কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বেঁচে থাকা ভালবাসায়

প্রকাশিত : ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • সাবিনা ইয়াসমিন

‘ভালবাসি ভালবাসি এই সুরে কাছে দূরে জলে স্থলে বাজায় বাঁশি...’ গানটা শুনতেই আনমনা হয়ে যায় দীপা। মুহূর্তেই যেন ফিরে যায় ভার্সিটির দিনগুলোতে। সে সময়ই যেন এ গানটি তার জীবনে পেয়েছিল পূর্ণ সার্থকতা । স্মৃতিময় সেই দিনগুলোতে অয়নও যেন ছিল বেশ রোমান্টিক । অথচ বিয়ের মাত্র দু’বছরেই অয়নের সব আবেগ ও রোমান্টিকতা যেন কর্পূরের মতোই উবে গেছে। অথচ তখন দু’জন শহরের দু’প্রান্তে থাকলেও ভালবাসায় একটুও ঘাটতি আছে বলে মনে হতো না। শত ব্যস্ততার মাঝেও দিনে একটিবারের চোখাচোখি যেন দু’জনের মাঝের সব ব্যবধানকে দূর করে দিত মুহূর্তেই । আর এখন একই ছাদের নিচে থেকেও যেন দু’জন পৃথিবীর দু’প্রান্তের মানুষ। প্রয়োজন ছাড়া তেমন কোন কথা হয় না। ভালবাসা, আবেগ কিংবা অনুভূতির কোন সুরই যেন আর আগের মতো নাড়া দেয় না দু’জনকে। এখন কেবলই ব্যস্ততা, কেবলই ভালবাসাহীনতা। তাই পাশের ফ্ল্যাটের বুড়ো আঙ্কেল এবং আন্টিকে দেখে মাঝে মধ্যে খুব হিংসা হয় দীপার। সদ্য তিরিশের কোঠা পেরোনো দীপা ও অয়ন দু’বছরের সংসারে কেমন যেন হাঁপিয়ে উঠেছে। অথচ পাশের ফ্ল্যাটের ষাটোর্ধ বৃদ্ধ দম্পতি এখনও কেমন চনমনে ও চাঙ্গা।

দু’জনের আচরণ এখনও নব দম্পতির মতো মিষ্টি ও লাজুক। কি সকাল, কি বিকাল দু’জনেই কেমন ছটফটে, প্রাণবন্ত। আর তারা! মাঝে মাঝে দীপা ভাবে, ‘তবে কি জীবন থেকে ভালবাসা একেবারে হারিয়ে যাচ্ছে? মিষ্টি ভালবাসায় দিনগুলো কি আর কখনই ফিরে আসবে না?’

অনেকেই বলেন, বিয়েতেই নাকি প্রেমের মৃত্যু হয়। আসলেই কি তাই? দীপার মতো এমন অনেকেই হয়ত বিয়ের পর সংসার জীবনে প্রেমময় আগের দিনগুলো ফিরে পান না। কিন্তু তাই বলে যে প্রেম-ভালবাসা বিয়েতেই শেষ হয়ে যায়, তা একেবারেই ঠিক নয়। বিয়ের পরে নারী-পুরুষ দু’জনই একটি দাম্পত জীবনে প্রবেশ করে। তখন বিয়ের আগের অনেক কিছুই সময় ও জীবনের প্রয়োজনে বদলে যায় কিংবা বদলাতে হয়। সেই বদল বা পরিবর্তনই অনেকের জীবনে গভীর প্রভাব ফেলে। দাম্পত্য জীবনে দীপা ও অয়নের মতো এমন সমস্যায় পড়েন অনেকে। প্রেমের বিয়ে কিংবা পারিবারিকভাবে করা বিয়ে যাই হোক না কেন, চাইলেই ভালবাসায় সংসার গড়া সম্ভব। প্রতিটি সম্পর্কে কমবেশি টানাপোড়েন থাকে। আর ব্যস্ততা এই টানাপোড়েনকে করে আরও দীর্ঘ। তাই বলে আবেগ, অনুভূতি কিংবা ভালবাসাকে উপেক্ষা করা চলবে না। বিয়ের পর অল্প কিছুদিনই স্বামী-স্ত্রীতে কেবল ভাব ভালবাসা থাকে। এর পরের দিনগুলো ঘর-গৃহস্থালির অন্যান্য কাজের মতোই কেটে যায়। এমন অভিযোগও অনেক দম্পতির। স্বামী বাইরের কাজে বেশি সময় দেন বলে স্ত্রীকে বাধ্য হয়েই হয়ত ঘরকন্নার কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয়। আর কর্মজীবী স্ত্রী হলে অফিস শেষে ঘরের কাজের ব্যস্ততায় দিনের বাকিটা সময় কাটাতে হয়। তাই স্বামী-স্ত্রীর প্রয়োজন ছাড়া কথা বলার ফুরসত মেলে না। এভাবেই সম্পর্কের মাঝে¡ তৈরি হয় দূরত । পরিবার-পরিজন ও সংসারের প্রতি নারী বেশি দায়িত্বশীল। তাই সবচেয়ে কাছের সম্পর্কটাকে আরও বেশি প্রাণবন্ত করতে স্ত্রীই নিতে পারেন উদ্যোগ। তবে স্বামীরও এক্ষেত্রে যথেষ্ট ভূমিকা রাখতে হবে। অফিস বা বাইরের কাজ সেরে ফিরে ঘরের কাজে দু’জনেই হতে পারেন সমান অংশীদার। এতে পরস্পরের সান্নিধ্যে বাড়বে সম্পর্কের গভীরতা।

বিশেষ উপলক্ষ না থাকলেও, ছুটির দিনে বেরিয়ে পড়তে পারেন দু’জনে। সপ্তাহান্তে না হলেও, মাসে একবার রাতের খাবারটা বাইরে সেরে আসতে পারেন। তাতে প্রতিদিনের একঘেয়েমি জীবন থেকে যেমন যুক্তি পাওয়া যেতে পারে? তেমনি সঙ্গীর সঙ্গে কিছুটা সময় আনন্দঘন পরিবেশে কাটানোর সুযোগও মিলবে। বিয়ের আগের প্রেমময় দিনগুলোতে ফিরে যাবার আফসোসে আর পুড়বে না জীবন। আর যাদের বিয়ের আগে প্রেম হয়নি, তাদেরও হতাশ হবার কিছু নেই। বিয়ের পরে এভাবেই শুরু করুন ভালবাসার নতুন অধ্যায়। ‘বিয়ের পরে প্রেম হয় না’ মিথ্য প্রমাণ করুন কথাটি।

সংসারের জন্য উদয়াস্ত খেটে যাওয়ার মানে জীবন নয়। কেননা, ঘরে বাইরে হাজারো কাজের মাঝে জীবনে প্রতিদিনই আসে সোনালি ভোর, আবীর লাগা সন্ধ্যা। জোছনাস্নাত রাত। আর এ মুহূর্তগুলো উপভোগ করাই তো ভালবাসায় বাঁচা, ভালবাসায় থাকা। আর ভালবাসায় বেঁচে থাকলেই তো জীবনের সব দিনগুলোই হয়ে উঠবে ভালবাসা দিবস। হয়ে উঠবে চিরবসন্তের মতো প্রাণবন্ত। আর উচ্ছ্বাসময়। আর তাই উদ্যমী হন এই বসন্তের ভালবাসার দিনে। সঙ্গীকে বলুন, ভালবাসি ভালবাসি।

ছবি : অর্নব

মডেল : সন্ধ্যা ও মিজু

পোশাক : অঞ্জনস

মেকআপ : পারসোনা

প্রকাশিত : ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৩/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: