মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মুন্সীগঞ্জে ফ্রি বই ভর্তি ট্রাক পুড়িয়ে দিল নাশকতাকারীরা

প্রকাশিত : ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • ঢাবিতে বোমাবাজ দুই ছাত্রদল কর্মীকে গণধোলাই

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির ডাকা দেশব্যাপী অবরোধ-হরতালে নাশকতার ঘটনায় অতিষ্ঠ জনগণ। তাই প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও গণধোলাইয়ের শিকার হচ্ছে নাশকতাকারীরা। সোমবারও যাত্রীবাহী গাড়িতে বোমা মেরে পালানোর সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছে দুই ছাত্রদল কর্মী। আর সোমবার ভোরে যাত্রাবাড়িতে মালবোঝাই ট্রাকে পেট্রোলবোমা হামলা করে পালানোর সময় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে এক পেশাদার বোমাবাজ। মুন্সীগঞ্জে পাঠ্যবই বোঝাই ট্রাকে আগুন দিয়েছে অবরোধকারীরা। এদিকে সারাদেশে অবরোধ-হরতালের প্রভাব কমে আসছে। ঢাকায় ন্যূনতম কোন প্রভাব দেখা যায়নি। দেশের বিভিন্ন জেলার উদ্দেশে লঞ্চ, ট্রেন ছাড়াও ঢাকার মহাখালী, সায়েদাবাদ ও গাবতলী থেকে দূরপাল্লার বাস ছেড়ে গেছে। সারাদেশে চলমান যৌথ বাহিনীর সাঁড়াশি অভিযানে গ্রেফতার হয়েছে অবরোধ-হরতালে নাশকতার সঙ্গে জড়িত বোমাবাজ ও তাদের আশ্রয়-প্রশয়-নির্দেশ ও অর্থদাতাসহ দেড়শতাধিক।

গত ৬ জানুয়ারি থেকে সারাদেশে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধ-হরতালে চোরাগোপ্তা পেট্রোলবোমা আর ককটেল হামলায় নিষ্পাপ অবুঝ শিশু, নারী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, সাধারণ মানুষসহ প্রায় শ’ খানেক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে দগ্ধ প্রায় ৭০ জন চিকিৎসাধীন। দেশব্যাপী অবরোধ-হরতাল ডেকে মাঠে নেই নেতারা। তারা চোরাগোপ্তা হামলা করে মানুষ হত্যা করছে। তাদের নাশকতায় রীতিমতো অতিষ্ঠ জনগণ। তাই এবার জনতা নাশকতাকারীদের ধরে গণধোলাই দিচ্ছে।

অবরোধ-হরতালে ঢাকার চিত্র ॥ সোমবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে অবরোধ-হরতাল চলাকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় বোমা মেরেই দৌড় দেয় দুই বোমাবাজ। এ সময় জনতা তাদের পিছু নেয়। জনতা ধাওয়া করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের সামনে তাদের ধরে ফেলে। এরপর বেধড়ক গণপিটুনি দেয়। পিটুনি দিয়ে বোমাবাজদের র‌্যাবের হাতে তুলে দেয় জনতা। আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার জানান, আটককৃতরা হলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র শহীদুল্লাহ হলের শিক্ষার্থী সাদাত নাসির শুভ ওরফে শফিউল শুভ (২৪) এবং স্যার এ এফ রহমান হলের শিক্ষার্থী আরবি সাহিত্য বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র হাসানুর রহমান ওরফে হারুনুর রশীদ (২৪)। র‌্যাব বাদী হয়ে এদের বিরুদ্ধে শাহবাগ মডেল থানায় মামলা করেছে।

র‌্যাব-১০ জানায়, গাড়িতে বোমা মেরে পালানোর সময় জনতা তাদের ধরে গণধোলাই দিয়ে তাদের কাছে সোর্পদ করে। তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা আশঙ্কামুক্ত। এদিকে ধর্মঘট ও হরতালে বেশ কয়েকটি বিভাগে ক্লাস পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আনা নেয়ার বাস চলাচল ছিল স্বাভাবিক। তবে শিক্ষার্থী উপস্থিতি ছিল অনেকটাই কম।

এদিকে সোমবার ভোর চারটার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ির মাতুয়াইল কাঠেরপুল এলাকায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে রাসেল সরদার (২৫) নামে এক বোমাবাজের মৃত্যু হয়েছে। ডিবি পুলিশ জানায়, ভোরে রাসেল একটি মালবোঝাই ট্রাকে পেট্রোলবোমা মারে। বিষয়টি বুঝতে পেরে ট্রাকচালক দ্রুত ট্রাক চালিয়ে সরে যায়। বোমাটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। বোমাবাজকে ধরতে ডিবির সদস্যরা পিছু নেয়। এ সময় বোমাবাজ ও তার সহযোগীরা ডিবি সদস্যদের লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালাতে থাকে। ডিবিও গুলি চালায়। পরে ওই জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ওই বোমাবাজকে উদ্ধার করা হয়। আহত বোমাবাজকে দ্রুত ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে ভোর পাঁচটার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রাসেল সরদারের স্ত্রী শেফালি আক্তার সোমবার দুপুর দুটোর দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে লাশ শনাক্ত করেন। রাসেল বরিশালের আগৈলঝাড়া থানাধীন বাগদা গ্রামের আব্দুর রব সরদারের পুত্র ছিলেন।

নিহতের স্ত্রীর দাবি, তারা নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানাধীন পাগলা ভাবি বাজার এলাকায় থাকেন। রাসেল সরদার কেরানীগঞ্জ নূর মার্কেটে বৈশাখী মোবাইল সেন্টার নামে তার বড় ভাই আকাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কাজ করত। গত বৃহস্পতিবার বেলা এগারোটার দিকে তার স্বামী দোকানে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হয়। যদিও নিখোঁজের বিষয়ে তিনি কোন থানায় জিডি বা মামলা করেননি। তার স্বামী কোন রাজনীতি করতো না। তবে কারও নির্দেশে বা অন্যকোন কারণে তার স্বামী বিপদগামী ছিল কিনা তা তার জানা নেই।

তিনি আরও বলেন, ৪Ñ৫ মাস আগে একটি হত্যা মামলায় তাকে আটক করেছিল দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ। পরে সে নির্দোষ প্রমাণিত হয়ে মুক্তি পেয়েছিল।

এদিকে সোমবার সকাল সাতটার দিকে রাজধানীর কালশী প্রবেশমুখ থেকে অজ্ঞাত (৩৩) এক যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে ক্যান্টনমেন্ট থানা পুলিশ। যুবকের ডান কানের ওপরে গুলির চিহ্ন রয়েছে। লাশটি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে রাখা হয়েছে। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহত যুবকের পরিচয় জানা যায়নি।

মুন্সীগঞ্জ ॥ সোমবার ভোর পাঁচটার দিকে জেলার ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের গজারিয়া উপজেলার জামালদি বাসস্ট্যান্ডে প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ডের ফ্রি বইভর্তি ট্রাকে পেট্রোলবোমা হামলা করেছে অবরোধকারীরা। এতে চালক হারুন অর রশিদ (৪০) নামার সময় আহত হন। তাকে গজারিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে ৩টি তাজা পেট্রোলবোমা। ঘটনার সঙ্গে জড়িত কেউ গ্রেফতার হয়নি।

পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার জানান, বইগুলো লক্ষ্মীপুরের রায়পুর, রামগতি, কমলনগরে যাচ্ছিল। বই বোঝাই ট্রাকটি জামালদি বাসস্ট্যান্ডের কাছে হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় গেলে পরপর দুটো পেট্রোলবোমা মারা হয়। এতে ট্রাকটিতে আগুন ধরে যায়। পুলিশ সেখানে হাজির হলে বোমাবাজরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা আগুন নিভিয়ে ফেলে। আগুনে ট্রাকটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বইবহনকারী শুকতারা পরিবহন ট্রান্সপোর্টের ম্যানেজার ফরিদ হোসেন জানান, সোমবার ভোর চারটার দিকে ট্রাকটি ঢাকার বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের প্রেস থেকে প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ডের ৩৭ হাজার ৮শ’ ৮ পিস ফ্রি বই নিয়ে যাচ্ছিল।

ট্রাকচালক হারুন অর রশিদ জানান, বোমাবাজদের ছোড়া কাঁচের বোতলে তৈরি পেট্রোলবোমাটি ট্রাকের ভেতরে ঢুকেই ফেটে গেলে আগুন ধরে যায়। আগুনে বই ও ট্রাকের প্রায় ১০ শতাংশ পুড়ে যায়। পানি দিয়ে আগুন নেভানোর কারণে ভিজে সব বই নষ্ট হয়ে গেছে।

এদিকে সোমবার ভোর চারটার দিকে জেলার লৌহজং উপজেলার পুরনো ফেরিঘাটে পার্কিং করা গোধূলী পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস পুড়িয়ে দিয়েছে অবরোধকারীরা। আগুনে বাসটি পুরোপুরি পুড়ে গেলেও যাত্রী না থাকায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

ময়মনসিংহ ॥ মানুষ হত্যার পর এবার হরতাল সমর্থকদের পেট্রোলবোমা কেড়ে নিল ১৪ হাজার মুরগির বাচ্চার প্রাণ। সোমবার ভোর সাড়ে চারটার দিকে ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল সড়কের মুক্তাগাছা উপজেলার রামচন্দ্রপুর এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। কাভার্ডভ্যানে করে মুরগির বাচ্চাগুলো গাজীপুর থেকে ময়মনসিংহ হয়ে টাঙ্গাইলের মধুপুর নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। কাভার্ডভ্যান চালক আব্দুর রহমান জানায়, লাঠিসোঁটা হাতে ৭/৮ জন হরতাল সমর্থক গাছেরগুঁড়ি ফেলে রাস্তা অবরোধ করে। এরপর কাভার্ডভ্যানটিতে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে নাশকতাকারীরা মোটরসাইকেলে করে পালিয়ে যায়।

হরতাল-অবরোধের নামে নাশকতার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে সারাদেশে যৌথ বাহিনীর চলমান সাঁড়াশি অভিযানে গাইবান্ধা থেকে গত রবিবার ঢাকা- কলকাতা যাতায়াতকারী মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনে বোমা হামলাকারী মহাসীন আলী ইথেন ও রবিউল ইসলামসহ ৬৯ জন, কক্সবাজার থেকে এক জামায়াত নেতা ও এক শিবির ক্যাডারসহ ৩ জন, গাজীপুর থেকে ১৪ জন, চট্টগ্রাম থেকে ১৩ জন, জেলাটির সীতাকু- থেকে জামায়াতের ৫ অর্থদাতা, কক্সবাজার থেকে ১৮ জন, পঞ্চগড় থেকে এক জামায়াত নেতাসহ ২ জন ও জয়পুরহাট থেকে ৪ জনসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে নাশকতাকারী, তাদের মদদদাতা ও অর্থদাতাসহ দেড়শতাধিক গ্রেফতার হয়েছে।

প্রকাশিত : ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১০/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: