কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

শাহজালাল কমলাপুরে সোনা, সাভারে ভায়াগ্রা- সঙ্গে শাড়ি

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • চোরাচালান আটক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মদ-গাঁজা, সিগারেট, সোনা, ভায়াগ্রা, শাড়ি, গয়না। বাদ যায়নি কিছু। চোরারাচালানীরা যেন ষোলকলা পূর্ণ করতেই তাল মিলিয়ে এ সব আনছে। শাহজালাল বিমানবন্দর ও কমলাপুর রেলস্টেশানে যখন ধরা পড়ে সোনা, সাভারে তখন পাওয়া যায় ভায়াগ্রার চালান। সঙ্গে শাড়ির বস্তা। এছাড়া শাহজালালে ধরা পড়ে মদ গাঁজা, সিগারেট। র‌্যাব, শুল্ক গোয়েন্দা ও আর্মড পুলিশ এ সব আটক করে।

মঙ্গলবার রাতে হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে ধরা পড়ে সোয়া এক কেজি সোনাসহ এক ব্যক্তি। তার নাম ইয়ার খান। এপিবিএন এএসপি তানজীনা আক্তার ইভা জানান, রাতে ক্যানপী এলাকায় ইয়ার খানের হাতে থাকা একটা মোবাইল দেখে সন্দেহ হয়। এ সময় আমর্ড পুলিশ সদস্যরা ওই ব্যক্তির হাতে থাকা মোবাইল নিয়ে দেখতে পায় তাতে কৌশলে লুকানো রয়েছে ১২টি সোনার বার। তাৎক্ষণিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি স্বীকার করেন- এ সোনা সিঙ্গাপুর থেকে তার এক আত্মীয় পাঠিয়েছে। সেটা নিতেই তিনি কালিয়াকৈর থেকে আসেন। রাতেই তাকে বিমানবন্দর থানায় পুলিশে দেয়া হয়। তানজীনা আরও জানান, বুধবার দুপুরে বিমানবন্দরে অভিনব কায়দায় গাঁজা পাচার করার সময় ধরা পড়ে এক ব্যক্তি। একটি টিফিন ক্যারিয়ারের বাটিতে মাংস নিয়ে যাচ্ছিল সে। তার হাতে থাকা ব্যাগ দেখে সন্দেহ হলে তাকে থামিয়ে চেক করা হয়। তখন বাটিতে রাখা মাংসের নিচে দেখা যায় গাঁজা লুকানো। এ সময় তাকে আটক করে থানায় দেয়া হয়।

এছাড়া শুল্ক গোয়েন্দার সদস্যরা ২৭৩ কার্টুন সিগারেটসহ আটক করে আশরাফুজ্জামান নামের এক যাত্রীকে। তিনি এ্যামিরেটস ফ্লাইটে আসার পর গ্রীন চ্যানেলে তাকে চেক করার সময় এগুলো ধরা পড়ে। এদিকে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে আড়াই কেজি সোনাসহ দুই জনকে আটক করেছে রেলওয়ে পুলিশ। এরা হলেন- রাখাল ও বিজয়। চট্টগ্রাম থেকে আসা তূর্ণা-নিশিথায় করে তারা মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা পৌঁছান।

রেল পুলিশের ওসি আব্দুল মজিদ বলেন, তাদের দু’জনের চলাফেরা সন্দেহজনক মনে হলে তল্লাশি করা হয়। তাদের কোমরের বেল্টের মধ্যে ২০টি সোনার বার লুকানো ছিল। এ সব সোনার বাজারমূল্য প্রায় সোয়া কোটি টাকা বলে জানান তিনি। এর আগে সোমবার মধ্য রাতে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সোয়া কেজি ওজনের ১২টি সোনার বারসহ একজনকে আটক করা হয়। রাজধানীর কলাবাগান থানার গ্রিন রোড এলাকা থেকে ৪২৮ বোতল ফেন্সিডিলসহ রিপন বেপারী নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। এ সময় একটি প্রাইভেটকার উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে তাকে গ্রেফতার করা হয়। র‌্যাব-২’র অপারেশন অফিসার মারুফ হাসান জানান- গ্রিন রোডের ৪ নম্বর বাসার সামনে অভিযান চালিয়ে মাদকসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এদিকে চোরাচালানের আরও একটি বড় চালান ধরা পড়ে সাভারে। বাইশমাইল এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রায় তিন কোটি টাকার অবৈধ ভায়াগ্রা ওষুধ ও চোরাই শাড়িসহ দুই জনকে আটক করেছে র‌্যাব। অভিযানে আটককৃত দুই ব্যক্তি হলেন- তারেক হোসেন মিন্টু (৩২) ও হাবিবুর রহমান (৩৫)। সোমবার রাতে বাইশমাইল এলাকার মহাসড়কে একটি কাভার্ডভ্যানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। র‌্যাব-৪ এর ক্রাইম প্রিভেনশন কোম্পানির (সিপিসি-২) কোম্পানি কমান্ডার মেজর মাসুদুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একটি কাভার্ডভ্যানে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় ওই কাভার্ডভ্যানের ভেতর থেকে প্রায় তিন কোটি টাকা মূল্যের ওষুধ ও পোশাকসহ তারেক হোসেন মিন্টু ও হাবিবুর রহমান নামে দু’জনকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের বাড়ি যশোর জেলায়। এ ঘটনার মূল হোতাকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যহত রয়েছে।

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১১/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অন্য খবর



ব্রেকিং নিউজ: