কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

মিসরে আইএস অনুগত জঙ্গীদের ভয়াবহ হামলা

প্রকাশিত : ৩১ জানুয়ারী ২০১৫
  • নিরাপত্তা বাহিনীর ২৭ সদস্য নিহত

জঙ্গীগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) মিসর শাখা বৃহস্পতিবার সিরিজ হামলা চালিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর অন্তত ২৭ সদস্যকে হত্যার দাবি করেছে। এই সিরিজ হামলা গত কয়েক মাসের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ। গত সপ্তাহে স্বৈরাচারী হোসনি মোবারকের বিরুদ্ধে ২০১১’র গণঅভ্যুত্থানের বার্ষিকী ঘিরে বিক্ষোভ সহিংস হয়ে ওঠার পর এসব প্রাণঘাতী ঘটনা ঘটল। খবর ইয়াহু নিউজের।

মিসর সরকার সিনাইভিত্তিক আইএস বিদ্রোহ ও ক্রমবর্ধমান অসন্তোষের সম্মুখীন হয়েছে। সমালোচকরা নিরাপত্তা বাহিনীর অনাবশ্যক শক্তি প্রয়োগ এর কারণ বলে উল্লেখ করেছেন। মিসরে আইএসের শাখা সিনাই প্রদেশের টুইটার এ্যাকাউন্টে ধারাবাহিক টুইট বার্তায় চারটি হামলার প্রতিটির দায়িত্ব স্বীকার করা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে উত্তর সিনাই এবং সুয়েজ প্রদেশে কয়েক ঘণ্টা পর পর এসব হামলা চালানো হয়। মিসরের সবচেয়ে সক্রিয় জঙ্গীগোষ্ঠী আনসার বায়েত আল-মাকদিস। গত বছর আইএসের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে তাদের নাম বদলে সিনাই প্রদেশ রাখে। কট্টর সুন্নি জঙ্গীগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট ইরাক ও সিরিয়ার বিস্তীর্ণ ভূখ- দখল করেছে, যেজন্য তাদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীনে বিমান হামলা চালানো হচ্ছে। বৃহস্পতিবারের প্রথম হামলায় উত্তর সিনাই প্রদেশের রাজধানীর একটি সামরিক সদর দফতর, ঘাঁটি ও হোটেলকে লক্ষ্যবস্তু করা হয়। সেসব স্থানে বোমা হামলায় ২৫ জন নিহত হয় এবং নয়জন বেসামরিক নাগরিকসহ ৫৮ জন আহত হয়। প্রধান সরকারী সংবাদপত্র আল-আহরাম জানায়, আল আরিশ শহরে তাদের দফতর, যা সামরিক ভবনটির বিপরীতে অবস্থিত- সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গেছে। যদিও দফতরটি লক্ষ্যবস্তু ছিল কিনা তা পরিষ্কার নয়।পরে সন্দেহভাজন জঙ্গীরা রাফাহ্র একটি চেকপয়েন্টে একজন সেনা মেজরকে হত্যা এবং আরও ছয়জনকে আহত করে। এর পর পরই সুয়েজ নগরীতে রাস্তার ধারে পেতে রাখা বোমায় একজন পুলিশ কর্মকর্তা নিহত এবং আল- আরিশের দক্ষিণের এক চেকপয়েন্টে হামলায় চার সৈন্য আহত হয়।

প্রকাশিত : ৩১ জানুয়ারী ২০১৫

৩১/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: