কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সংসদে কৃষিমন্ত্রী ঢাকার বাইরে নিত্যনতুন কৃষি খামার হচ্ছে

প্রকাশিত : ২৭ জানুয়ারী ২০১৫

সংসদ রিপোর্টার ॥ কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী প্রয়াত সাইফুর রহমান বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএডিসি) মৃত্যুঘণ্টা বাজিয়ে দিয়েছিলেন। বর্তমান সরকার বিএডিসিকে অনেকটাই শক্তিশালী করেছে, প্রয়োজনীয় লোকবলও নিয়োগ দেয়া হয়েছে। বর্তমান কৃষকবান্ধব সরকার কৃষকদের প্রয়োজনে সবকিছুই করছে এবং করবে।

সোমবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে কৃষিমন্ত্রী আরও জানান, রাজধানী ঢাকায় এখন আর তেমন কৃষিজমি নেই। তাই ঢাকার বাইরে নিত্যনতুন কৃষি খামার করা হচ্ছে। ঢাকা জেলার মিরপুর থানায় ১০০ একর আয়তনের একটি বীজবর্ধন খামার রয়েছে। উক্ত খামারে উৎপাদিত বীজ নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল জেলায় সরবরাহ করা হচ্ছে। এছাড়া পার্শ্ববর্তী চাঁদপুর জেলার মতবল উত্তর উপজেলার চরমহিষমারী, চরওয়েস্টার, চরকাশিম, বোরোচর ও চরএলেনসহ বিভিন্ন চরের সরকারী খাসজমিতে বিএডিসির বীজবর্ধন খামার স্থাপনের সম্ভাব্যতা যাচাই করা হচ্ছে।

সরকারী দলের একেএম রহমতউল্লাহর প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী জানান, কৃষকের চাহিদাপূরণ ও প্রাপ্তি নিশ্চিতকরণার্থে বর্তমানে সরকারী পর্যায়ে বিভিন্ন জেলায় অবস্থিত বাফার গুদাম ও বেসরকারী পর্যায়ে বিভিন্ন মোকামের মাধ্যমে সার সরবরাহ করা হয়ে থাকে। চলমান এ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সারাদেশে সুষ্ঠুভাবে সময়মতো সার সরবরাহ করা হচ্ছে। চলমান সার বিতরণ ব্যবস্থায় কোথাও কোন অসুবিধার সৃষ্টি হচ্ছে না বিধায় উপজেলা/থানা পর্যায়ে সরকারীভাবে সার মজুদ রাখার কোন পরিকল্পনা নেই।

মামুনুর রশিদ কিরণের প্রশ্নের জবাবে মতিয়া চৌধুরী জানান, কৃষিজমির উর্বরতা শক্তি তথা মাটির সুস্বাস্থ্য সংরক্ষণের উদ্দেশ্যে জৈবসার উৎপাদন ও ব্যবহার বৃদ্ধিকরণে কৃষক উদ্বুদ্ধকরণ ও প্রশিক্ষণ প্রদান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের নিয়মিত কার্যক্রম। এ কার্যক্রমের আওতায় হাতে-কলমে জৈবসার প্রস্তুতপ্রণালী প্রদর্শনসহ কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়ে থাকে।

রাজাকারদেরও তালিকা হবে- মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী ॥ প্রশ্নোত্তর পর্বে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের যেমন তালিকা আছে, তেমনি স্বাধীনতাবিরোধীদেরও তালিকা করা হবে। একাত্তরের রাজাকার-আলবদর-আলশামসদের তালিকা প্রণয়নের কাজ করা হচ্ছে।

মন্ত্রী জানান, বেতনভুক্ত রাজাকার-আলবদর-আলশামসদের একটা তালিকা ছিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় এই তালিকাটি সুকৌশলে নষ্ট করে ফেলা হয়েছে। থানাগুলোতেও অল্পসংখ্যক রাজাকারের তালিকা আছে। আমরা তা সংগ্রহ করে রাজাকারদের তালিকা করার পদক্ষেপ নিয়েছি। তবে কী প্রক্রিয়ায় করা যায় সেটা পর্যালোচনা করা হচ্ছে। তবে রাজাকার-আলবদর-আলশামসদের তালিকা করা হবেই।

অপর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, একাত্তরের বীরঙ্গনাদের মুক্তিযোদ্ধার সম্মান দেয়া হবে। তিন পর্যায়ে এটা করা হবে। দেশের সামাজিক অবস্থার প্রেক্ষিতে অনেক বীরঙ্গনা মা এই পরিচয়টি প্রকাশ করতে চান না। তাই যারা ভাতা নিতে চান তাদের তালিকা প্রকাশ করা হবে। আর যারা ভাতা নিতে চান না তাদেরও একটি তালিকা সংরক্ষিত করা হবে। এ কাজটি শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

প্রকাশিত : ২৭ জানুয়ারী ২০১৫

২৭/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: