মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

গুগলে ঢাকার রাস্তা

প্রকাশিত : ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • সিরাজুল এহসান

ব্যাপারটি অনেকটা রূপকথার আলাদিনের চেরাগের মতোই। প্রযুক্তির উত্তরোত্তর উদ্ভাবন আর সমৃদ্ধি মানুষকে সেবা প্রদানের এমন একটা মার্গে পৌঁছে দিচ্ছে- যা রূপকথায় সংঘটিত কাল্পনিক বা অকল্পনীয় ঘটনাবলীর মত বাস্তবে পরিণত হচ্ছে। যেন একেবারে হাতের মুঠোয় বা দোরগোড়ায় বিশ্ব। তেমনি এক বিস্ময়কর পথ বাতলে দিয়েছে ইন্টারনেটে ব্যবহৃত বিশ্বখ্যাত কোম্পানি গুগল। কোন ব্যক্তি আর পৃথিবীর ভূ-পৃষ্ঠে হারিয়ে যাবে না কিংবা কোন পথও তিনি হারাবেন না। উচ্চক্ষমতা ও দ্রুত গতিসম্পন্ন ইন্টারনেট সুবিধার কম্পিউটার ও স্মার্টফোনের মাধ্যমে পাওয়া যাবে কাক্সিক্ষত রাস্তা-ঘাট, বাড়ি এমনকি স্থাপনাসমূহও। গুগলের এ সেবা এখন বাংলাদেশে। সবার কাছে পৌঁছানো এখনও সম্ভব হয়নি। তবে দেশের দুটি গুরুত্বপূর্ণ মহানগরে এ সেবা চালু হয়ে গেছে। রাজধানী ঢাকা ও বাণিজ্য নগরী চট্টগ্রামে এ সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে এখন ।

গুগল স্ট্রিট ভিউ সুবিধা গুগল কোম্পানি ২০০৭ সালের ২৫ মে প্রথম চালু করে যুক্তরাষ্ট্রে। গুগল সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে বিশ্বের ৫০টি দেশে এ সেবা দিয়ে যাচ্ছে। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য দেশেও এ সেবা চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে এ কোম্পানিটির। সুখের বিষয়, বর্তমান চালুকৃত এ সেবার আওতায় রয়েছে বাংলাদেশ। এ দেশে এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়েছে সম্প্রতি। আপাতত ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগর এলাকা এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন স্থান এবং স্থাপনা খুঁজে পেতে সহায়তা করছে এ প্রক্রিয়া। ধাপে ধাপে প্রতিটি জেলা ও সারাদেশই এর আওতায় আনা হবে। দ্রুত গতির ইন্টারনেট-সুবিধা ব্যবহার করে গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম বা জিপিএসের মাধ্যমে কাক্সিক্ষত সড়ক, স্থান বা স্থাপনার নিখুঁত ছবি খুঁজে পেতে গ্রাহককে সহযোগিতা করে থাকে। শুধু তাই নয়, সেসব স্থানের তথ্য ও আশপাশের ছবিও পাওয়া যায় এ মাধ্যমে। এ সুবিধা পেতে িি.িমড়ড়মষব .পড়স/ংঃৎববঃারবি সার্চ দিতে হবে।

বাংলাদেশে এ সেবা দ্রুত বিস্তার লাভ করবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। এরই মধ্যে ম্যাপিং বাংলাদেশ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান কারিগরি সহযোগিতা দিতে শুরু করেছে। গুগল ম্যাপস ও গুগল আর্থের যৌথ প্রয়াসে এগিয়ে চলেছে এই কর্মযজ্ঞ। এর কর্মপদ্ধতিও লক্ষণীয়। আগে গুগলের গাড়ি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গিয়ে পূর্বপরিকল্পিত ও নির্ধারিত কর্মএলাকার ছবি তোলে। যে বাহনটি ব্যবহার করা হয়, সেটা গুগল বাস নামে পরিচিত। এ বাসে বিশেষ ধরনের ৯টি ক্যামেরা, লেজার ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক কারিগরি যন্ত্রপাতির মাধ্যমে জিপিএস পদ্ধতিতে ছবি তোলা হয়। একইসঙ্গে এলাকার তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের মাধ্যমে করা হয় সংরক্ষণ। পরে তা যাচাই-বাছাই ও সম্পাদনার মাধ্যমে চূড়ান্ত করা হয় পরিষেবার উপযোগী। সেবাটি ব্যবহার করতে প্রয়োজন উচ্চক্ষমতা ও দ্রুত গতিসম্পন্ন ইন্টারনেট-সুবিধা। স্মার্টফোনে পেতে হলে এর-জন্য রয়েছে বিশেষ অ্যাপ।

বাংলাদেশে ২০১৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় গুগলের স্ট্রিট ভিউ গাড়ি যাত্রা শুরু করে। ইন্টারনেটসহ বিশেষ কিছু প্রযুক্তি শিখাতে গুগল বাস দেশের ৩৫টি এলাকার প্রায় ৫০০টি প্রতিষ্ঠান বেছে নেয়। এর মধ্যে শিশু শেক্ষার্থীসহ নানা বয়সের মানুষই সুবিধা নিতে পেরেছে। তবে মূল লক্ষ্য এদের তরুণ প্রজন্মকে বৈশ্বিকভাবে অবাধ তথ্য প্রবাহে সংযুক্ত করা।

এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, স্ট্রিট ভিউ প্রজেক্টের মাধ্যমে এ দেশে তরুণ প্রজন্মের জন্য এক অপার সম্ভাবনার দিগন্ত উন্মোচন করেছে। বিশ্বের তথ্য-প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাওয়ার অধিকতর সুযোগ পাবে তারা। একটি ডিজিটাল প্রজন্ম গড়ে তোলার মিছিলে তারা হবে অন্যতম সহায়ক।

প্রকাশিত : ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০৩/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: