মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

বিদ্রোহীরা জানাল, কথা হবে না

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • ইউক্রেনে ব্যাপক লড়াই

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে শুক্রবার প্রচ- লড়াই হয়েছে। শুক্রবার ও আগের দিনের লড়াইয়ে কমপক্ষে ২৭ জন নিহত হয়েছে। পার্শ্ববর্তী বেলারুশে শান্তি আলোচনা আবারও মুখথুবড়ে পড়েছে আলোচনা শুরু হওয়ার আগেই। খবর ওয়েবসাইটের।

বিদ্রোহীদের প্রতিনিধিরা বেলারুশের রাজধানী মিনস্কে পৌঁছান কেবল এ কথা ঘোষণা করতে যে, শুক্রবার আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে না। তারা সরাসরি বিমানে মস্কো ফিরে যান। গত সপ্তাহে বিদ্রোহীরা নতুন করে আক্রমণ অভিযান শুরু করলে পাঁচ মাসের যুদ্ধবিরতি চুক্তি অচল হয়ে পড়ে। যুদ্ধবিরতির পর শুক্রবারই প্রথম আলোচনা অনুষ্ঠানের কথা ছিল। বিদ্রোহীদের প্রধান ঘাঁটি দোনেৎস্কে কামানের প্রচ- গোলাবর্ষণের শব্দ পাওয়া গেছে। সার্বক্ষণিক রণাঙ্গন বিমানবন্দর থেকেও বহুমুখী রকেট লাঞ্চারের মুহুর্মুহু গোলাবর্ষণের শব্দ পাওয়া গেছে। দোনেৎস্কে এক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের কাছে চারটি কফিন দেখা গেছে। বাসিন্দারা মানবিক সাহায্যের জন্য যখন কেন্দ্রের বাইরে সারিতে দাঁড়ানো ছিল তখন এখানে কামানের গোলা আঘাত হানে। পার্শ্ববর্তী স্থানে বিধ্বস্ত একটি গাড়িতে আরও একটি মৃতদেহ দেখা যায়। একটি মৃতদেহের পাশে এক নারীকে দেখা যায় ক্রন্দনরত অবস্থায়। আরও একটি মৃতদেহ দেখা যায় এক কিলোমিটার দূরে। বিচ্ছিন্নতাবাদীরা বলেছে, মৃতদেহের সংখ্যা হবে সাত। তারা এদের হত্যার জন্য সরকারী বাহিনীকে দায়ী করেছে। কিয়েভ বলেছে, শান্তি আলোচনার সুযোগ নস্যাতের জন্য বিদ্রোহীরা এ গোলাবর্ষণ করেছে। দু’পক্ষই এ সংঘাতে পরস্পরের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ করে আসছে। দোনেৎস্কের পূর্বে দেবালৎসেভে শুক্রবার বিচ্ছিন্নতাবাদীদের গোলাবর্ষণে সাত বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে। তাদের বাড়িতে কামানের গোলা এসে পড়লে তারা নিহত হয়। আঞ্চলিক পুলিশ প্রধান ভাইয়াচেশ্লাভ আবরোসকিন এক ফেসবুক পোস্টে এ তথ্য জানান। এর আগে তিনি লিখেছেন, এ শহরের আশপাশে তার আগের ২৪ ঘণ্টায় আরও সাতজন নিহত হয়েছে।

হরলিভকা শহরের মেয়রের অফিস জানায়, বৃহস্পতিবার এক রকেট হামলায় আট বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। কিয়েভে সামরিক বাহিনী বলেছে, বৃহস্পতিবার লড়াইয়ে তাদের বাহিনীর পাঁচজন নিহত এবং ২৩ জন আহত হয়েছে। সংঘাত এলাকায় পরিস্থিতি জটিল হয়ে পড়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। মুখপাত্র আঁদ্রি লিয়েঙ্কো এক টেলিভিশন ব্রিফিংয়ে বলেন, বিদ্রোহীরা বার বার ক্ষেপণাস্ত্র, কামান, মর্টার, ট্যাঙ্ক ও রকেট লাঞ্চার ব্যবহার করছে লড়াইয়ে। মারিউপোল শহরে গত শনিবার বিদ্রোহীদের কামানের গোলায় ৩০ বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে। পাঁচ মাস আগে কিয়েভ সরকার ও বিদ্রোহীদের মধ্যে যুদ্ধবিরতি চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার পর গত সপ্তাহে লড়াইয়ের তীব্রতা সবচেয়ে প্রকট হয়েছে।

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০১/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: