কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

থাইল্যান্ডকে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

প্রকাশিত : ৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
থাইল্যান্ডকে হারিয়ে  ফাইনালে বাংলাদেশ

রুমেল খান ॥ ‘আমি এই ফলে অসম্ভব খুশি। চাপ ছিল। তা অস্বীকার করা যাবে না। সেটাকে জয় করে এখন আমরা ফাইনালে। তাই চাপ আরও বেড়েছে। তবে আজকের ম্যাচে ছেলেরা অনেক ভাল ফুটবল খেলেছে। আমাদের টেকটিক্যাল পরিকল্পনা শতভাগ সফল হয়েছে। ঠিক যেমনটা চেয়েছিলাম, তেমনটাই।’ কথাগুলো লোডভিক ডি ক্রুইফের। বাংলাদেশ জাতীয় দলের ডাচ্ কোচ তিনি। শুক্রবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে চলমান ‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ’ ফুটবল আসরের দ্বিতীয় সেমিতে বাংলাদেশ ১-০ গোলে হারায় (গোলদাতা ডিফেন্ডার নাসির উদ্দিন চৌধুরী) থাইল্যান্ড জাতীয় অনুর্ধ-২৩ দলকে। আগামী রবিবার একই ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে ফাইনাল খেলা। প্রতিপক্ষ মালয়েশিয়ার বিরুদ্ধে খেলবে স্বাগতিক বাংলাদেশ।

শুক্রবার উত্তেজনাকর সেমির ম্যাচ শেষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের কোচ ক্রুইফ আরও বলেন, ‘থাইল্যান্ড ভাল ও গোছানো দল। হারলেও এ ম্যাচে তারা দুর্দান্ত খেলেছে। তবে আমার ছেলেরাও তাদের চেয়েও ভাল খেলে ছিনিয়ে নিয়েছে জয়।’ ম্যাচে নিজ দলের খেলোয়াড়দের প্রশংসা করে ক্রুইফ বলেন, ‘ডিফেন্সে রায়হান, মিডফিল্ডে মামুনুল আর উইঙ্গে জাহিদ চমৎকার খেলেছে। সবাই যে যার দায়িত্বটা ঠিকভাবেই পালন করেছে। যে কারণে ফলটা আমাদের পক্ষেই এসেছে।’

প্রথমার্ধে এগিয়ে থেকে বিশ্রামে যাওয়ার পর শিষ্যদের প্রতি কি উপদেশ-নির্দেশ ছিল ক্রুইফের? ‘১ গোল করে এগিয়ে যাওয়ার পর আশা করি দ্বিতীয় গোল। তবে সেটা না হলেও কোন মাইন্ড করিনি। কোচ হিসেবে এটিই আজকের ম্যাচে ছেলেদের প্রতি আমার নির্দেশ ছিল। তবে দ্বিতীয়ার্ধের ১৫ মিনিট পর ছেলেদের বলেছি রক্ষণাত্মক খেলতে। ওরা তা সফলভাবেই করেছে।’

বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম বলেন, ‘সর্বপ্রথম দেশের ১৭ কোটি মানুষকে ধন্যবাদ আমাদের সমর্থন দেয়ার জন্য। বাফুফে সভাপতি সালাউদ্দিন ভাইকে ধন্যবাদ আমাদের ওপর বিশ্বাস স্থাপন করার জন্য। তার ছোট ছোট পরামর্শগুলো আমাদের অনেক কাজে লেগেছে।’

‘আগেই ঠিক করেছিলাম আমরা তাদের সুযোগ দেব না। তাদের খেলতে দেব না। দলের সবাইকে ধন্যবাদ। যে যার জায়গা থেকে ভাল খেলেছে। অন্য সময় যেটা হয় আমরা একজনের মুখের দিকে তাকিয়ে থাকি। মনে করি যে স্ট্রাইকার সেই গোল করবে। কিন্তু আজ সেটি হয়নি। ডিফেন্ডার হয়েও গোল করেছেন নাসির। এ ম্যাচে আমরা অনেক বেশি সতর্ক ছিলাম। প্রথম ম্যাচের ভুলগুলো আমরা দ্বিতীয় ম্যাচে করিনি। সেমিফাইনাল তৃতীয় ম্যাচ ছিল এই টুর্নামেন্টের। সেখানে আমাদের ভুলগুলো আরও অনেক কমে এসেছে। ফাইনালে আরও বেশি সতর্ক থাকব আমরা। দিনে দিনে আমরা উন্নতি করছি। এটাই আমাদের সেরা খেলা না। সামনে ফাইনাল। সেই ম্যাচেই সেরা খেলাটা খেলতে চাই।’

সেমিফাইনাল ম্যাচে সেরা খেলোয়াড় হন উইঙ্গার জাহিদ হোসেন। তিনি বলেন, ‘আমি এখনও নিজের পারফর্মেন্সে সন্তষ্ট নই। ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন হতে পারলে সেটাই আমার বেস্ট পারফর্মেন্স হবে।’

থাই কোচ ফমরাত চকতাভি বলেন, ‘বাংলাদেশ জাতীয় দলকে অভিনন্দন। আজ তারা খুবই ভাল খেলেছে। ম্যাচে তারা ছিল খুবই মনযোগী। তাদের স্ট্রাইকাররা অনেক গতিশীল ছিল। দর্শকদের অবিরাম চিৎকারের জন্য ম্যাচে মনযোগ দিতে একটু সমস্যা হয়েছে। তারা ছিল আমাদের জন্য বড় একটা চাপ। দ্বিতীয়ার্ধে ছেলেদের বলেছি লং পাসে না খেলে শর্ট পাসে খেলতে। কিন্তু তারপরও গোল করতে পারিনি।’

প্রকাশিত : ৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০৭/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: