্রোফোন সংযুক্ত ছিল। তারা মাইকে স্লেøাগান দেয়;

‘রাষ্ট্রভাষা উর্দু চাই

উর্দুভাষার বিরোধীরা কাফের

এই কাফেরদের শায়েস্তা করতে হবে’

অন্তত ৪০ জন সন্ত্রাসী ‘মুকুল’ নামক বাসে চড়ে প্রথম আক্রমণ চালায় সকাল সাড়ে ১১টায়। তারা হকিস্টিক, ডেগার, রড ইত্যাদি দিয়ে ব্যারাকের লোকদের ওপর আক্রমণ চালায়। এতে অনেকে আহত হয়। কিছুক্ষণ পর তারা ইট-পাটকেল মারতে শুরু করে। এ সময় লালবাগ থানাপুলিশ ঘণ্টা বাজিয়ে ঘটনাস্থলে এলে গু-ারা প্রথম দফায় পালিয়ে যায়।

পলাশীর ব্যারাকের পথসভা থেকে পরেরদিন ১৩ ডিসেম্বর সরকারী অফিস-আদালতে ধর্মঘট পালন করে এর সমুচিত জবাব দেয়ার ছাত্র সমাজ আহ্বান জানান। পরেরদিন সেক্রেটারিয়েটসহ সরকারী অফিসে সফল ধর্মঘট পালিত হয়। এটা পাকিস্তান-উত্তর সরকারী অফিসে প্রথম ধর্মঘট। বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে এমন একটি সফল প্রতিরোধ ও ধর্মঘট পালিত হওয়ায় ভাষা-আন্দোলনরত নেতাকর্মীদের মনোবল ও আস্থা অনেকাংশে বেড়ে যায়। পলাশী ব্যারাকে হামলার খবরে তাৎক্ষণিকভাবে জনমনে প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় ছাত্র-জনতার বিক্ষোভ ফেটে পড়ে।

প্রকাশিত : ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৫/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: