কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কুমিল্লা ইপিজেডে তাইওয়ানী প্রতিষ্ঠানের এমডিকে জিম্মি করে ৩১ লাখ টাকা লুট

প্রকাশিত : ৩০ জানুয়ারী ২০১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, কুমিল্লা, ২৯ জানুয়ারি ॥ কুমিল্লা ইপিজেডে তাইওয়ানের ইয়াগোটেক্স ফেব্রিক্সের এমডি হুয়াংজুন ইউকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ৩১ লাখ টাকা লুটে নিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এ বিষয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়েরের পর লুণ্ঠিত টাকা উদ্ধার ও সন্ত্রাসীদের ধরতে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে পুলিশ ও র‌্যাবের একাধিক টিম মাঠে নামে। বুধবার প্রকাশ্য দিবালোকে নগরীর হাউজিং এস্টেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মামলার অভিযোগ ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লা ইপিজেডে তাইওয়ানের ‘ইয়াগোটেক্স ফেব্রিক্স’ কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হুয়াংজুন ইউ নগরীর হাউজিং এস্টেটের ৩ নম্বর সেকশনের ‘পি’ ব্লকের ৩ নম্বর প্লটের আবেদ ভিলা নামে একটি বাড়ির দ্বিতীয় তলায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছেন। গত বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে নগরীর টমছমব্রিজ এলাকার এএইচএম মহিউদ্দিনের ছেলে সোহেল ইবনে মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে ৫-৬ জনের একটি সন্ত্রাসী দল হাউজিং এস্টেট এলাকায় হুয়াংজুন ইউর বাসায় গিয়ে অস্ত্রের মুখে তাকে জিম্মি করে। পরে সন্ত্রাসীরা হুয়াংজুন ইউকে একটি গাড়িতে উঠিয়ে সদর দক্ষিণ উপজেলার সুয়াগাজী এলাকা দিয়ে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে আটকে রেখে মারধর করে। এ সময় সন্ত্রাসীরা তার কাছে দুই বিলিয়ন ইউএস ডলার চাঁদা দাবি করে। একপর্যায়ে তাকে গাড়িতে করে পুনরায় হাউজিং এস্টেটের ওই বাসায় এনে পিস্তল ঠেকিয়ে কোম্পানির প্রাইম ব্যাংক কুমিল্লা শাখার হিসাবের চেকে (নং- ৩৪০৩) ২৩ লাখ টাকা লিখিয়ে অনলাইনে সন্ত্রাসী সোহেল ইবনে মহিউদ্দিনের আব ইয়াজ এন্টারপ্রাইজ নামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের হিসেবে স্থানান্তর করে এবং বাসায় থাকা নগদ ৮ লাখ টাকাসহ মোট ৩১ লাখ টাকা লুটে নেয়। এ সময় তার কাছ থেকে আরও ২টি অলিখিত চেকে স্বাক্ষর নেয়া হয়। পরে সন্ত্রাসীরা তাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে চলে যায়। বুধবার দুপুরে এ ঘটনার পর বিকেল থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত কুমিল্লা ইপিজেডের জিএম আবদুস সোবহান হুয়াংজুন ইউ ও তার সহযোগীদের নিয়ে তার কার্যালয়ে বৈঠক করেন এবং বিষয়টি পুলিশকে না জানিয়ে মীমাংসার চেষ্টা করেন। এ বিষয়ে কোন প্রতিকার না পেয়ে হুয়াংজুন ইউ বাদী হয়ে সন্ত্রাসী সোহেল ইবনে মহিউদ্দিনসহ অজ্ঞাত ৫-৬ জনকে আসামি করে বুধবার রাতে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন। এদিকে ঘটনাটি জানাজানি হলে বুধবার সন্ধ্যায় সাংবাদিকরা কুমিল্লা ইপিজেডের জিএমের মোবাইলে ফোন করে জানতে চাইলে এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি বলে তিনি জানান। পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে সাংবাদিকরা তার কার্যালয়ে গিয়ে এ ঘটনার বিষয়ে বৈঠকে দেখতে পান। এসময় তার কাছে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কথা বলতে অনীহা প্রকাশ করেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইপিজেড সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ‘মীমাংসা বৈঠকের নামে কালক্ষেপণের কারণে সন্ত্রাসীরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আড়ালে চলে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে।’ কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মোঃ খোরশেদ আলম জানান, স্পর্শকাতর এ মামলাটি পুলিশ সুপারের নির্দেশে ডিবিতে স্থানান্তর করা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কুমিল্লা ডিবির এসআই ফিরোজ হোসেন জানান, আসামিদের গ্রেফতার ও লুণ্ঠিত টাকা উদ্ধারে পুলিশের একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে। কুমিল্লার র‌্যাব-১১ এর উপ-পরিচালক মেজর সাকিব সিদ্দিকী জানান, লুণ্ঠিত টাকা উদ্ধার ও আসামিদের ধরতে পুলিশের সঙ্গে র‌্যাবের টিমও মাঠে কাজ করছে।

প্রকাশিত : ৩০ জানুয়ারী ২০১৫

৩০/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: