আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

দেশের অষ্টম বিভাগ

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

দেশের অষ্টম বিভাগ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা। সোমবার প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে নির্দেশনামূলক এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। তবে বৃহত্তর ময়মনসিংহের কয়টি জেলা, কত আয়তন, কোন্্ কোন্্ দফতর স্থাপন হবে ও কত জনসংখ্যা থাকবে তা এখনও নির্দিষ্ট হয়নি। ইতোমধ্যে কয়েকটি জেলায় নতুন এই বিভাগের সঙ্গে সংযুক্ত হতে আপত্তি জানিয়েছে। জানা গেছে, শীঘ্রই মন্ত্রিসভার এই নির্দেশনা অনুযায়ী মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করে সুপারিশ সংবলিত প্রস্তাব নিকার (প্রশাসনিক সংস্কার সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি) সভায় অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হবে। একই সঙ্গে ঢাকা বিভাগের বৃহত্তর ফরিদপুর এবং চট্টগ্রাম বিভাগের বৃহত্তর নোয়াখালী ও বৃহত্তর কুমিল্লাকে নিয়ে নতুন বিভাগ গঠনের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের দায়িত্বও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বিকেন্দ্রীকরণের সুফল, আঞ্চলিক উন্নতি ও উন্নয়ন বৈষম্য নিরসনে এবং মানুষের কল্যাণে বিভাগের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। আর প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া সহজ হয়। এ কথা সত্য যে, তথ্যপ্রযুক্তি ও যোগাযোগ ব্যবস্থার ব্যাপক উন্নয়নের কারণে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে অন্যান্য জেলা-বিভাগ-উপজেলার দূরত্ব কমে গেছে। তাই আগের মতো নতুন বিভাগ, জেলা, উপজেলা গঠনের প্রয়োজন সেভাবে প্রকট নয়। তারপরও প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ, জনগণের ক্ষমতায়ন এবং নাগরিক সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে বিভাগ গঠনের প্রস্তাবটি ইতিবাচক। সরকার সিদ্ধান্তটির জন্য সাধুবাদ পাবেন তা নিঃসন্দেহে বলা যায়।

ময়মনসিংহকে বিভাগ করার দাবি প্রায় দুই দশকের। সেখানকার মানুষের এই দাবিটি বেশ জোরালো ছিল। ব্রহ্মপুত্রবিধৌত বাংলাদেশের এই জনপদটি শিক্ষা-শিল্প-সাহিত্য ও লোকসাহিত্যের এক বিশাল ক্ষেত্র। ইতিহাসের পরতে পরতে রয়েছে এই অঞ্চলের সাহসিকতার পরিচয়। এটির সাহসী ও সমৃদ্ধ মানুষের অঞ্চল হিসেবে খ্যাতি রয়েছে। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন, ফকির বিদ্রোহ, টং আন্দোলন, তেভাগা আন্দোলন, কৃষক আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন, ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ’৭১-এর মুক্তিযুদ্ধসহ গণতান্ত্রিক প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে এই অঞ্চলের মানুষের নিরলস ভূমিকা রয়েছে। বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলাটির উত্তরে গারো পাহাড়, দক্ষিণে ভাওয়াল মধুপুর বনাঞ্চল, পশ্চিমে ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে উৎসারিত মেঘনা অববাহিকা, পূর্ব দিকে সোমেশ্বরী, তিতাস, সুরমা ও মেঘনার অববাহিকা। অতীতে ভারতবর্ষের বৃহত্তম জেলা ছিল ময়মনসিংহ। বর্তমানে উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে এখানে। এটিকে তাই শিক্ষানগরীও বলা যায়। সবমিলিয়ে ময়মনসিংহকে বিভাগ ঘোষণার সিদ্ধান্তটি সময়ের দাবি। উল্লেখ্য, বর্তমান সরকার ২০১০ সালে উত্তরবঙ্গের প্রাণকেন্দ্র রংপুরকে বিভাগে উন্নীত করেছিল সেখানকার জনগণের দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে। ময়মনসিংহের ব্যাপারে যে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে সেটাও যে একই কারণে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে খেয়াল রাখতে হবে ঘোষণায়ই যেন আয়োজন না ফুরায়। বিভাগ ঘোষণার পর দীর্ঘদিন বরিশাল ও সিলেটে অবকাঠামো, প্রশাসনিকসহ নানাবিধ সুবিধা নিশ্চিত করা হয়নি। একই অভিযোগ রংপুরের ক্ষেত্রেও।

যে উদ্দেশে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে তা বাস্তবায়ন এবং প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে কালক্ষেপণ না হয়Ñ সেটাই এ ক্ষেত্রে প্রত্যাশিত।

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০১/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: