কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

চলমান সহিংসতা বন্ধে সকল পক্ষকে ভূমিকা নিতে হবে

প্রকাশিত : ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৫, ১১:১২ পি. এম.
  • মার্কিন রাষ্ট্রদূত ও কানাডীয় হাইকমিশনারের আহ্বান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশে নবনিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেন্স ব্লুম বার্নিকাট সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, চলমান সহিংসতা গভীর বেদনাদায়ক। এই সহিংসতা বন্ধে সকল পক্ষের ভূমিকা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এদিকে বাংলাদেশে নিযুক্ত কানাডার হাইকমিশনার বিন পিরে লারামেও সহিংসতা বন্ধের জন্য আহ্বান জানান। মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তারা এই আহ্বান জানান। এছাড়া বাংলাদেশী শ্রমিকদের সুরক্ষা ও নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করার আশ্বাস দিয়েছে সৌদি আরব।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশে নবনিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট ও কানাডার হাইকমিশনার বিন পিরে লারামে পররাষ্ট্র মন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে সাক্ষাত করেন। সাক্ষাত শেষে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, বাংলাদেশের চলমান সহিংস পরিস্থিতি সত্যিই অত্যন্ত বেদনাদায়ক। এই সহিংসতা বন্ধে সকলপক্ষকে ভূমিকা নিতে হবে। এছাড়া গণতান্ত্রিক মত প্রকাশের সুযোগ দিতে সহিংসতা বন্ধ হওয়া জরুরী বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক দেশ। আর গণতন্ত্রে মতবিরোধ নিরসনের সুযোগও প্রয়োজন। তাই সহিংসতা বন্ধে সকল পক্ষকে ভূমিকা রাখার ওয়াশিংটনের আহ্বানকে আমি পুনর্ব্যক্ত করছি। ঢাকায় আসার পরপরই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাত পেয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি। বৈঠকে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ক কিভাবে আরও গভীর এবং বিস্তৃত করা যায়, সেসব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানান বার্নিকাট। তিনি বলেন, দু’পক্ষই দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও বৃদ্ধি করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ঢাকায় আসার পর পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে এটিই তার প্রথম সাক্ষাত

কানাডার সহিংসতা বন্ধের আহ্বান ॥ বাংলাদেশে চলমান সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত কানাডার হাইকমিশনার বিন পিরে লারামে। এছাড়া মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হতে কানাডা বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি এসব কথা বলেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করেন কানাডার হাইকমিশনার বিন পিরে লারামে। ঢাকায় নতুন দায়িত্ব নেয়ার পর কানাডার হাইকমিশনার বিন পিরে লারামের এটাই ছিল পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে প্রথম সাক্ষাত।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়ে জানতে চাইলে কানাডার হাইকমিশনার বিন পিরে লারামে সাংবাদিকদের বলেন, খুবই ভাল এবং গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে। বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক অচলাবস্থা এবং সহিংসতা সম্পর্কে জানতে চাইলে কানাডার হাইকমিশনার বিন পিরে লারামে বলেন, চলমান সহিংসতা বন্ধ হওয়া উচিত।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে সাক্ষাতে কানাডার হাই কমিশনার বাংলাদেশের মিডিয়াকে অত্যন্ত তৎপর বলে অভিহিত করে বলেন, বাংলাদেশে বাক-স্বাধীনতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। তিনি বাংলাদেশ ও কানাডার মধ্যে নিবিড় অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্কের প্রসঙ্গ এনে বলেন, দু’দেশের মধ্যে যে অংশীদারিত্ব গড়ে উঠেছে তাতে দু’দেশই সমানভাবে লাভবান হচ্ছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাধীনতার অব্যবহিত পরপরই কানাডার স্বীকৃতি প্রদানের কথা উল্লেখ করলে হাই কমিশনার বঙ্গবন্ধু জাদুঘর ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে তাঁর সাম্প্রতিক সফরের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন।

সৌদি প্রতিনিধি দলের সাক্ষাত ॥ বাংলাদেশী শ্রমিকদের সুরক্ষা ও নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করবে বলে আশ্বাস দিয়েছে সৌদি আরব। মঙ্গলবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠককালে সৌদি শ্রম ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপমন্ত্রী ড. আহমেদ আল ফাহাইদ এ আশ্বাস দেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ৫ সদস্যের সৌদি আরবের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর আধ ঘণ্টাব্যাপী এ বৈঠক হয়। এই প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে দেন সৌদি আরবের উপমন্ত্রী ড. আহমেদ আল ফাহাইদ। বৈঠক শেষে সৌদি উপমন্ত্রী গণমাধ্যমের সামনে কোনো কথা বলেননি। তবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, সৌদি উপমন্ত্রী অত্যন্ত সহজ উপায়ে বাংলাদেশী শ্রমিক নিয়োগের চেষ্টা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি বলেন সৌদি আরবে কর্মরত বাংলাদেশী শ্রমিকদের সুরক্ষা ও নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিতকরণে তার সরকার সজাগ থাকবে। এছাড়া বাংলাদেশী শ্রমিকরা দেশের মর্যাদা ও সুনাম রক্ষা করে কাজ করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। সৌদিতে বাংলাদেশী শ্রমিকদের অবস্থা দেখার জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে সফরের আমন্ত্রণও জানান আল ফাহাইদ।

এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশে সাধারণ শ্রমিক ছাড়াও বিপুলসংখ্যক চিকিৎসক, প্রকৌশলী, শিক্ষক, তথ্য প্রযুক্তিবিদ, ফার্মাসিস্ট, চার্টার্ড এ্যাকাউটেন্টসহ অসংখ্য দক্ষ ও বিশেষ শ্রেণীর জনবল রয়েছে। তারা শুধু দেশে নয় বরং ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, কোরিয়া, জাপানসহ বিভিন্ন দেশে অত্যন্ত দক্ষতা ও সুনামের সঙ্গে কাজ করছেন। তিনি বলেন, এসব দক্ষ শ্রমশক্তি সৌদি আরবের অর্থনীতিকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে।

প্রকাশিত : ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৫, ১১:১২ পি. এম.

১১/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: