আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নজর কাড়বেন যাঁরা

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • মোঃ নুরুজ্জামান

এবি ডি ভিলিয়ার্স ॥ ডি ভিলিয়ার্স ভাল ব্যাটস্যান। কিন্তু বিশ্বকাপের সুপার উইলোবাজের কাতারে অন্তত ছিলেন না। আচমকা বদলে দিয়েছেন সমীকরণ। সম্প্রতি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৩১ বলে সেঞ্চুরি ও ১৬ বলে হাফ সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে উভয় ক্ষেত্রে গড়েছেন দ্রততম রেকর্ড! কন্ডিশনের বিচারে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার পর এবার দক্ষিণ আফ্রিকাই হট ফেবারিট, যেখানে ব্যাট হাতে অগ্রপথিকের ভূমিকায় থাকবেন দশ বছরের ক্যারিয়ারে ইতোমধ্যে ৪০টি সেঞ্চুরি হাঁকানো (টেস্ট ২১, ওয়ানডে ১৯) ৩০ বছর বয়সী প্রিটোরিয়ান। উইকেটের পেছনেও দুরন্ত-দুর্বার প্রোটিয়া অধিনায়ক প্রতিপক্ষ বোলারদের খুন করতে প্রস্তুত!

ক্রিস গেইল ॥ ইনজুরি-ফর্মহীনতায় অনেকেই এবার গেইলকে হিসেবে রাখছেন না। ভুল। নিজের দিনে ৩৫ বছর বয়সী জ্যামাইকান কী করতে পারেন, সেটি উইন্ডিজের এই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরেও দেখেছে ক্রিকেটবিশ্ব। টেস্টে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর তিন ম্যাচের টি২০তে ২-১এ জয় পায় ক্যারিবীয়রা। দুটিতেই নায়ক গেইল। কে বলবে ইনজুরি কাটিয়ে ফিরেছেন তিনি? প্রথম ম্যাচে ৩১ বলে ৭৭, দ্বিতীয়টি ৪১ বলে ৯০! কেবল এই দুটি ম্যাচ দিয়ে বিচার করলে অবশ্য গেইলকে অপমান করা হবে। ব্যাট হাতে যে কোন মুহূর্তে, যে কোন প্রতিপক্ষকে একাই দুমড়ে-মুচড়ে দিতে সক্ষম বাঁহাতি উইলোবাজ। পনেরো বছরের ক্যারিয়ারে ক্রিকেটবিশ্ব তা অনেকবার দেখেছে।

শহীদ আফ্রিদি ॥ পাকিস্তান তো বটেই, বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম গ্ল্যামার তারকা। সেই ১৯৯৬ থেকে গত ১৮ বছর ধরে জনপ্রিয়তায় এতটুকু ধস নামেনি। মাঝে কত চড়াই-উৎরাই। সবচেয়ে বড় এখনও ব্যাট হাতে মাঠে নামলে গ্যালারিতে আফ্রিদি নামে ওঠে হর্ষধ্বনি। ৩৪ বছর বয়সেও দলের প্রাণভোমরা তিনি। সাঈদ আজমলের অনুপস্থিতিতে স্পিন আক্রমণের ভরসা ব্যাট হাতে থাকবেন বিপদের ত্রাতা হিসেবে। আমিরাতে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি সিরিজেই সেটি প্রমাণিত। বিশ্বকাপ খেলে খুলে রাখবেন ওয়ানডের রঙিন পোশাক। সে হিসেবে জীবনের শেষ বড় আসরে বড় কিছু পেতে মরিয়া অভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডার।

মিচেল জসন ॥ সতীর্থরা ডাকেন ‘মিসাইল’ জনসন। এমনিতে নয়, বল হাতে মিসাইলের মতোই ভয়ঙ্কর তার ডেলিভারি। কুপোকাত বিশ্বের রাঘব বোয়াল উইলোবাজ। গত কয়েক বছর বিশ্ব ক্রিকেটে ত্রাস সব বোলারের কাতারে জনসনের নাম থাকবে সবার ওপরে। সর্বশেষ আইসিসির বর্ষসেরার স্বীকৃতিই প্রমাণ করে আবেগ নয়, সাফল্যেও দুর্বার এই অসি পেসার। ঘরের মাটিতে, পরিচিত দর্শক-কন্ডিশনের সামনে এবারের বিশ্বকাপে প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানের জন্য সত্যিকারের যমদূত হয়ে হাজির হতে পারেন ৩৩ বছর বয়সী গতি তারকা। আসর শেষে হয়ে উঠতে পারেন তারকাদের তারকা, ট্রফিজয়ের নায়ক!

এছাড়া আসরে বিশেষ দৃষ্টি থাকবে ভারতীয় সেনসেশন বিরাট কোহলি, ওয়ানডেতে একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবে দু-দুটি ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো রোহিত শর্মা, দক্ষিণ আফ্রিকান হিরো হাসিম আমলা, ডেল স্টেইন, স্বাগতিক স্টিভেন স্মিথ, মিচেল স্টার্ক লঙ্কান মাহেলা জয়াবর্ধনে, কুমার সাঙ্গাকারা, কিউই কেন উইলিয়ামসন, ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম।

অথচ নেই তারা

যুবরাজ সিং ॥ বিভিন্ন কারণে অনেক পরিচিত পারফর্মারই এবার নেই। যাঁর মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত নাম যুবরাজ সিং। তুখোড় এই অলরাউন্ডারকে তিরিশি সদস্যের প্রাথমিক দলেও জায়গা দেননি নির্বাচকরা! এ নিয়ে দেশটিতে তুমুল বিতর্কের তৈরি হয়। সেটাই স্বাভাবিক। গতবার দীর্ঘ ২৮ বছর পর ভারত শিরোপা পুনরুদ্ধার করে, সেখানে অগ্রদূতের ভূমিকায় ছিলেন যুবরাজ। ১ সেঞ্চুরি ৪ হাফ সেঞ্চুরিতে ৯১ গড়ে ৩৬২ রান, সঙ্গে ৫.০২ ইকোনমি রেটে তৃতীয় সর্বাধিক ১৫ উইকেট। টুর্নামেন্টসেরার পুরস্কার উৎসর্গ করেন গ্রেট শচীন টেন্ডুলকরকে। দু-চার ম্যাচে ফর্মহীনতার অজুহাতে যুবরাজের বাদ পড়াটা অনেকেই মেনে নিতে পারছেন না।

সাঈদ আজমল ॥ হালে ক্রিকেটের সফল বোলারের নাম সাঈদ আজমল। বিশ্বকাপে পাকিস্তানের তুরুপের তাস হয়ে থাকতে পারতেন। অবৈধ বোলিং এ্যাকশনের দায়ে নিষিদ্ধ হয়ে শেষ পর্যন্ত শ্রেষ্ঠত্বের মঞ্চে নেই। দুরন্ত এক ঘূর্ণিতারকার জাদু দর্শন থেকে বঞ্চিত ভক্তরা। এতকিছুর পরও চূড়ান্ত দলে রাখা হয়েছিল। নির্বাচকরা চেয়েছিলেন এরই মধ্যে এ্যাকশন শুধরে উঠতে পারবেন। কিন্তু হয়নি। শেষ মুহূর্তে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেন। সাবেক গ্রেট সাকলাইন মুস্তাকের তত্ত্বাবধানে চলছে সংশোধন প্রক্রিয়া। ঠিক একই কারণে সরে দাঁড়িয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান তারকা স্পিনার সুনিল নারাইনও।

এ্যালিস্টার কুক ॥ এ্যালিস্টার কুকের না থাকাটা অন্যতম চমক! কেভিন পিটারসেনের সঙ্গে বোর্ডের দ্বন্দ্বে ইংল্যান্ড যখন বেসামাল তখন এই কুকের ওপরই ভরসা রেখেছিলেন নির্বাচকরা। ভেতরে-বাইরে ঢেলে সাজানো হলেও নেতৃত্বে বহাল তবিয়তে ছিলেন। কিন্তু শ্রীলঙ্কায় ভরাডুবির পর আচমকাই নেতৃত্ব তো বটেই, দল থেকেই ছেঁটে ফেলা হয়! অথচ আধুনিক ইংল্যান্ড ক্রিকেটের অন্যতম সফল ব্যাটসম্যান কুক। ইয়ন মরগানের অধীনে কার্লটন মিড ত্রিদেশীয় সিরিজে ভাল কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছে ইংলিশরা। কিন্তু বিশ্বকাপে ভরাডুবি হলে ইংল্যান্ড ক্রিকেটে কুকের বাদ পড়া নিয়ে আরেক দফা ঝড় যে উঠবে সেটি নিশ্চিত!

শচীন টেন্ডুলকর ॥ বয়স চল্লিশ পেরিয়ে। ২০১৩-এর নবেম্বরে টেস্টের মধ্য দিয়ে সকল ধরনের ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন। গতবার বিশ্বকাপ জয়ে ব্যাট হাতে রেখেছেন অবদান। ক্যারিয়ারে অপূর্ণতা বলতে কিছু নেই। তবু এবার আরেকটি বিশ্বকাপে ভক্তদের খুব করে মনে পড়বে শচীন টেন্ডুলকরকে। আধুনিক ক্রিকেটের সেরা ব্যাটসম্যান, জীবন্ত কিংবদন্তি ব্যাট হাতে গড়েছেন রেকর্ডের পর রেকর্ড, বইয়ে দিয়েছেন রানের বন্যা। পৃথীবিজুড়ে এক শচীনের যত ভক্ত ততটা হয়ত কোন পূর্ণাঙ্গ দেশেরও নেই! না থেকেও এবার আছেন এই মহীরুহ। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপের ব্র্যান্ড এ্যাম্বাসেডর শচীন রমেশ টেন্ডুলকর। বিশ্বকাপ আরও মিস করবে গৌতম গাম্ভীর, কেভিন পিটারসেন, ডোয়াইন ব্রাভো, মাইক হাসি, আবদুর রাজ্জাকের মতো তারকা ক্রিকেটারকে।

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১১/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: