রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

জিরো ডিগ্রী’র জয়া

প্রকাশিত : ৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
জিরো ডিগ্রী’র জয়া

অবশেষে আবারও বড় পর্দায় আসছেন দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া। অনিমেষ আইচ পরিচালিত ‘জিরো ডিগ্রী’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে জয়া দর্শকের

সামনে আসছেন নতুন রূপে। আরও বিস্তারিত

লিখেছেন অভি মঈনুদ্দীন

নাটক থেকে চলচ্চিত্রে এসে জয়া যেন অভিনয়ে আরও বেশি মনোযোগী হয়ে উঠেছেন। চরিত্র নিয়ে খেলতে খেলতে জয়া নিজেকে এমন উচ্চতায় নিয়ে গেছেন যেখানে পরিচালক তাঁকে নিয়ে যেকান ধরনের চরিত্রে চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করেন। পরিচালক অনিমেষ আইচ ঠিক তেমনি জয়াকে নিয়ে নতুন এক চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছেন। আর সেই চ্যালেঞ্জরই প্রতিফলন ঘটতে যাচ্ছে আগামীকাল শুক্রবার। দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি চলচ্চিত্র মুক্তির অনুকূলে না থাকলেও সারাদেশের ২২টি সিনেমা হলে মুক্তি পেতে যাচ্ছে জয়া অভিনীত ‘জিরো ডিগ্রী’ চলচ্চিত্রটি। এতে সোনিয়া চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া। চলচ্চিত্রটি নিয়ে এর প্রযোজিক অভিনেতা মাহফুজ আহমেদ যেমন আশাবাদী ঠিক তেমনি জয়া এবং এর পরিচালক অনিমেষ আইচও অনেক বেশি আশাবাদী। বিশেষ সাতটি কারণে চলচ্চিত্রটি দেখার জন্য এক শ্রেণীর সিনেমা দর্শক হলে আসবেন। তবে পরিচালক অনিমেষ আইচ বলেন, ‘সবশ্রেণীর দর্শকের জন্য জিরো ডিগ্রী নির্মাণ করেছি। আশা করি ভাল লাগবে দর্শকের। দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্থির থাকলে হয়েত চলচ্চিত্রটি নিয়ে অনেক বেশি আশা থাকত আমার। কিন্তু তারপরও আমি জিরো ডিগ্রী নিয়ে অনেক বেশি আশাবাদী। বিশেষ করে মাহফুজ আহমেদকে যারা টিভির পর্দায় দেখে অভ্যস্ত তারা নতুন এক মাহফুজ আহমেদকে এই চলচ্চিত্রে আবিষ্কার করবেন। আবার জয়াকে আমরা এমনভাবে উপস্থাপন করেছি যা দর্শকের কাছে নতুন এক জয়া আবিষ্কার হবেন। জয়া তাঁর নিজের চরিত্রটি ফুটিয়ে তুলতে অনেক কষ্ট করেছেন। আশা করি তাঁর সে কষ্ট সার্থক হবে।’ জিরো ডিগ্রী নিয়ে জয়া বলেন, ‘চলচ্চিত্রটি কাজের শুরু থেকেই এর প্রযোজক, পরিচালক, সাংবাদিকসহ সবার খুব সহযোগিতা পেয়ে এসেছি আমি। এর গল্প যেমন অসাধারণ অনিমেষ চেষ্টা করেছেন নিজের মেধার সর্বোচ্চটুকু কাজে লাগাতে। আমি সোনিয়া চরিত্রে অভিনয় করেছি। এর বেশি চরিত্রটি নিয়ে কিছু বলতে চাই না। সবাইকে হলে গিয়ে চলচ্চিত্রটি দেখার আমন্ত্রণ রইল।’ গত বছরের শুরুতেই জিরো ডিগ্রী চলচ্চিত্রটির শূটিং শুরু হয়েছিল। নানান প্রতিকূলতার মধ্যদিয়ে চলচ্চিত্রটি নির্মাণকাজ শেষ করেন প্রযোজক মাহফুজ আহমেদ ও নির্মাতা অনিমেষ আইচ। কিছুদিন আগে চলচ্চিত্রটির অডিও বাজারে আসে। চলচ্চিত্রের গানগুলো শ্রোতাদের মন কেড়ে নেয়। আর এখন চলচ্চিত্রটি দর্শকের মন কেড়ে নেয়ার পালা। কী ভাবছেন প্রযোজক ও এর অভিনেতা মাহফুজ আহমেদ? মাহফুজ আহমেদ বলেন, ‘কিছু কাজের ক্ষেত্রে একধরনের আত্মবিশ্বাস থাকে। জিরো ডিগ্রী আমার সেই আত্মবিশ্বাস। শুধু এতোটুকু বলব অনেক কষ্ট করে আমরা একটি ভাল চলচ্চিত্র নির্মাণের চেষ্টা করেছি। প্লিজ সবাই হলে হলে গিয়ে এটি উপভোগ করবেন। আশা করি অনেক ভাল লাগবে দর্শকের।’ জয়া তাঁর অভিনয়ের নৈপুণ্যতা দেখিয়েছেন নাসির উদ্দিন ইউসুফ পরিচালিত ‘গেরিলা’ ও রেদওয়ান রনি পরিচালিত ‘চোরাবালি’ চলচ্চিত্রে। কলকাতার ‘আবর্ত’ চলচ্চিত্রেও জয়া ‘চারুলতা’ চরিত্রে নিজেকে প্রমাণ করেছেন একজন জাত অভিনেত্রী হিসেবে। জয়া বলেন, ‘ সত্যি বলতে কী ২০০৩ সালে আমার প্রথম ছবি ‘ব্যাচেলর’ মুক্তির পর থেকেই চলচ্চিত্রে কাজ করার রেসপন্স একটু অন্যরকম পেতাম। অনেকেই আমাকে এখানে নিয়মিত হতে বলতেন। আমিও ভাবতাম। এরপরতো বেশ কয়েকটি কাজ করেছি। ২০১০ সালে ‘ডুব সাঁতার’, ‘ফিরে এসো বেহুলা’ আর তারপর ২০১১ সালে ‘গেরিলা’। তারপর ‘চোরাবালি’ , পূণ্যদৈর্ঘ্য ‘প্রেমকাহিনী’। যাই হোক একে একে সবগুলো ছবিই মোটামুটি আলোচনায় এসেছে। আর একজন শিল্পী হিসেবে আমি তাতেই সন্তুষ্ট। অনেক নাটকে কাজ করেছেন আপনি। ধারাবাহিক খ- নাটকের কথা যদি বলি তাহলে আপনার ভাল লাগার ক্ষেত্র থেকে কোনগুলো আপনাকে সবচেয়ে বেশি আন্দোলিত করে? ‘আসলে আমার অভিনীত প্রতিটি কাজই আমার কাছে অনেক ভাল লাগার। নিজের কাজকে খারাপভাবে দেখারও কিছু নেই। কারণ ভাল গল্প ভেবেই কাজ করেছি। তাই প্রতিটি সৃষ্টির সঙ্গেই আমি ভাললাগা থেকেই জড়িত। সেই হিসেবে আমার প্রিয় নাটকের কথা যদি বলতে হয় তাহলে বলব ‘আমাদের ছোট নদী’, ‘দরজার ওপাশে’, ‘লাবণ্য প্রভা’, ‘নীড়’, ‘পলায়ন পর্ব’, ‘সিক্সটি নাইন’, ‘সংশয়’, ‘শঙ্খবাস’, ‘মানুষ বদল’, ‘চৈতা পাগল’-এগুলো ধারাবাহিক নাটক। আর যদি খ- নাটকের কথা বলি তাহলে বলতে হবে ‘আমেরিকানা’, ‘নো ম্যান্স ল্যান্ড’, ‘অফ বিট’, ‘জননীর কান্ন’া, ‘পাঞ্জাবী ওয়ালা’, ‘তারপর পারুলের দিন’, ‘মায়া অথবা মৃত্যর গল্প’, ‘ফেরার পথ নেই ছিলোনা কোন কালে’, ‘অবাক সন্দেশ’, ‘বিকল পাখির গান’, ‘ভালেবাসি তাই ভালোবেসে যাই’ ও ‘আমাদের গল্প’। এই নাটকগুলো বেশ দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে। আমি অনেক রেসপন্স পেয়েছি।’ ‘গেরিলা’ চলচ্চিত্রে ‘বিলকিস বানু’ এবং ‘চোরাবালি’ চলচ্চিত্রে ‘নবনী আফরোজ’ চরিত্রে অভিনয়ের জন্য পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। প্রয়াত এএস মাসউদ ও রেহানা মাসউদের বড় মেয়ে জয়া এবং তার ‘জিরো ডিগ্রী’র জন্য রইল শুভ কামনা।

প্রকাশিত : ৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০৫/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: