মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো

প্রকাশিত : ৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মাতৃভাষা বাংলাকে নিয়ে কবি সিকান্দার আবু জাফর তার ‘একুশে ফেব্রুয়ারি’ কবিতার শেষ লাইনগুলোতে লিখেছেন, ‘অতীতের কোন নির্বাক একদার/দেশের লোকের গর্ব-গৌরবের/অশ্রু এবং রক্ত দানের/ক্ষ’য়ে ঝ’রে-যাওয়া প্রেরণা মূল্য/নিখিল জীর্ণ নিষ্প্রভ ইতিহাস/একুশে ফেব্রুয়ারি।’ কবি সাহিত্যিকরা মায়ের ভাষায় সেই সময় থেকেই অজস্র সাহিত্য রচনা করে আসছেন।

এমএ বার্ণিক রচিত ‘রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের ইতিহাস’- ঘটনাপ্রবাহ ও পরিপ্রেক্ষিত বিশ্লেষণ’ গ্রন্থে ’৫২-এর ভাষা আন্দোলনে পাকিস্তানী সরকার গণমাধ্যমকেও নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করেছে তার একটি চিত্র ফুটে উঠেছে। রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের পক্ষে ১৩ ফেব্রুয়ারি জোরালো বক্তব্য রাখার কারণে ‘ক্ষছঙ্গ’ পত্রিকাটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। পত্রিকাটি ১৯৫২ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী নাজিমুদ্দীন সম্পর্কে এক সম্পাদকীয় প্রকাশ করেছিল। ওই সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছিল- ‘ইসলামের তৃতীয় খলিফা অত্যন্ত ধার্মিক ও সৎলোক ছিলেন। কিন্তু নির্লজ্জ আত্মীয়তোষণের অপরাধে অপরাধী ছিলেন। তার আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুবান্ধব যাদের দাবি আদৌ বিবেচনার যোগ্য ছিল না। তিনি তাদেরই নানারূপ ক্ষমতার অধিকারী করেছিলেন। খাজা নাজিমুদ্দীন ধার্মিক মুসলমান এ কথা কেউই অস্বীকার করবেন না, কিন্তু তিনি যেন নিজেকে দ্বিতীয় ওসমান-বিন-আফফান প্রমাণিত না করেন আমরা এ আশা এবং এ প্রার্থনাই করি।’ এ সম্পাদকীয় প্রকাশের পর পত্রিকার সম্পাদক আব্দুস সালাম ও প্রকাশক হামিদুল চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়।

ভারতীয় উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসিত অঞ্চলগুলো ১৯৪৭ এবং ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতা লাভ করে চারটি সার্বভৌম রাষ্ট্রে পরিণত হয়। ভারত, বার্মা (বর্তমান মিয়ানমার), সিংহল (বর্তমান শ্রীলঙ্কা) এবং পাকিস্তান (যার মধ্যে পূর্ব পাকিস্তানও অন্তর্ভুক্ত ছিল, যা অধুনা বাংলাদেশ নামে পরিচিত)। ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের পর পূর্ব পাকিস্তানের (পূর্ববাংলা হিসেবেও পরিচিত) বাংলাভাষী ৪ কোটি ৪০ লাখ মানুষ ৬ কোটি ৯০ লাখ জনসংখ্যাবিশিষ্ট নবগঠিত পাকিস্তানের নাগরিকে পরিণত হয়। কিন্তু পাকিস্তান সরকার, প্রশাসন এবং সামরিক বাহিনীতে পশ্চিম পাকিস্তানীদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছিল। একই সালে করাচীতে অনুষ্ঠিত জাতীয় শিক্ষা সম্মেলনের একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণাপত্রে উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসেবে ব্যবহারের সুপারিশসহ প্রচারমাধ্যম ও বিদ্যালয়ে কেবলমাত্র উর্দু ব্যবহারের প্রস্তাব করা হয়। তাৎক্ষণিকভাবে পূর্ববাংলায় এ প্রস্তাবের বিরোধিতা ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।

পূর্ববাংলায় রাষ্ট্রভাষা বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা এবং পূর্ব পাকিস্তানে শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে ব্যবহারের প্রবল দাবি উত্থাপন করা হয়। পাকিস্তান পাবলিক সার্ভিস কমিশন বাংলাকে তাদের অনুমোদিত বিষয় তালিকা থেকে বাদ দেয় ও সঙ্গে সঙ্গে মুদ্রা এবং ডাকটিকেট থেকেও বাংলা অক্ষর বিলুপ্ত করে। কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী ফজলুর রহমান মালিক উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা বানানোর জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। পূর্ব পাকিস্তানে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয় এবং ১৯৪৭ সালের ৮ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে ছাত্রদের একটি বিশাল সমাবেশে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা দানের আনুষ্ঠানিক দাবি জানানো হয়।

সেই সময় পূর্ব বাংলার নেতৃস্থানীয় বাঙালী প-িতগণ উর্দুকে একমাত্র রাষ্ট্রভাষা করার বিপক্ষে মত দেন। পাকিস্তানের কোন অংশেই উর্দু স্থানীয় ভাষা ছিল না বলে উল্লেখ করেছেন ভাষাবিদ মুহম্মদ শহীদুল্লাহ। তিনি বলেছিলেন, ‘আমাদের যদি একটি দ্বিতীয় রাষ্ট্রভাষা নির্ধারণ করার প্রয়োজন হয়, তবে আমরা উর্দুর কথা বিবেচনা করতে পারি।’ সাহিত্যিক আবুল মনসুর আহমেদ বলেছেন, ‘উর্দুকে যদি রাষ্ট্রভাষা করা হয় তবে পূর্ব পাকিস্তানের শিক্ষিত সমাজ নিরক্ষর এবং সব সরকারী পদের ক্ষেত্রেই অনুপযুক্ত হয়ে পড়বে। ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বরের শেষদিকে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার সমর্থনে প্রথম রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠন করা হয়। তমদ্দুন মজলিশের অধ্যাপক নূরুল হক ভূঁইয়া এ কমিটির আহ্বায়ক ছিলেন। পরবর্তীতে সংসদ সদস্য সামসুল হক আহ্বায়ক হয়ে নতুন কমিটি গঠন করেন এবং বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার পক্ষে কার্যক্রম আরও জোরদার করেন।

প্রকাশিত : ৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০৮/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: