রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

পাঁজরের তরুণাস্থি দিয়ে তৈরি নতুন কান পেল জর্জ

প্রকাশিত : ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

পাঁজরের তরুণাস্থি বা রিব কার্টিলেজ থেকে একটা টুকরো ত্বকসহ কেটে নিয়ে তা কানের রূপ দিয়ে এক শিশুর মাথার বাম পাশে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। এভাবেই ১১ বছরের জর্জ হোয়েল একটি নতুন প্রাকৃতিক কান পেয়েছে। জন্মের সময় তার বাম কান অপরিণত ছিল। মোট ১৩ ঘণ্টায় দুটি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কানের পুনর্গঠনের মতো বিরল এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়।

ইংল্যান্ডের কর্নওয়ালের রিড্রুথ শহরের বাসিন্দা জর্জ কিছুটা শান্ত স্বভাবের। তবে নতুন কান পেয়ে সে ও তার পরিবারের সবাই খুশি তা বলার অপেক্ষা রাখে না। জর্জের শুধু ডান কানে না শোনা নয়, বাম কানের ছিদ্র পথ ও বাইরের কান প্রায় ছিলই না। সে তার এই ছোট বয়সেই হিয়ারিং এইড পরিচালনা, প্রধান ভাষা শেখা ও উপলব্ধি করা এবং তার অক্ষমতার কারণে উপহাস মোকাবেলার মতো কষ্টসাধ্য কাজগুলো করা শিখেছে। জর্জের কানের অস্ত্রোপচার করেছেন লন্ডনের রয়াল ফ্রি হসপিটালের প্লাস্টিক সার্জন ওয়ালিদ সাবাগ। বাম কানের প্রায় বাইরের টিস্যু ছাড়াই জর্জ জন্মগ্রহণ করে। এ অবস্থাকে বলা হয় মাইক্রোশিয়া। যুক্তরাজ্যে প্রতিবছর প্রায় ৯০টি শিশু এ অবস্থায় জন্ম নেয়। জর্জের সমস্যা দিন দিন বাড়তেই থাকে এবং তিন বছর বয়সে পরিষ্কার হয়ে যায় শুধু বাম কানে নয়, ডান কানেও সে শুনতে পাচ্ছে না। এরপর পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে তাকে হিয়ারিং এইড দেয়া হয়। জর্জের মা ম্যান্ডি বলেন, তাকে চিকিৎসক জানিয়েছিলেন যে দুটি দীর্ঘ মেয়াদি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে বা কান ঠিক করা যেতে পারে। এজন্য তাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে কিছুটা বড় হতে হবে। জর্জের বয়স ১০ হলে ডাঃ সাবাগ তার অস্ত্রোপচারের প্রস্তুতি নেন। প্রথম অস্ত্রোপচার হয় ২০১৩ সালে নবেম্বরে এবং সময় লাগে ১০ ঘণ্টা। জর্জের আসল কান ও রক্তের সাধারণ ধমনীর সঙ্গে নতুন কানটি লাগানো হয় এবং পুরো এক বছর অপেক্ষা করা কানটির সম্পূর্ণভাবে সংযুক্ত হওয়ার জন্য। ২০১৪ সালের ১৫ ডিসেম্বরে দ্বিতীয় দফায় অস্ত্রোপচার করা হয় এবং সময় লাগে ছয় ঘণ্টা। জর্জকে প্রতি মাসে চেকআপের জন্য যেতে হবে। তবে সে কখনও তার বাম কানে শুনতে পারবে না। - টেলিগ্রাফ।

পাঁজরের তরুণাস্থি বা রিব কার্টিলেজ থেকে একটা টুকরো ত্বকসহ কেটে নিয়ে তা কানের রূপ দিয়ে এক শিশুর মাথার বাম পাশে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। এভাবেই ১১ বছরের জর্জ হোয়েল একটি নতুন প্রাকৃতিক কান পেয়েছে। জন্মের সময় তার বাম কান অপরিণত ছিল। মোট ১৩ ঘণ্টায় দুটি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে কানের পুনর্গঠনের মতো বিরল এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়।

ইংল্যান্ডের কর্নওয়ালের রিড্রুথ শহরের বাসিন্দা জর্জ কিছুটা শান্ত স্বভাবের। তবে নতুন কান পেয়ে সে ও তার পরিবারের সবাই খুশি তা বলার অপেক্ষা রাখে না। জর্জের শুধু ডান কানে না শোনা নয়, বাম কানের ছিদ্র পথ ও বাইরের কান প্রায় ছিলই না। সে তার এই ছোট বয়সেই হিয়ারিং এইড পরিচালনা, প্রধান ভাষা শেখা ও উপলব্ধি করা এবং তার অক্ষমতার কারণে উপহাস মোকাবেলার মতো কষ্টসাধ্য কাজগুলো করা শিখেছে। জর্জের কানের অস্ত্রোপচার করেছেন লন্ডনের রয়াল ফ্রি হসপিটালের প্লাস্টিক সার্জন ওয়ালিদ সাবাগ। বাম কানের প্রায় বাইরের টিস্যু ছাড়াই জর্জ জন্মগ্রহণ করে। এ অবস্থাকে বলা হয় মাইক্রোশিয়া। যুক্তরাজ্যে প্রতিবছর প্রায় ৯০টি শিশু এ অবস্থায় জন্ম নেয়। জর্জের সমস্যা দিন দিন বাড়তেই থাকে এবং তিন বছর বয়সে পরিষ্কার হয়ে যায় শুধু বাম কানে নয়, ডান কানেও সে শুনতে পাচ্ছে না। এরপর পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে তাকে হিয়ারিং এইড দেয়া হয়। জর্জের মা ম্যান্ডি বলেন, তাকে চিকিৎসক জানিয়েছিলেন যে দুটি দীর্ঘ মেয়াদি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে বা কান ঠিক করা যেতে পারে। এজন্য তাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে কিছুটা বড় হতে হবে। জর্জের বয়স ১০ হলে ডাঃ সাবাগ তার অস্ত্রোপচারের প্রস্তুতি নেন। প্রথম অস্ত্রোপচার হয় ২০১৩ সালে নবেম্বরে এবং সময় লাগে ১০ ঘণ্টা। জর্জের আসল কান ও রক্তের সাধারণ ধমনীর সঙ্গে নতুন কানটি লাগানো হয় এবং পুরো এক বছর অপেক্ষা করা কানটির সম্পূর্ণভাবে সংযুক্ত হওয়ার জন্য। ২০১৪ সালের ১৫ ডিসেম্বরে দ্বিতীয় দফায় অস্ত্রোপচার করা হয় এবং সময় লাগে ছয় ঘণ্টা। জর্জকে প্রতি মাসে চেকআপের জন্য যেতে হবে। তবে সে কখনও তার বাম কানে শুনতে পারবে না। - টেলিগ্রাফ।

জঙ্গীদের সঙ্গে এক দীর্ঘ ও কঠিন লড়াইয়ের সম্মুখীন হচ্ছে মিসর। সিনাই অঞ্চলে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সঙ্গে সম্পৃক্ত জঙ্গীদের এক প্রচ- হামলার একদিন পর প্রথমবারের মতো এ মন্তব্য করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাতাহ আল-সিসি। খবর বিবিসি অনলাইনের।

আইএস-সম্পৃক্ত একটি গ্রুপের ওই হামলায় কমপক্ষে ৩২ সৈন্য ও পুলিশ নিহত হয়েছে। রাষ্ট্রীয় টিভিতে সিসি বলেন, এ লড়াই হবে কঠিন, প্রচ-, বর্বর এবং স্থায়ী হবে দীর্ঘ সময়। সিসি আফ্রিকান ইউনিয়নের শীর্ষ বৈঠকে গিয়ে তার সফর সংক্ষিপ্ত করে দেশে চলে এসেছেন। সিনাই হামলার পরপরই তিনি শনিবার সকালে দেশের সুপ্রীম কাউন্সিল অব দ্য আর্মড ফোর্সেস-এর (স্কাফ) এক বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। রিপোর্টে বলা হয়, ক্রমবর্ধমান জঙ্গী হুমকি মোকাবেলার লক্ষ্যে একটি সামরিক কমান্ড গঠনের জন্য একটি প্রেসিডেন্টের ডিক্রি জারি করে সভা শেষ করেন তিনি। তিনি তার ভাষণে জোর দিয়ে বলেন, জঙ্গীদের হুমকি কেবল মিসরের জন্যই বিপজ্জনক নয়, সমগ্র মধ্যপ্রাচ্যের জন্যও বিপজ্জনক। তিনি বলেন, এ লড়াই দীর্ঘ সময় ধরে চলবে এবং তার মূল্য দিতে হবে সকল মিসরীয়কে। এর কারণ হিসেবে তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, সৈন্যরা আপনাদের সন্তান, পুলিশ কর্মকর্তারা আপনাদের সন্তান, তারা সন্তান মিসরের। তারা দেশের জন্য এ মূল্য দিতে প্রস্তুত রয়েছেন। তারা মূল্য দিতে প্রস্তুত শুধু এ দেশের জন্য নয়, তারা প্রস্তুত সমগ্র অঞ্চলের জন্য।

জঙ্গীরা উত্তর সিনাইয়ে বৃহস্পতিবার সামরিক বাহিনী ও পুলিশকে লক্ষ্য করে হামলা চালালে অন্তত ৩২ জন নিহত এবং আহত হয় অনেকে। সিনাই প্রদেশের এ জঙ্গী গ্রুপটি জানায়, তারা ওই হামলা চালিয়েছে। আইএসের প্রতি আনুগত্যের প্রতিশ্রুতি রয়েছে এ গ্রুপটির। মিসর সাম্প্রতিক মাসগুলোতে সিনাইয়ে এক ব্যাপক নিরাপত্তা অভিযান পরিচালনা করেছে। বিশ্লেষকরা বলেছেন, মিসরে বৃহস্পতিবারের হামলা কয়েক মাসের মধ্যে সরকার বিরোধী কয়েকটি প্রচ- সহিংস ঘটনার মধ্যে একটি।

প্রকাশিত : ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০২/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: