আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

শান্তিপূর্ণ পরিবেশে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত : ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • একদিনে দুই পরীক্ষা নয় ॥ শিক্ষামন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপি-জামায়াত জোটের নাশকতার আতঙ্ক নিয়েই দেশজুড়ে পরীক্ষার তৃতীয় দিন পার করল এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তার স্বার্থে তৃতীয় দিনের পরীক্ষাও অনুষ্ঠিত হলো শুক্রবার সরকারী ছুটির দিনে। রাজধানীসহ দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলাতেই সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পরীক্ষা হয়েছে। নাশকতার ভয় থাকলেও পরীক্ষার জন্য সারাদেশে নেয়া কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সন্তুষ্ট পরীক্ষার্থী-অভিভাবকরা। পরীক্ষার্থী, অভিভাবকরা আবারও পরীক্ষার সময়ে হরতাল-অবরোধ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন। এদিকে অবরোধ-হরতালের কারণে পেছানো হলেও সকাল-বিকেল দুটি করে নেয়া হবে না বলে উদ্বিঘœ শিক্ষার্থী অভিভাবকদের নিশ্চিত করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। বলেছেন, প্রতিদিন দুটি করে পরীক্ষা নেয়ার কোন পরিকল্পনাও নেই। এটা গুজব।

শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে এসএসসিতে ইংরেজী (আবশ্যিক) প্রথমপত্র, দাখিলে আরবি প্রথমপত্র, এসএসসি ভোকেশনালে গণিত-২ (১৯২৩) ও গণিত-২ (৮১২৩) এবং ভোকেশনাল দাখিলে গণিত-২ (১৭২৩) ও গণিত-২ (৮৫২৩) বিষয়ের পরীক্ষা হয়েছে। এ পরীক্ষাগুলো গত ৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও হরতালের কারণে পিছিয়ে যায়। এদিকে আজ শনিবার অবরোধের মধ্যেই অনুষ্ঠিত হবে ১০ ফেব্রুয়ারি পিছিয়ে ইংরেজী দ্বিতীয়পত্র পরীক্ষা। এর আগে বিএনপি-জামায়াত জোটের হরতালের কারণে দুই দফা পেছানোর পর অবরোধের মধ্যেই ৬ ফেব্রয়ারি শুক্রবার থেকে দেশজুড়ে শুরু হয় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। ২৭ হাজার ৮০৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১৪ লাখ ৭৯ হাজার ২৬৬ জন শিক্ষার্থী এবার এ পরীক্ষার জন্য নিবন্ধন করেছে। সারাদেশে তিন হাজার ১১৬টি কেন্দ্রে একযোগে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। শুক্রবার সকালে মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল এ্যান্ড কলেজে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন শিক্ষামন্ত্রী। এ সময় তিনি কেন্দ্রের বাইরে অপেক্ষমাণ অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেন। অভিভাবকদের তিনি জানান, সকাল-বিকেল দুটি করে পরীক্ষা নেয়া হবে না। এটা গুজব, আপনারা এই গুজবে কান দেবেন না। আমি ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে মিশি, তাদের মনের কথা বুঝি। দিনে দুটি পরীক্ষা নেব না। আমরা দিনে দুটি করে পরীক্ষা দিয়েছি, সেই দিন আর নেই। কৌশলে পরীক্ষাগুলো শেষ করে ঠিক সময়েই ফল দিয়ে দেব। অনেকে বলছেন, এক দিনে দুইটি পরীক্ষা নিতে। অনেকেই এ ধরনের বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন। কিন্তু প্রয়োজনে সময় বেশি লাগুক, তবু এক দিনে দুইটি পরীক্ষা নেয়া হবে না। পরীক্ষা কেন্দ্রে সামনে শিক্ষামন্ত্রীকে দেখে তার কাছে সন্তানদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ জানান অনেক অভিভাবক। শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের ঝুঁকিতে ফেলে গায়ের জোরে পরীক্ষা নেব সেই শক্তি আমাদের নেই। আর শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তাই আমাদের কাছে সব থেকে বড়। পরীক্ষার সময়ে হরতাল-অবরোধে শিক্ষার্থীদের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, নতুন প্রজন্মকে নিয়ে আমি চিন্তিত। কিন্তু পরীক্ষার থেকে তাদের নিরাপত্তাই আমাদের কাছে বড়। হরতালের মধ্যে শিক্ষার্থীরা মানসিক চাপ, আতঙ্ক আর অনিশ্চয়তার মধ্যে পরীক্ষায় বসছে। বোমা মেরে মানুষ হত্যা বন্ধ করতে বিএনপি জোটের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, পারলে মানুষ নিয়ে গণঅভ্যুত্থান করে ক্ষমতা দখল করুন। দয়া করে আর হরতাল দেবেন না, আমি করজোড়ে বলছি।

প্রকাশিত : ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৪/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অন্য খবর



ব্রেকিং নিউজ: