কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

হবিগঞ্জে প্রাণ ক্যাম্পাসে রহস্যজনক আগুনে ৫ শিশু দগ্ধ

প্রকাশিত : ২৯ জানুয়ারী ২০১৫

রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন, হবিগঞ্জ থেকে ॥ সদর উপজেলার অলিপুরে প্রাণ আরএফএল ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানির ক্যাম্পাসে রহস্যজনক আগুনে ৫ শিশু দগ্ধ হয়ে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছে। ঘটনার সময় আহত শিশুরা কোম্পানির পেছনের দিকে খেলছিল।

আহতরা হলো জেলার সদর উপজেলার শৈলজুড়া গ্রামের বাসিন্দা তাহির মিয়ার কন্যা স্কুলছাত্রী হ্যাপী (৮), সুন্দর মিয়ার কন্যা স্কুলছাত্রী শারমিন (১০), মহসিন মিয়ার কন্যা স্কুলছাত্রী রিয়া (৮), মাখন মিয়ার কন্যা স্কুলছাত্রী পলি (১৩) ও অজ্ঞাত এক ছাত্রী (৭)। আশঙ্কাজনক অবস্থায় আহতদের ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির কর্মচারী শাহনুর আলমকে (৪০) গণধোলাই দিয়েছে জনতা।

পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনে শাহ আলমকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পুলিশ জানায়, ওই কোম্পানির বর্জ্য নিরসনে ইতোমধ্যে কর্তৃপক্ষের নেয়া উদ্যোগের ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকার পরিবেশ দূষিত হয়ে জনগণ নানা তেজস্ক্রিয়তায় আক্রান্ত হচ্ছে। শুধু তাই নয়, গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগি অহরহ মারা যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে এলাকার ক্ষুব্ধ জনগণ প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠলেও সমস্যার সমাধান করেনি কর্তৃপক্ষ। বরং প্রতিদিনই খেয়াল খুশিমতো বর্জ্য ধ্বংস করে চলছে প্রাণ কর্তৃপক্ষ। এরই ধারাবাহিকতায়ই নাকি বুধবার দুপুরে ওই কোম্পানির ক্যাম্পাসে বর্জ্যসহ নানা অকেজো মালামালে আগুন লাগিয়ে ধ্বংস করার সময় তার লেলিহান শিখা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এই আগুনে দগ্ধ হয় কোম্পানির পেছনের ফটকের পাশে খেলতে থাকা ওই ৫ শিশু। বাঁচাও বাঁচাও শিশুদের এমন আর্তচিৎকারে আশপাশের গ্রামের লোকজন ছুটে এসে পানি ছিটিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে এনে শিশুদের উদ্ধার করার পর ঘটনাস্থলে উপস্থিত কর্মচারী শাহ আলমকে ধোলাই দেয় তারা। পরবর্তীতে দ্রুত শিশুদের হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার ৪ জনকে ঢাকা মেডিক্যাল বার্ন ইউনিটে প্রেরণ করে। কর্তব্যরত ডাক্তার জানিয়েছেন, শিশুদের শরীর অনেকাংশেই পুড়ে গেছে। সকলের অবস্থাই আশঙ্কাজনক। পুলিশও এ ঘটনায় ৪ শিশু দগ্ধের কথা স্বীকার করেছে।

আবার আগুনে পুড়ে শিশু দগ্ধ হওয়ার ঘটনাটি বর্জ্য নিরসন ও অকেজো মালামাল ধ্বংস করতে গিয়েই ঘটেছে কি না বিষয়টি স্থানীয় গ্রামবাসীর অনেকেই মেনে নিতে পারছেন না। তাদের মতে, এই ঘটনার সঙ্গে বর্তমান রাজনৈতিক কর্মসূচীর সম্পর্ক থাকতে পারে। সংশ্লিষ্ট কোম্পানির অভ্যন্তরে লুকিয়ে থাকা সরকারবিরোধী কোন অশুভ চক্র রাজনৈতিক ফায়দা নিতে সুকৌশলে এমন নির্মম ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে। প্রকৃত সত্য উদঘাটনে বিষয়টি যাতে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করা না হয় এবং শিশুদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা ও তাদের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোঃ নাসিমের প্রতি সে রকম দাবিই করছে এলাকার সাধারন মানুষ। এছাড়াও অবিলম্বে সংশ্লিস্ট কোম্পানির বর্জ্য নিরসনে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করে এলাকার পরিবেশ দুষণমুক্ত রাখতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলা হয় অন্যথায় কঠোর আন্দোলনে যাবে গ্রামবাসী। এদিকে শায়েস্তাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ইয়াসিনুল হক বলেছেন বলেছেন, ওই ঘটনার তদন্ত করে প্রকৃত সত্য উদঘাটনসহ দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ঘটনায় দগ্ধ শিশুদের পরিবারগুলোতে শুরু হয়েছে আহাজারি।

প্রকাশিত : ২৯ জানুয়ারী ২০১৫

২৯/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: