কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ক্ষমতায়নে এক ধাপ এগোল নারী

প্রকাশিত : ৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • সাবিনা ইয়াসমিন

নানা ধরনের প্রতিক’লতা পেরিয়ে বাঙালী নারী দৃশ্যত এখন এগিয়েছে বহুদূর। ঘরের কোণে বসে শুধু ঘরকন্না করার দিন হয়েছে বাসি। বিমান চালনা থেকে শুরু করে দেশশাসন পর্যন্ত সবকিছুতেই বাড়ছে তাদের সমান অংশগ্রহণ। পুরুষের পাশাপাশি দেশ-জাতি-সমাজ উন্নয়নে রাখছে অবদান। বেগম রোকেয়ার লেখা ‘সুলতানার স্বপ্ন’ আজ অনেকটাই বাস্তবায়িত হওয়ার পথে। বাড়ছে ক্ষমতায়নের সুযোগ ও ক্ষেত্র। বর্তমান সরকারের নানা পরিকল্পনাও বাস্সবায়িত হচ্ছে নারী কল্যাণ ও ক্ষমতায়নকে ঘিরে।

নারী ক্ষমতায়নের পথে এবার আরও একধাপ এগোল বাংলাদেশ। প্রথমবারের মতো দেশে সেনাবাহিনীতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে রেকর্ড সংখ্যক নারী সৈনিক। সম্প্রতি নিয়োগ দেয়া হয়েছে ৮৭৯ জন নারী সৈনিক। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী মেডিক্যাল কোরে প্রশিক্ষণ শেষে তাঁরা নিয়োগপ্রাপ্ত হন। গত বছরের জানুয়ারি মাসে শহীদ সালাহউদ্দিন সেনানিবাসে অবস্থিত আর্মি মেডিক্যাল কোর সেন্টার এ্যান্ড স্কুলে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন নারী সৈনিকরা। ‘ডিপ্লোমা ইন মেডিক্যাল হেলথ টেকনোলজি’ কোর্সের পাশাপাশি মৌলিক সামরিক প্রশিক্ষণও লাভ করেন তাঁরা। দীর্ঘ এক বছর প্রশিক্ষণ গ্রহণের পর সেনাবহিনীর একজন গর্বিত সদস্য হিসেবে নারী সামরিক প্যারামেডিকস পদে নিয়োগ পান এই ৮৭৯ জন নারী সৈনিক।

সশস্ত্র বাহিনীকে আরও আধুনিক ও চৌকস বাহিনীতে পরিণত করতে সরকার ব্যাপক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। এজন্য ‘ফোর্সেস গোল ২০৩০’ অর্জনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ১৯৯৬ সালে আর্মি মেডিক্যাল কোরে নারী অফিসারের পাশাপাশি অন্যান্য কোরেও অফিসার নিয়োগের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। ২০০০ সালে এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে কর্মসূচী নেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় সেনাবাহিনীতে নারী অফিসারের পাশাপাশি নারী সৈনিক নিয়োগের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হয়।

সম্প্রতি প্রথম প্রশিক্ষণার্থী নারী রিক্রুট ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ ও শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শ্রেষ্ঠ নারী রিক্রুট সৈনিকের হাতে পদক তুলে দেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নবীন নারী সৈনিকদের উদ্দেশে বলেন, পেশাগত উৎকর্ষ ও ত্যাগের মহান ব্রত নিয়ে সেনাবাহিনীর মতো চ্যালেঞ্জিং পেশায় নারীর অংশগ্রহণ নারীর ক্ষমতায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

দেশে ও বিদেশে কর্তব্যরত নারী অফিসারদের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, নারীরা যদি পরিবর্তনের দিকে এগিয়ে যায় এবং তাদের মূল্যায়ন করা হয় তাহলে ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে।

আর্মি মেডিক্যাল কোরের প্রথম শ্রেষ্ঠ নারী রিক্রুট নির্বাচিত হয়েছেন মেমোরী হাসান। প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে পদক নেয়া মেমোরী প্রথম নারী রিক্রুট নির্বাচিত হওয়ায় নিজেকে গর্বিত মনে করেন। সৈনিক হিসেবে দেশসেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

দ্বিতীয় শ্রেষ্ঠ রিক্রুট নির্বাচিত হয়েছেন সান্ত¡না রানী ম-ল। সেনাবাহিনীর একজন সদস্য হতে পেরে নিজেকে গর্বিত ও ধন্য মনে করছেন। সান্ত¡না, মেমোরী, সুবর্ণা, নিরুপমা এদের হাত ধরে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে নারীদের অংশগ্রহণের নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হলো। এদের সাহসিকতা আর নৈপুণ্যে উৎসাহিত হয়ে এ পথে এগিয়ে আসবে আরও হাজারো নারী, শুধু পরিবার ও পরিজনই নয় দেশ ও জনগণের বৃহত্তর সেবায় নারী আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এমন প্রত্যাশা সকলের।

প্রকাশিত : ৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০৬/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: