রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বরিশালে দু শতাধিক স্পটে ॥ পেট্রোল বেচাকেনা নিয়ন্ত্রণহীন

প্রকাশিত : ২৯ জানুয়ারী ২০১৫
  • যানবাহন ছাড়া খোলা তেল বিক্রি বন্ধের নির্দেশনা ॥ দু’শিবিরকর্মী আটক

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ নগরীসহ বিভিন্ন উপজেলায় নিয়ন্ত্রণহীনভাবে চলছে পেট্রোল বেচাকেনা। অবাধে বিক্রি হচ্ছে স্পর্শকাতর এ দাহ্য পদার্থ। নগরী এবং জেলার দু’শতাধিক স্পটে অনেকেই এ ব্যবসা করছেন। অপরদিকে পেট্রোল ও অকটেনকে ‘পেট্রোলবোমা’ তৈরির মূল উপাদান আখ্যা দিয়ে খোলাবাজারে খুচরা বিক্রেতাদের নাম ও বিক্রির স্পটের তালিকা সংগ্রহে নেমেছে পুলিশ। ইতোমধ্যে পেট্রোলপাম্প কর্তৃপক্ষের কাছে এ সংক্রান্ত তথ্য চাওয়া হয়েছে। বুধবার সকালে পেট্রোল ভর্তি বোতলসহ দু’শিবির কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। জানা গেছে, নগরী ও জেলার দশটি উপজেলার দু’শতাধিক স্পটে খোলাবাজারে দীর্ঘদিন থেকে প্রকাশ্যেই পেট্রোল-অকটেনসহ বিভিন্ন জ্বালানি তেল বিক্রি করা হচ্ছে। এর মধ্যে নগরীর বেলতলাবাজার, সাগরদীবাজার, সোনালী আইসক্রিমের মোড়, বাকলার মোড়, ভাটিখানাবাজারসহ অর্ধশতাধিক স্পটেই চলছে এ ব্যবসা। এছাড়া সদর উপজেলার তালতলীবাজার, চরমোনাই, বুখাইনগর, চাঁদেরহাট, সাহেবেরহাট, লাহারহাট, কাগাশুরাসহ জেলার অন্যান্য উপজেলার প্রায় দেড় শতাধিক স্পটে একইভাবে খোলাবাজারে দাহ্য তেলের ব্যবসা চলছে। খোলাবাজারে এসব বিক্রেতা পেট্রোলপাম্প, রাষ্ট্রায়ত্ত পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা তেল ডিপো এবং ডিপোর ডিলারদের কাছ থেকে তেল ক্রয় করে থাকেন।

জানা গেছে, কোনো ধরনের মনিটরিং ছাড়াই খোলাবাজারে এ ধরনের দাহ্য তেল বিক্রি হওয়ায় যে কেউ এসবস্থান থেকে হরহামায়াশেই তেল ক্রয় করতে পারছে। যানবাহনের পাশাপাশি ক্যান, বোতল ও জারসহ বিভিন্ন পাত্রে এ তেল নেয়া হয়। বিভিন্ন সময় এ তেলের অপব্যবহারও হয়ে থাকে। বর্তমানে এ তেল দিয়েই পেট্রোলবোমা তৈরি করা হচ্ছে, যা নাশকতায় ব্যবহার করা হচ্ছে বলেও সূত্র জানিয়েছে। নগরীর একাধিক পেট্রোলপাম্পের মালিক বলেন, খোলাবাজারে তেল বিক্রেতাদের কোন তালিকাও তাদের কাছে নেই। তারা জানান, চলমান রাজনৈতিক সঙ্কটের পর যানবাহন ছাড়া কোন ধরনের লুজ তেল বিক্রি না করতে জেলা প্রশাসন ও তেল ডিপো থেকে তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নির্দেশনার পর লুজ তেল বিক্রি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এদিকে চলমান অবরোধ ও হরতালে পেট্রোলবোমার ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে পেট্রোলপাম্প এবং খোলাবাজারে পেট্রোল ও অকটেনসহ দাহ্য তেল বিক্রির বিষয়ে নজরদারি শুরু করা হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত কয়েকটি নির্দেশনাও জারি করা হয়েছে।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের মুখপাত্র সহকারী কমিশনার (এসি) মোঃ আজাদ রহমান বলেন, খুচরা জ্বালানি তেল বিক্রেতাদের নামের তালিকা চেয়ে পেট্রোলপাম্প কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি পাম্পগুলো কঠোর নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে। তবে প্রাথমিক অবস্থায় যানবাহন ছাড়া ক্যান, বোতল ও জারসহ কোনো ধরনের পাত্রে তেল বিক্রি না করতে খোলা তেল বিক্রেতাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সাথে কেউ যানবাহন ছাড়া তেল নেয়ার চেষ্টা করলে সংশ্লিষ্ট থানায় জানাতে বলা হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

পেট্রোলসহ দু’শিবির কর্মী আটক ॥ বাবুগঞ্জ সড়কের লাখোটিয়া এলাকা থেকে পেট্রোলভর্তি বোতলসহ দু’শিবির কর্মীকে বুধবার সকাল সাড়ে সাতটায় দিকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলো-বিএম কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র শিবির কর্মী ইসমাইল হোসেন ও মিজানুর রহমান। পুলিশ জানায়, অবরোধের নামে নাশকতার জন্য বোতলভর্তি পেট্রোল নিয়ে পিকেটিংকালে পুলিশ শিবিরের দু’কর্মীকে আটক করা হয়েছে।

প্রকাশিত : ২৯ জানুয়ারী ২০১৫

২৯/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: