মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ফিরে দেখা ভাষা আন্দোলন

প্রকাশিত : ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • এমআর মাহবুব

১৫০ মোগলটুলী

বিভাগ পূর্বকালে ঢাকার ১৫০ মোগলটুলীতে স্থাপিত হয়েছিল ‘ওয়ার্কার্স ক্যাম্প’ ও ‘মুসলিম লীগ পার্টি হাউস’। ১৫০নং মোগলটুলী ছিল সে সময়ের প্রগতিশীল ছাত্র-যুবক ও রাজনৈতিক কর্মীদের মিলনকেন্দ্র। রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন ও স্বাধিকার আন্দোলনে এই বাড়ির ভূমিকা ছিল খুব গুরুত্বপূর্ণ। ১৫০ মোগলটুলী একটি সুশৃঙ্খল কর্মী বাহিনী গড়ে তোলে এবং তাঁরা প্রায় সকলে ভাষা আন্দোলনে সরাসরি অংশগ্রহণ করেন। ঢাকায় গণতান্ত্রিক কর্মী সম্মেলন, গণতান্ত্রিক যুবলীগ ও আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠায় ১৫০ মোগলটুলীর নেতা কর্মীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। ভাষা আন্দোলনের সূচনাপর্ব থেকে ১৫০ মোগলটুলীর কর্মীরা এ আন্দোলনে সম্পৃক্ত হন। ভাষা আন্দোলনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ সাংগঠনিক কার্যক্রমও এখান থেকে পরিচালিত হয়। ‘সাতচল্লিশে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরেও ১৫০ মোগলটুলী বিরোধী রাজনীতির সূতিকাগার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন কলকাতা থেকে শেখ মুজিবুর রহমান, জহিরুদ্দিন, নঈমুদ্দিনের মতো নেতারা, প্রথমে ১৫০ মোগলটুলীতেই জমায়েত হন।’ ঢাকা শহরের আদি অধিবাসী আওয়ামী মুসলিম লীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা, ভাষাসৈনিক মরহুম শওকত আলী ছিলেন ১৫০ মোগলটুলীর মূল তত্ত্বাবধায়ক। বাড়িভাড়া থেকে শুরু করে সর্বক্ষণিক বসবাসকারী পার্টি কর্মীদের খাওয়া-দাওয়া ইত্যাদি সব ব্যবস্থা তিনি করতেন।

১৫০ মোগলটুলীতে বিভিন্ন সময়ে আরও যাঁরা এসেছেন এবং নেতৃত্বে ছিলেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম আবুল হাশিম, আতাউর রহমান খান, কামরুদ্দিন আহমদ, অলি আহাদ, শামসুল হক, শামসুদ্দিন আহমদ, মোহাম্মদ তোয়াহা, তাজউদ্দিন আহমদ, বাহাউদ্দিন চৌধুরী, আবদুল করিম প্রমুখ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ভাষা আন্দোলনের অন্যতম স্মারক ১৫০ মোগলটুলীর মূল ভবন আজ আর নেই। লেখক : গবেষক

সৎসধযনঁন@ুধযড়ড়.পড়স

প্রকাশিত : ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০৯/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: