হালকা কুয়াশা, তাপমাত্রা ১৮.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

১৬ দিনে ব্যবসা-বাণিজ্যে

প্রকাশিত : ২৩ জানুয়ারী ২০১৫
  • ৩৬ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকার ক্ষতি
  • হরতাল অবরোধ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ হরতাল-অবরোধে গত ১৬ দিনে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে ৩৬ হাজার ৪৪৫ কোটি ৭৬ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই)। সংগঠনটি’র মতে, চলমান হরতাল ও অবরোধে দেশের দৈনিক আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে দুই হাজার ২৭৭ কোটি ৮৬ লাখ টাকা। বছরে এক দিনের হিসেবে মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদন (জিডিপি) ৩ হাজার ৭০১ কোটি ১৫ লাখ টাকা। সেই হিসেবে চলতি বছরে ১৬ দিনে হরতাল-অবরোধের কারণে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জিডিপি’র ২.৭০ শতাংশ বলে মনে করছে এ ব্যবসায়ী সংগঠনটি। বৃহস্পতিবার রাজধানীর ডিসিসিআই সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ডিসিসিআই সভাপতি হোসেন খালেদ বলেন, চলমান রাজনৈতিক সহিংসতার কারণে পোশাক, পরিবহন, আবাসন, কৃষিসহ ১৬টি খাতে প্রতিদিন প্রায় ২ হাজার ৩০০ কোটি টাকা ক্ষতি হচ্ছে। হরতাল-অবরোধের কারণে ১৬ দিনে শুধু ১৬টি খাতে ক্ষতি হয়েছে ৩৬ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকা। বর্তমান অর্থনৈতিক সঙ্কট নিরসনে সংলাপই একমাত্র পন্থা। এ জন্য মতপ্রকাশের স্বাধীনতাসহ সমাজে সুশাসন প্রতিষ্ঠা, সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক চর্চার মাধ্যমে রাজনীতির আধুনিকায়ন, রফতানিমুখী শিল্পকে হরতাল-অবরোধের বাইরে রাখার পরামর্শ দেন ঢাকা চেম্বার সভাপতি। একই সঙ্গে তিনি সঙ্কট উত্তরণে দেশের সিনিয়র নাগরিক, ব্যবসায়ী প্রতিনিধি, গণমাধ্যম প্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ ও বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে সিটিজেন কাউন্সিল গঠনের প্রস্তাব করেন। যারা কোনোভাবেই রাজনৈতিক পরিচয়ে পরিচিত হবেন না। প্রস্তাবিত কাউন্সিল সকল রাজনৈতিক দলকে সমানভাবে মূল্যায়ন করে গ্রহণযোগ্য সুপারিশ প্রণয়ন করবে, যা প্রয়োজনে সংসদে উপস্থাপন করা যেতে পারে। ঢাকা চেম্বার আয়োজিত ‘দেশে বিরাজমান রাজনৈতিক অস্থিরতাজনিত অর্থনৈতিক অচলাবস্থা’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সহসভাপতি, পরিচালকসহ উর্ধতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ডিসিসিআই সভাপতি জানান, বর্তমানে দেশের রাজনৈতিক অচলাবস্থার কারণে প্রতিদিন যে ক্ষতি হচ্ছে তা ২০১৩-১৪ অর্থবছরের প্রাক্কলিত জিডিপির হিসাব অনুযায়ী শূন্য দশমিক ১৭ শতাংশ। প্রতিদিনের ক্ষতির পরিমাণ শিল্প উৎপাদনের সক্ষমতায় ২৫ শতাংশ ধরলে এর পরিমাণ প্রায় ২ হাজার ৫শ’ কোটি টাকার অধিক দাঁড়াবে। এ সময় তিনি রফতানিমুখী এ সব শিল্পকে হরতাল-অবরোধের আওতামুক্ত রাখার আহ্বান জানান। এক পরিসংখ্যানে দেখা যায় গত ১৬ দিনের অবরোধে যে সেক্টরে যে পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য খাতসমূহ হলো-

গার্মেন্টস শিল্প ॥ ২০১৪-১৫ অর্থবছরে তৈরি পোশাক রফতানিতের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ হাজার ৬শ’ কোটি ডলার। গত ১৬ দিনে ১১ হাজার ১২০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে যা দৈনিক জিডিপির শতকার ১৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ। চলতি বছরের শতকরা শূন্য দশমিক ৮২ শতাংশ।

পরিবহন খাত ॥ একদিনে অবরোধে পরিবহন ও যোগাযোগ খাতে ক্ষতির পরিমাণ ৩০০ কোটি টাকা। সে হিসেবে গত ১৬ দিনের অবরোধে ৪ হাজার ৮শ’ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে এ খাতে, যা দৈনিক জিডিপির ৮ দশমিক ১১ শতাংশ।

কৃষি খাত ॥ টানা অবরোধের কারণে দেশের অন্যতম প্রধান খাত কৃষি খাতে দৈনিক ক্ষতি হচ্ছে ২৮৮ কোটি টাকা। গত ১৬ দিনে এ খাতে প্রায় ৪ হাজার ৬শ’ ৮ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে যা দৈনিক জিডিপির ৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ। প্রসঙ্গত, এ খাতের বেশিরভাগ পণ্য পচনশীল হওয়া ও সঠিক সময়ে বিক্রি করতে না পারায় কৃষকের ঋণের কিস্তি পারশোধ অত্যন্ত কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। আবাসন ॥ বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় খাতসমূহের মধ্যে একটি অন্যতম খাত হলো আবাসন খাত। এ খাতে দৈনিক ২৫০ কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে। সে হিসেবে শুধু গত ১৬ দিনের অবরোধে ৪ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে যা দৈনিক জিডিপির ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ। টানা অবরোধের কারণে নির্দিষ্ট দিনে সংশ্লিষ্টরা ফ্ল্যাট বা প্লট হস্তান্তর করতে পারছেন না।

পর্যটন খাত ॥ রাজনৈতিক অস্থিরতায় পর্যটন খাতে স্থবিরতা নেমে এসেছে। বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড (বিটিবি) এর সদ্য প্রকাশিত তথ্য মতে, টানা অবরোধ চলতে থাকলে দিনে শতকোটি টাকার ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। ট্যুরিজম ডেভেলপার্স এ্যাসোসিয়েশনের তথ্য মতে, অবরোধ ও হরতালে এ খাতে প্রতিদিন ক্ষতি প্রায় ২০০ কোটি টাকা যা সব মিলিয়ে গত ১৬ দিনে ৩ হাজার ৩৬০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। দৈনিক জিডিপির ৫ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

বন্দর ॥ চলমান অবরোধের ফলে চট্টগ্রাম বন্দরে প্রায় ২৬ হাজার কন্টেনার আটকা পড়ে আছে যার কারণে কাঁচামাল সরবরাহ বিঘিœœত হচ্ছে। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে প্রাকল্পিত জিডিপিতে শিল্প খাতের ১ দিনের অবদান ৮৭৫ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। বর্তমান অবস্থায় ১ দিনে উৎপাদন সক্ষমতা নষ্ট হচ্ছে প্রায় ২৫ শতাংশ। এদিকে ৪টি স্থলবন্দর ও বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল আদায় থেকে প্রতিদিন গড়ে সরকারের ৩৩ কোটি ৮ লাখ টাকার রাজস্ব আদায় কম হচ্ছে। অবরোধের প্রথম ১৪ দিনে বেনাপোল স্থলবন্দরে ৭৫ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় থেকে পিছিয়ে পড়েছে সরকার। বেনাপোলে একদিনে ক্ষতি হচ্ছে ৫ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। ব্যবসায়ীরা নির্দিষ্ট দিনে পণ্য খালাস নিতে না পারায় তাদের প্রতিদিন ১০ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এছাড়া পাইকারি বাজার, শপিং মল, শো-রুম, ক্ষুদ্র ও ছোট দোকান খাতে আর্থিক ক্ষতি ১৫ কোটি টাকা। অবরোধের ১৬ দিনে ক্ষতি ২ হাজার ৪শ’ কোটি টাকা যা দৈনিক জিডিপির ৪ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ।

উৎপাদন খাতে প্রতিদিন ১শ’ কোটি টাকা গত ১৬ দিনে ১৬শ’ কোটি টাকা। সিরামিক খাতে প্রতিদিন ২০ কোটি টাকা, গত ১৬ দিনে ৩২০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। পোল্টি খাতে প্রতিদিন ১৮ কোটি ২৮ লাখ টাকার ক্ষতি হচ্ছে যা প্রথম ১৬ দিনে ২৯২ কোটি ৪৮ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। বীমা খাতে ১৫ কোটি টাকা ১৬ দিনে ২৪০ কোটি টাকা। হকার্স খাতে ১৫ কোটি টাকা, যা ২৪০ কোটি টাকা। হিমায়িত খাতে দৈনিক ৮ কোটি টাকা যা গত ১৬ দিনে ১২৮ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। প্রসঙ্গত, গত ৬ জানুয়ারি থেকে সারাদেশে অবরোধ করছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। একইসঙ্গে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বিভাগ ও জেলায় হরতালও করছে তারা। গত ১৬ দিনের পেট্রোলবোমা হামলা, আগুনে অনেকেই দগ্ধ হয়েছেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে কয়েকজনের। ভাংচুরে অনেক ক্ষতি হয়েছে বলে পরিবহন মালিক সমিতির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে পণ্য পরিবহনে সমস্যার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন বিভিন্ন শিল্পের সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ীরা।

প্রকাশিত : ২৩ জানুয়ারী ২০১৫

২৩/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: