কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

নতুন বিষয় ॥ ব্যাচেলর অব এন্ট্রিপ্রিনিউরশিপ ডেভেলপমেন্ট

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • প্রফেসর ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো ব্যাচেলর অব এন্ট্রিপ্রিনিউরশিপ ডেভেলপমেন্ট (বিইডি) প্রোগ্রাম ¯িপ্রং সেমিস্টার-২০১৫ থেকে চালু হয়েছে। চার বছর মেয়াদি এ প্রোগ্রামটি ইউজিসি কর্তৃক অনুমোদনপ্রাপ্ত।

এদেশের যুব সমাজের রয়েছে অমিত শক্তি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে সামনের দিকে আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে উন্নয়ন ঘটছে। এ উন্নয়নের সুফল পেতে হলে আগ্রহীরা শিক্ষা সমাপ্ত করে স্বাবলম্বী হতে পারেন। নিজের, দেশের ও সমাজের উন্নয়ন ও অগ্রগতি সাধন করতে পারেন সে লক্ষ্যেই ইধপযবষড়ৎ ড়ভ ঊহঃৎবঢ়ৎবহবঁৎংযরঢ় উবাবষড়ঢ়সবহঃ (ইঊউ) প্রোগ্রামের সিলেবাস প্রণীত হয়েছে। এ সিলেবাসে তত্ত্ব এবং বাস্তবসম্মত ব্যবসা-বাণিজ্যিক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহসহ সকল ধরনের শিক্ষা-প্রশিক্ষণ ও বাস্তবতার মিশেল দেয়া হয়েছে। সমগ্র বিশ্বে ব্যবসা-বাণিজ্য আগের চেয়ে ক্রমশ প্রতিযোগিতামূলক হয়ে পড়েছে। এ প্রতিযোগিতায় টিকতে হলে প্রত্যেক মানুষের অন্তর্লীন সত্তায় যে উদ্ভাবনী শক্তি লুকায়িত রয়েছে তা নাড়া দেয়া প্রয়োজন।

সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর ৪৬ মিলিয়ন লোক শ্রম বাজারে কাজের জন্য অনুপ্রবেশ করলেও এদের একাংশ কিন্তু কাজ পায় না। ২০১৩ সালে বিশ্বের বেকারত্বের হার হছে ১২.৬%, যা ২০১৮ সালে ১২.৮% হবে বলে প্রাক্কলন করা হয়েছে। এদেশে প্রতিবছর শ্রম বাজারে ১.০ মিলিয়ন লোক কর্মসংস্থানের জন্য প্রবেশ করলেও ০.৫ মিলিয়ন লোকের কর্মসংস্থান হয়। এ জন্যই সরকার, বাংলাদেশ ব্যাংক, দাতাগোষ্ঠীসহ বিভিন্ন সংস্থা উদ্যোক্তা তৈরির জন্য পদক্ষেপ নিচ্ছে।

সবাই বিল গেটস নন। উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য স্বল্পকালীন প্রশিক্ষণ তেমন কার্যকর নয়। বর্তমান প্রেক্ষাপটে পূর্ণাঙ্গ শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের প্রয়োজন রয়েছে। বাংলাদেশে যেভাবে ২০২১ সালের আগেই মধ্যম আয়ের রাষ্ট্রে পরিণত হতে যাচ্ছে, সে ক্ষেত্রে শিক্ষিত বেকার যেন সমাজের বোঝা না হয়, সে জন্যই প্রণয়ন করা হয়েছে এ পাঠ্যক্রম। এর ফলে যেমন স্বনির্ভর কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে, পাশাপাশি তরুণ উদ্যোক্তারা অন্যদের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করবে। তবে গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখতে আমরা বদ্ধপরিকর ।

প্রায় তিনশ/চারশ বছর আগে যুক্তরাজ্যে উচ্চশিক্ষায় অধিকাংশ ছাত্র-ছাত্রী অধ্যয়ন করত ঞযবড়ষড়মু তে। অথচ আজ থিওলজি পড়ে, এমন ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা খুবই নগণ্য। এদিকে দু’শ বছর আগে চিকিৎসা বিজ্ঞানে অধ্যয়নের কথা আনেকেই ভাবতে পারত না। কিন্তু বর্তমানে চিকিৎসা বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখা-প্রশাখায় ঊীঢ়বৎঃ তৈরি হচ্ছে। এমনকি অর্থনীতিচর্চার ক্ষেত্রেও আলাদা আলাদা ফিল্ড রয়েছে যেমন, সামষ্টিক অর্থনীতিবিদ, কৃষি অর্থনীতিবিদ, আর্থিক অর্থনীতিবিদ, নগর উন্নয়ন অর্থনীতিবিদ, বাণিজ্য অর্থনীতিবিদ, শিল্প অর্থনীতিবিদ, গ্রামীণ অর্থনীতিবিদ প্রভৃতি। আবার দেড়শ’ বছর আগে প্রকৌশলী পড়ার কথা বিবেচিত হতো উদ্ভাবনী শক্তি হিসেবে। ষাট বছর আগে খুব কম লোকেই কম্পিউটার সায়েন্স পড়ার কথা ভাবত। আর এখন কম্পিউটার সায়েন্স এ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এ পড়ার পাশাপাশি হার্ডওয়্যার, নেটওয়্যার, সফটওয়্যার এমনকি মাল্টিমিডিয়ার ওপর চার বছর মেয়াদি প্রোগ্রাম চালু রয়েছে। আসলে গধৎশবঃ উৎরাবহ ঋড়ৎপব দ্বারা নির্ধারিত হয় শিক্ষার নতুন নতুন পাঠ্যক্রম এবং পুরনো পাঠ্যক্রমের পরিবর্তন, সংযোজন ও বিয়োজন। মহাকালের রথচক্রে টিকে থাকে বাজারে চাহিদা আছে, এমন পাঠ্যক্রম।

বর্তমানে ব্যবসা-বাণিজ্য করতে হলে বহুমাত্রিকতার প্রয়োজন রয়েছে। ক্রমশ ব্যবসা-বাণিজ্যের অভ্যন্তরীণ ও বহিঃস্থ উৎপাদনসমূহ জটিল থেকে জটিলতর হচ্ছে। এ জন্যই উদ্যোক্তা শ্রেণী তৈরির জন্য চার বছরের এ পাঠ্যক্রম প্রণীত হয়েছে। বিদেশে প্রতিথযশা বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে এন্ট্রিপ্রিনিউরশিপ ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম রয়েছে। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে এন্ট্রিপ্রিনিউরশিপ ডেভেলপমেন্ট সম্পর্কিত ৩৩টি কোর্স আছে। এমআইটি, ইউনিভার্সিটি অব সাউথ ক্যালিফোর্নিয়া, জর্জটাউন ইউনিভার্সিটিসহ বিশ্বের টপ র‌্যাঙ্কিং ৫০টি বিশ্বদ্যিালয়ে অধিকাংশের ক্ষেত্রে এ ধরনের প্রোগ্রাম আন্ডার গ্র্যাজুয়েট লেভেলে রয়েছে। এ পাঠ্যক্রম পরিচালনার জন্য দেশী-বিদেশী শিক্ষকদের একটি প্যানেল কাজ করেছে। পাশাপাশি দেশী-বিদেশী উদ্যোক্তরাও এ পাঠ্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছেন। এ পাঠ্যক্রমটি পরিচালনার জন্য আশুলিয়াস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে ইনকিউবেটর স্থাপন করা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক ঊীঢ়ড়ংঁৎব দেয়ার জন্য বিদেশে শিক্ষা সফরের ব্যবস্থা পাঠ্যক্রমের আওতায় রয়েছে। এ প্রোগ্রামে অধ্যয়ন করলে চাকরি প্রার্থী হওয়ার বদলে নিজেই স্বাবলম্বী হতে পারবে এবং অন্যের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারবে। পরিশেষে ব্যবসার বাজারজাতকরণ ও বিপণন ব্যবস্থাকে দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করতে পারবেন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ও দক্ষতা বৃদ্ধি ঘটবে। এ ক্ষেত্রে সামাজিক পুঁজি ও নেটওয়ার্কিংয়ের বিশেষ সুযোগ সঞ্চারিত হবে।

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০১/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: