কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বিশ্বকাপে অভিষেকেই দ্যুতি ছড়াবেন যাঁরা

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

তাইজুল ইসলাম ॥ বাংলাদেশের ক্রিকেটের তরুণ প্রতিভাবান তারকা তাইজুল ইসলাম। ওয়ানডেতে অভিষেকেই ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নেন তিনি। ইতিহাসের একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেক ম্যাচেই হ্যাটট্রিক করার রেকর্ড গড়েন তিনি। গত ডিসেম্বরে সফরকারী জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিরল এই কীর্তি গড়েন তিনি। দেশের ১১৬তম ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডে অভিষেক হয় তাঁর। জিম্বাবুয়ের ইনিংস শেষে তাইজুলের বোলিং ফিগার ছিল ০৭-০২-১১-৪। অর্থাৎ ৭ ওভার বল করে ২ মেডেনসহ মাত্র ১১ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট তুলে নেন তিনি। টেস্ট ক্রিকেটেও তাঁর পারফর্মেন্স ঈর্ষণীয়। এ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই ৩৯ রানে ৮ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড এখন তাঁর দখলে। তাঁর আগে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৭ উইকেট নিয়ে এ রেকর্ডটি দখলে রেখেছিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। মাত্র ১টি একদিনের ম্যাচ এবং ৫টি টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা থাকলেও এবারের বিশ্বকাপে চমক দেখানোর অপেক্ষায় রয়েছেন তাইজুল।

ডেভিড ওয়ার্নার ॥ অস্ট্রেলিয়ার হার্ডহিটার ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। বিশ্বকাপের আগে ভারতের বিপক্ষে দুর্দান্ত পারফর্মেন্স উপহার দিয়েছেন তিনি। তাই স্বাগতিকদের বিশ্বকাপ জেতাতে বড় ভূমিকা রাখতে পারেন ২৮ বছর বয়সী এ ক্রিকেটার। ভারতের বিপক্ষে ৪ টেস্টে ৫৩.৩৭ গড়ে ৪৩৭ রান তুলেছেন তিনি। আর গত ১২ মাসে ৯ টেস্টে ৬৭.১৬ গড়ে সাত সেঞ্চুরির সৌজন্যে ১২০৯ রান এসেছে তাঁর ব্যাট থেকে। আর গত বছর ১১টি একদিনের ম্যাচ খেলে ৩৬.৯০ গড়ে ৪০৬ রান তুলেছেন তিনি। যে কারণে ক্রিকেটবোদ্ধাদের ধারণা বাঁহাতি এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান নিজের অভিষেক বিশ্বকাপেই দ্যুতি ছড়াতে পারেন। ২০০৯ সালে ক্রিকেটে অভিষেক হওয়ার পর ডেভিড ওয়ার্নার ৩৬টি টেস্ট, ৫৩টি একদিনের ম্যাচ এবং ৫২টি টি২০ ম্যাচ খেলেছেন।

রোহিত শর্মা ॥ ২০০৭ সালে একদিনের ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে রোহিত শর্মার। কিন্তু গত বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ হয়নি তাঁর। তবে সাম্প্রতিক পারফর্মেন্সে রীতিমতো উড়ছেন ২৭ বছর বয়সী এই ভারতীয় ব্যাটসম্যান। যে কারণে এবারের বিশ্বকাপে কোহলি-ধোনিদের সেরা অস্ত্র হতে পারেন তিনি। গত বছরের নবেম্বরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একদিনের ম্যাচে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ২৬৪ রানের নজিরবিহীন রেকর্ড গড়ার পাশাপাশি এক ইনিংসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ চারের রেকর্ডও গড়েন রোহিত। তাঁর আগে ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির পথে ২৫টি চার মেরেছিলেন শচীন টেন্ডুলকর। এরপর ২১৯ রান করে টেন্ডুলকরকে পেছনে ফেলেছিলেন বিরেন্দর শেবাগ।

কোরি এ্যান্ডারসন ॥ অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে যৌথভাবে এবারের বিশ্বকাপের আয়োজক নিউজিল্যান্ড। এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের ট্রফিটা ছোঁয়া হয়নি তাঁদের। তবে সাম্প্রতিক পারফর্মেন্স এবার আশা দেখাচ্ছে কিউইদের। আর এক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখতে প্রস্তুত হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান কোরি এ্যান্ডারসন। গত বছর মাত্র ৩৬ বলে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ওয়ানডেতে দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েন এই অলরাউন্ডার। দীর্ঘ ১৮ বছর পর ‘বুম বুম’ খ্যাত পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদিকে টপকে যান ২৪ বছর বয়সী ক্রাইস্টচার্চ প্রতিভা। ২০১৪ নতুন বছরের প্রথম দিনেই ক্রিকেট বিশ্বে চমক সৃষ্টি করা এই ক্রিকেটারের সাম্প্রতিক পারফর্মেন্সও বেশ ভাল। সদ্যসমাপ্ত শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট ও একদিনের সিরিজ জিতে নেয় নিউজিল্যান্ড। আর এই টুর্নামেন্ট কোরি এ্যান্ডারসন গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। এ্যান্ডারসন নিউজিল্যান্ডের হয়ে ১০টি টেস্ট ও ২৬টি একদিনের ম্যাচ খেলেছেন। দেশের হয়ে তাঁর দুর্দান্ত পারফর্মেন্স এবার বিশ্বকাপেও ধরে রাখতে চান তিনি।

এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ ॥ ২০১১ বিশ্বকাপেই ডাক পেয়েছিলেন এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ। কিন্তু শেষ মুহূর্তে চোট-দুভার্গ্যে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়েন তিনি। তবে এবার শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক হিসেবেই অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে খেলবেন ম্যাথুজ। গত কয়েক বছর ধরেই ধারাবাহিক পারফর্মেন্স উপহার দিয়ে দলের ভার তুলে নেন তাঁর কাঁধে। আর বিশ্বকাপে দলকে নেতৃত্ব দেয়ার পাশাপাশি ব্যাট-বলেও ঝড় তুলতে চান ২৭ বছর বয়সী এই শ্রীলঙ্কান।

কুইন্টন ডি কক ॥ মাত্র ২২ বছর বয়স। ইতোমধ্যেই নজর কুড়িয়েছেন কুইন্টন ডি কক। বিশেষ করে হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান হিসেবে। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে পাঁচটি টেস্ট ও ৩৬টি একদিনের ম্যাচ খেলেছেন তিনি। বিশ্বকাপে সুযোগ পেলেই নিজের সেরাটা ঢেলে দিতে প্রস্তুত এই প্রোটিয়াস ব্যাটসম্যান। শুধু ব্যাটিংয়েই নন, উইকেটরক্ষক হিসেবেও দক্ষিণ আফ্রিকা দলে কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারেন কুইন্টন ডি কক।

মঈন আলী ॥ হার্ডহিটার উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে ইতোমধ্যেই নিজেকে মেলে ধরেছেন মঈন আলী। পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত এই ইংলিশ ক্রিকেটার ৭টি টেস্ট ও ১৬টি একদিনের ম্যাচ খেলেছেন। অপেক্ষায় এখন বিশ্বকাপের মতো বিশাল মঞ্চে নিজের সেরাটা ঢেলে দেয়ার। এছাড়াও ২০১৫ ক্রিকেট বিশ্বকাপে সুযোগ পেলেই নিজেদের সেরাটা ঢেলে দেয়ার অপেক্ষায় আছেন আরও অনেকেই। তাঁদের মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক, বাংলাদেশের তাসকিন, ভারতের ভুবনেশ্বর কুমার, ইংল্যান্ডের স্টিভেন ফিন, নিউজিল্যান্ডের টম লাথাম, দক্ষিণ আফ্রিকার কুইন্টন ডি কক, ভারনন ফিল্যান্ডার।

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১১/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: