মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

একসময় দুর্গাপূজার কথা কেউ ভাবেনি যাত্রাপালা ছাড়া

প্রকাশিত : ৩১ জানুয়ারী ২০১৫
  • রিয়াজউদ্দিন জামি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে

যাত্রা। এক সময়ের বিনোদনের প্রধান মাধ্যম। গ্রামবাংলার মানুষকে উৎসবে মাতিয়ে রাখত যাত্রা। এ শিল্পকে ঘিরে বিপুলসংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থানেরও ব্যবস্থা ছিল। কালের আবর্তে এ শিল্প আজ হারিয়ে যাচ্ছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যাত্রাশিল্প একসময় উভয় বাংলায় খুবই আলোচিত ছিল। জয়দুর্গা, ভোলানাথ, বাসন্তী, মহাশক্তি, ভাগ্যলক্ষ্মী, রয়েল ভোলানাথ, বাবুল আইজ্যা এবং পান্না অপেরা দেশের লোকজ ঐতিহাসিক ও পৌরাণিক কাহিনীভিত্তিক যে যাত্রাপালা উপহার দিয়েছিল আজ তা শুধু লোকমুখে রয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শিবপুর, বিদ্যাকূট, বিটঘর, নবীনগর জমিদাররা উনিশ শতাব্দীর শেষ দশকে কলকাতা থেকে যাত্রা গানের দল জমিদার বাড়িতে এসেছে। তখন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কবিগান, পালাগান, শিবগান, কৃষ্ণগান প্রচলিত ছিল। ১৯২০ সালের দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া হিন্দুঅধ্যুষিত জমিদার ও তালুকদার বাড়িতে যাত্রাগানের সূচনা হয়। জেলার কসবার বাদৈর, বিনাউটি, কসবা সদর, শাহপুর, নবীনগরের শ্যামগ্রাম, সাতমোড়া, কৃষ্ণনগর, সরাইলের শাহবাজপুর, চুণ্টা, কালীকচ্ছ, নাসিরনগরের গোকর্ণ, গুনিয়াউকসহ কয়েকটি গ্রামে প্রচুর যাত্রাপালা হয়েছে।

১৯৪১-৪২ সালে নবীনগরের বিদ্যাকূট গ্রামের আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রাদলের সূচনা হয়। সৌখিন যাত্রাদলের মালিক কানু ভট্টাচার্য, কমলা যাত্রা দলের মালিক লাড়ু বর্মণ, নিধু সাহা, আনন্দ পরিশোধ যাত্রাদলের মালিক বিষ্ণুপদ বর্মণ, ফ্রেন্ডস অপেরা পার্টির মালিক মোঃ নিজাম উদ্দিন, নাদের মিয়া। তাঁরা নবীনগর ও পার্শ্ববর্তী অঞ্চলগুলোতে যাত্রা করে বেড়াতেন। নবীনগরের কাইতলা গ্রামের যাত্রাদল জমিদার বাড়ির নাচ মন্দিরের সামনে খোলা মাঠে যাত্রা হতো। একইভাবে বিটঘর খোলা মাঠেও নিয়মিত যাত্রা হতো। কসবার বাদৈর গ্রামে ধীরেন্দ্র নাথ মাস্টার শতাধিক যাত্রায় শিল্প নির্দেশনা ও অভিনেতার কাজ করেছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের কালীবাড়ি মন্দিরের সংলগ্ন খোলা মাঠে যাত্রা হতো। ১৯৩৬-৩৭ সালে কলকাতা থেকে যাত্রাদল এসে নিয়াজ মাঠে যাত্রা অনুষ্ঠান করত। ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের জমিদার আনন্দ বাবুর বাড়ি, রায় সাহেবের বাড়িসহ ৫টি জমিদার বাড়িতে যাত্রা হতো। হিন্দুদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা তো যাত্রা ছাড়া কল্পনাই করা যেত না। এ সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহকুমার বিভিন্ন অঞ্চলে যাত্রা হতো।

প্রকাশিত : ৩১ জানুয়ারী ২০১৫

৩১/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: