আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নিরাপদ হোক শিক্ষাজীবন

প্রকাশিত : ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
নিরাপদ হোক শিক্ষাজীবন
  • লিটু খান

অবরোধ-হরতালের গেঁড়োর কাঠিন্যে বর্তমানে হাঁসফাঁস শিক্ষার্থী-অভিভাবক। উদ্বিগ্ন শিক্ষাজীবন নিয়ে। আতঙ্কিতও। এই বুঝি ককটেল এসে পড়ল! পেট্রোল বোমার আগুন ঝলসে গেলাম! নাশকতার নৃশংস নাগপাশের ঘেরাটোপ! অবরোধ-হরতাল প্রত্যাহারের দাবি জোরালোভাবে উঠলেও, কে শোনে কার কথা? ভ্রুক্ষেপ নেই! হরতাল-অবরোধে পেছালো এসএসসি পরীক্ষা। কোন কোন ক্ষেত্রে ঝুঁকির মুখে থেকে যায় শিক্ষার্থীদের জীবনও। এ থেকে পরিত্রাণই একমাত্র প্রার্থনা শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের রাজনৈতিক দলগুলির কাছে।

শনিবার ভরদুপুর। সূর্য ঠিক মাথার ওপরে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়স্থ উদয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের থেকে বের হচ্ছিল গুটিকয়েক শিক্ষার্থী। ২০-২৫ জন হবে। এদেরই মাঝে কথা হলো তিগফার বিনতে প্রিয়ামের সঙ্গে। এইচএসসি পরীক্ষার্থী ও।

রিক্সা খুঁজছিল প্রিয়াম। উদ্দেশ্য কলেজ শেষে বাসায় ফেরা। ‘আমার বাসা ধোলাইরখালের রোকনপুরে। গত সপ্তাহে একদিনও কলেজে আসতে পারিনি। রাস্তা-ঘাটে খুবই প্রবলেম। আম্মু আসতে দিতে চান না।’

‘হরতাল অবরোধ আমাদের সাধারণ শিক্ষার্থীর বারোটা বাজিয়ে দিচ্ছে। এই যে দেখুন, আগামীকাল থেকে হরতাল। অথচ আমার মডেল টেস্ট চলছে। পরীক্ষা দিতে আসা হবে না এই হরতালের জন্য। এসএসসি পরীক্ষার ভিতরেও হরতাল ডাকা কেমন রাজনীতি? আমাদের পরীক্ষা তো এপ্রিলের শুরুর দিকে। পড়াশোনায় নিরবিচ্ছিন্ন মন বসাতে পারি না। থাকি অনিশ্চয়তায়। আমাদের পরীক্ষার সময় অবস্থা যে কী হবে, তা আল্লাহই ভালো জানেন!’ ক্ষোভের সুর প্রিয়ামের কণ্ঠে।

আসন্ন পরীক্ষা নিয়ে কপালে ভাঁজ প্রিয়ামের মতো হাজার হাজার শিক্ষার্থীর। উদ্বিগ্ন লাখ লাখ অভিভাবক। এই উদ্বিগ্নতা সন্তানদের শিক্ষাজীবন নিয়ে তো বটেই, তাদের নিরাপত্তাহীনতারও। এসএসসি পরীক্ষার্থীরা তো বাধ্য হয়ে এই হরতাল অবরোধের মধ্যেই পরীক্ষাযুদ্ধে অবর্তীণ হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রীর হরতাল-অবরোধ প্রত্যাহারের আর্জি, শিক্ষাবিদসহ বিশিষ্টজনদের আহবান, শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বাড়ির সামনে মানববন্ধন ও লিখিত আবেদন কোন কিছুতেই মন গলছে না।

বিএএফ শাহীন কলেজের স্কুল শাখার শিক্ষার্থী নওরিন ইসলাম। ক্লাস শেষে দুপুরে নিয়ে বাসায় ফিরছেন নওরিনের মা শিরিন ইসলাম পুতুল। সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী নওরিন। উত্তর কাফরুলস্থ বাসায় ফিরছেন মা-মেয়ে। হরতাল-অবরোধে শিক্ষাকার্যক্রমের অগ্রগতি নিয়ে যারপরনাই হতাশ শিরিন ইসলাম। ‘বছরের শুরুতেই হরতাল-অবরোধে আমাদের নাভিশ্বাস দশা। বাচ্চাদের পড়াশোনা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সেনানিবাস এলাকায় থাকায় মেয়ের স্কুলে যাওয়া-আসায় আমরা ততটা সমস্যায় না পড়লেও সারা দেশের শিক্ষার্থীদের কথা ভাবুন। আমরা এমন হরতাল-অবরোধের রাজনীতি চাই নাই।’ শিরিনের কথায় চূড়ান্ত ক্ষোভ।

‘রাজনীতিকরা তো জনগণের জন্যই রাজনীতি করেন, কিন্তু আমাদের জীবন-যাত্রা ব্যাহত করে, আমাদের সন্তানদের পড়াশোনার ভবিষ্যতকে পদদলিত করে এটা কোন ধরনের রাজনীতি?’ অভিভাবক শিরিন ইসলামের প্রশ্ন দেশের রাজনীতিকদের কাছে। ‘অন্তত এসএসসি পরীক্ষার জন্য হলেও বিএনপির উচিত ছিলো এই হরতাল-অবরোধ তুলে নেওয়া’, মত শিরিনের।

মির্জা গালিব হাসান। রবিবার পড়ন্ত বিকেলে ঢাকা সিটি কলেজের সামনেই দেখা তাঁর সঙ্গে। মলিন মুখ। চোখেমুখে ক্লান্তির ছাপ স্পষ্ট। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরই দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র। আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবে সে। হাঁটতে হাঁটতে কথা হলো তার সঙ্গে। এই হরতাল-অবরোধের মধ্যেও কলেজে এলেন কেন, এমন প্রশ্নের সংক্ষিপ্ত জবাব, ‘মডেল টেস্ট চলছে কলেজে।’

মাত্রই পরীক্ষা দিয়ে বের হয়েছে সে। এই অবরোধ-হরতালের মধ্যে মডেল টেস্ট না থাকলে কলেজে আসতো না বলেই জানালো এই শিক্ষার্থী।

গালিবের বাসা পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়ায়। সেখান থেকে বাসে যাতায়ত করে কলেজ করে সে। ক্বচিৎ রিক্সায়। ‘আজ বাসে করেই কলেজে এলাম। বাস পেতে অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকেছি।’ চোখে মুখে ঈষৎ আতঙ্কের ছাপ।

‘আসার পথে বাসে বসে মনে হচ্ছিল এই বুঝি ককটেল এসে পড়লো। খুবই আতঙ্কে থাকি। জানেন, গরম পড়ছিল খুব। বাসের জানালা খুলে দিতেই পাশের সহযাত্রীর ধমক, জানলা আটকান, যদি পেট্রল বোমা মারে! খুবই আতঙ্কে থাকতে হয়।’ একনাগারে বলে গেলো গালিব। ‘ওদিকে আমি বের হলে বাসায় আব্বু-আম্মু সব সময় দুশ্চিন্তায় থাকেন, যদি আমার কিছু হয়!’ চোখে-মুখে শঙ্কার নিয়ে বাসার উদ্দেশ্যে সিটি কলেজের সামনে থেকে বাসে উঠে পড়ে গালিব।

যে হরতাল-অবরোধে আতঙ্কিত পড়ুয়া-অভিভাবকরা, তাদের কপালে ভাঁজ, ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষাজীবন; তার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে সব মহলেই। জনগণের জন্যই যদি রাজনীতি হয়, জনকল্যাণই হয় উদ্দেশ্য, তবে জনগণকে জিম্মি করে, জনগণের অনিষ্ট সাধন করে এই হরতাল-অবরোধ-জ্বালাও-পোড়াও কিসের জন্য? কাদের জন্য?

প্রকাশিত : ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০২/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: