কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ড্র করলেই সেমিফাইনালে বাংলাদেশ

প্রকাশিত : ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

রুমেল খান ॥ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সেমিফাইনালে উন্নীত হতে হলে এক দলকে শুধু ড্র করলেই হবে, আরেক দলের জয় ছাড়া কোন বিকল্প নেই। স্বাগতিক বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল ড্র করার সুবিধাজনক সমীকরণ নিয়ে আজ ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বিকেল ৫টায় ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে শ্রীলঙ্কা জাতীয় ফুটবল দলের। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ আছে ১৬৫ এবং শ্রীলঙ্কা আছে ১৭২ অবস্থানে। এ আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে উভয় দলই মালয়েশিয়ার কাছে শুরু করে হার দিয়ে। বাংলাদেশ হারে ০-১ এবং শ্রীলঙ্কা ০-২ গোলে। উল্লেখ্য, এ আসরে অংশ নেয়া ছয় দলের চারটিই হচ্ছে অনুর্ধ-২৩ দলের। একমাত্র বাংলাদেশ এবং শ্রীলঙ্কাই অংশ নিচ্ছে জাতীয় দল হিসেবে। রবিবার দু’দলই শেষবারের মতো অনুশীলনে ঘাম ঝরায়। শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব মাঠে বাংলাদেশ এবং বনানীর আর্মি স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কা প্র্যাকটিস করে। শ্রীলঙ্কা দলের পাঁচ ফুটবলার প্রথম ম্যাচে খেলতে গিয়ে চোট পান বলে জানা গেছে, পক্ষান্তরে বাংলাদেশ দলে সে ধরনের তেমন কোন সমস্যা নেই। স্বাগতিক বলে বাংলাদেশের আত্মবিশ্বাস বেশি, আবার প্রত্যাশার চাপও বেশি। সবচেয়ে বেশি চাপে আছেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম। তিনি ইতোমধ্যেই ঘোষণা দিয়েছেন, সেমিতে যদি বাংলাদেশ যেতে না পারে, তাহলে অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়াবেন তিনি। কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফের অধীনে দল অনুশীলন করার সুযোগ পেয়েছে টুর্নামেন্ট শুরুর মাত্র দিন পাঁচেক আগে। বাবা মারা যাওয়ার কারণে হল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে আসতে দেরি করেন তিনি। সেক্ষেত্রে তিনি ইন্টারনেটে প্রয়োজনীয় কোচিং নির্দেশনা দেন দলের সহকারী কোচ সাইফুল বারী টিটুকে।

ফিফার তথ্য মতে, বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা এ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে ১৪ বার। বাংলাদেশের জয়ের পাল্লাই ভারি। তারা জিতেছে ৯ বার। শ্রীলঙ্কা জিতেছে ৩ বার। বাকি ২ ম্যাচ ড্র হয়। বংলাদেশের ২০ গোলের বিপরীতে শ্রীলঙ্কা করেছে ১০ গোল। দু’দল সর্বশেষ মুখোমুখি হয় গত বছরের অক্টোবরে। দুই ম্যাচ সিরিজের (ফিফা আন্তজার্তিক প্রীতি ম্যাচ) যশোরে দু’দল ১-১ গোলে ড্র করে। রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশ জেতে ১-০ গোলে।

প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হতে সিলেট থেকে শুক্রবার ঢাকা ফেরে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। বৃহস্পতিবার সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক বাংলাদেশ ০-১ গোলে হেরে যায় মালয়েশিয়া অনুর্ধ-২৩ জাতীয় ফুটবল দলের কাছে। শুক্রবার সিলেটে বাংলাদেশ দলের জন্য মধ্যাহ্নভোজের আয়োজন করা হয়। মধ্যাহ্নভোজ শেষে দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে নভএয়ারের একটি ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেয় মামুনুলবাহিনী। ঢাকার হোটেল সোনারগাঁওয়ে ওঠেন তারা। ২৯ জানুয়ারি শুরু হয় এই আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট। ২০ ভরি ওজনের এই সোনার কাপটি নিজেদের করে নিতে এ আসরে অংশ নিচ্ছে ৬ দেশ। সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে গ্রুপ ‘এ’তে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচটা জয় দিয়েই শুরু করতে চেয়েছিল স্বাগতিক বাংলাদেশ। কিন্তু হেরে যায়। বিফলে যায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী মোঃ সালাউদ্দিনের সেই উৎসাহ প্রণোদিত পুরস্কারের ঘোষণা, ‘বাংলাদেশ মালয়েশিয়াকে এই ম্যাচে হারাতে পারলে পুরো দল বোনাস পাবে মোট ৩০ লাখ টাকা।’ শনিবার সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে গ্রুপ ‘এ’র ম্যাচে শ্রীলঙ্কা জাতীয় ফুটবল দলকে ২-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয় মালয়েশিয়া অনুর্ধ-২৩ জাতীয় ফুটবল দল। এ জয়ে বেঁচে থাকে স্বাগতিক বাংলাদেশ দলের সেমিতে খেলার স্বপ্ন। এ জন্য বাংলাদেশ ধন্যবাদ দিতেই পারে মালয়বাহিনীকে! মালয়রা যদি শনিবার হেরে যেত লঙ্কাবাহিনীর কাছে, তাহলে লঙ্কানদের বেশি গোলে হারিয়ে সেমিতে উঠার কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকবেলা করতে হতো বাংলাদেশকে। এখন লঙ্কানদের বিরুদ্ধে জয় নয়, ন্যূনতম ড্র করলেই স্বপ্নের সেমিফাইনালে উঠতে পারবে বাংলাদেশ। শনিবারের জয়ে ২ ম্যাচের সবই জেতে পূর্ণ ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে সবার আগে শেষ চারে নাম লেখায় ১৫৪ ফিফা র‌্যাঙ্কিংধারী মালয়েশিয়া।

এখন দেখার বিষয়, আজকের ম্যাচে ড্র করে বা জেতে শেষ চারে নাম লেখাতে পারে কি না ক্র্্ুইফের শিষ্যরা।

প্রকাশিত : ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০২/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: