কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ধরে রাখবে প্রশ্নের ধারাবাহিকতা

প্রকাশিত : ২২ জানুয়ারী ২০১৫
  • ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ

সুপ্রিয় এসএসসি পরীক্ষার্থীরা, শুভেচ্ছা নিও। ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ হতে পাওয়ার ক্ষেত্রে হিসাববিজ্ঞান, ফিন্যান্সও ব্যাংকিং এবং ব্যবসায় উদ্যোগ বিষয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আজ তোমাদের কিছু ধারণা দেব। আশা করি তোমরা উপকৃত হবে।

হিসাববিজ্ঞান

ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হলো হিসাববিজ্ঞান। বর্তমান বছরে এ বিষয়টির প্রশ্নের ধরণ ও কাঠামো পূর্বের তুলনায় একটু ভিন্ন হওয়ায় প্রস্তুতির ক্ষেত্রে কিছু কৌশল খুবই আবশ্যক। প্রথমত ক-বিভাগ আবশ্যিক অর্থাৎ আর্থিক বিবরণী থেকে দুটি প্রশ্ন থাকবে এবং দুটিরই উত্তর করতে হবে। আর্থিক বিবরণী অংশ থেকে বিশদ আয় বিবরণী, মালিকানা স্বত্ব নির্ণয় এবং আর্থিক অবস্থার বিবরণী তৈরি করতে হবে। এছাড়া ক-নং প্রশ্নের জন্য নিট ক্রয়, নিট বিক্রয়, বিক্রীত পণ্যের ব্যয় নির্ণয়, প্রকৃত দেনাদার নির্ণয়, নিট স্থায়ী সম্পদ নির্ণয়, বকেয়া সুদ নির্ণয় করা এ জাতীয় বিষয়গুলো ভাল করে প্রাকটিস করা আবশ্যক। মনে রাখবে এ অংশটি যেহেতু ২০ নম্বরের, তাই পাঠ্য বইয়ের উদাহরণ ২, ৩, ৪, ৫ এবং সৃজনশীল প্রশ্ন ১-৯ পর্যন্ত ভাল করে প্রস্তুতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

খ-বিভাগ থেকে মোট ৪টি প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। প্রশ্ন থাকবে মোট ৭টি। তাই আমার পরামর্শ, তোমরা জাবেদা, খতিয়ান, রেওয়ামিল, নগদান, পাারিবারিক হিসাব অধ্যায়গুলো ভাল করে প্রাকটিস কর। তবে যারা পণ্যের ক্রয়মূল্য, উৎপাদন ব্যয় ও বিক্রয় মূল্য অধ্যায়টি আয়ত্ত করতে পেরেছ তারা অবশ্যই বেশি এগিয়ে থাকবে। এ অধ্যায়গুলোর উদাহরণ ও পাঠ্যবইয়ের সৃজনশীল প্রশ্নগুলোর এ মুহূর্তে ভাল করে প্রাকটিস করবে।

পরীক্ষার খাতায় উত্তরের ক্ষেত্রে অবশ্যই তুমি যে অঙ্কটি খুব ভাল পারবে সেটিই সর্বপ্রথম উত্তর করবে। পেন্সিলের সাহায্যে বক্স করে ঘর কাটবে। প্রতিটি অঙ্কের ওপরে যথাযথভাবে হিসাবের শিরোনাম, হিসাবের নাম, তারিখ ও সাল লিখবে (প্রযাজনীয় ক্ষেত্রে)। জাবেদায় কারণ লেখা আবশ্যক। খতিয়ান তৈরির ক্ষেত্রে কোন নির্দিষ্ট ছকের উল্লেখ না থাকলে তুমি যে কোন ছকে করতে পারবে। প্রতিটি অঙ্ক শেষে উত্তর লেখা উচিতÑ এ বিষয়টি মনে রাখতে হবে। সময় ভাগ করে উত্তর করবে। ছক কাটার ক্ষেত্রে বাম পাশে পর্যাপ্ত রাখা বাঞ্চনীয়, যাতে পরীক্ষক মার্কিং করতে পারেন।

ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং

ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিষয়টি এ বছর হতে সম্পূর্ণ নতুন একটি বিষয় হিসেবে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে সংযুক্ত হয়েছে। ২০১৫ সালেই এ বিষয়টির প্রথম বোর্ড পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এ বিষয়টির দুটি অংশে বিভক্ত যথা ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং। ক-বিভাগ ফিন্যান্সে ৪টি অধ্যায় অঙ্কনির্ভর। সুতরাং ভাল নম্বর পাওয়ার ক্ষেত্রে এ অংশের বিভিন্ন অধ্যায়ের অঙ্কগুলো ভাল করে প্রাকটিস করবে। বিশেষ করে অর্থের সময়মূল্য, ঝুঁকি ও অনিশ্চয়তা এবং মূলধনী আয়-ব্যয় প্রাক্কলন অধ্যায়গুলো একটু বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। এসব অধ্যায়ের অঙ্কের জন্য পাঠ্যবইয়ের উদাহরণসমূহ বারবার প্রাকটিস কর। এছাড়া প্রথম অধ্যায় ও দ্বিতীয় অধ্যায় থেকে অবশ্যই প্রশ্ন থাকবে। এ অধ্যায়গুলো সম্পর্কে ভাল ধারণা নেয়া আবশ্যক। আশা করি বিষয়গুলো মনে রাখলে খুব উপকৃত হবে।

ব্যাংকিং অংশের জন্য সব অধ্যায়েরই কঠোর অনুশীলন আবশ্যক। বিশেষ করে অধ্যায় ৯, ১০, ১২, ১৩ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রশ্নোত্তরের ক্ষেত্রে গ ও ঘ নং-এর জন্য উদ্দীপকের আলোকে কিন্তু পাঠ্য বইয়ের ধারণাকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন প্যারায় ভাগ করে উপস্থাপন করলে ভাল হবে। আমার পরামর্শ, প্রতিটি প্যারা একটি পয়েন্টভিত্তিক হবে যার আলোকে ওই প্যারাটি তৈরি করবে এবং যাতে করে পরীক্ষক এক বা দুটি লাইন পড়েই প্রশ্নোত্তরের কারণ বা যুক্তি খুঁজে পেতে পারে।

ব্যবসায় উদ্যোগ

ব্যবসায় উদ্যোগ বিষয়টি পূর্বের তুলনায় এ বছর একটু নতুন আঙ্গিকে তৈরি করা হয়েছে। সুতরাং প্রশ্নের ধরণ ও পূর্বের তুলনায় সম্পূর্ণ ভিন্ন। মোট ৯টি প্রশ্ন থেকে ৬টি প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। পাঠ্যবইয়ে বারোটি অধ্যায় রয়েছে। সেজন্য মোটামোটি সব অধ্যায়ই প্রস্তুতি নেয়া আবশ্যক। বিশেষভাবে বলা যায়, প্রথম থেকে একাদশ অধ্যায়ের প্রতিটিই সমান গুরুত্বপূর্ণ। আত্মকর্মসংস্থান, উদ্যোগ ও উদ্যোক্তা, মালিকানার ভিত্তিতে ব্যবসায় সংগঠন, ব্যবাসয়ের আইনগত দিক, ব্যবসায় পরিকল্পনা এবং বিপণন অধ্যায়গুলো সৃজনশীল প্রশ্নোাত্তরের জন্য খুবই সহায়ক হবে। তাই এখন থেকে একজন শিক্ষার্থীর এ অধ্যাগুলো ভাল করে প্রতিদিন চর্চা করা আবশ্যক। পাঠ্যবইয়ের অনুশীলনীর সৃজনশীল প্রশ্নগুলো সম্পর্কে ধারণা রাখা খুবই জরুরী। কারণ এ প্রশ্নগুলো প্রাকটিস করলে যে কোন উদ্দীপকের প্রশ্নের উত্তর সহজ হবে।

পরীক্ষা খুব নিকটে চলে আসছে। এ বিষয়টি নিয়ে অতিরিক্ত টেনশন বা চিন্তা এ মুহূর্তে তোমার জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাই আমার পরামর্শ থাকবে স্বাভাবিকভাবে প্রস্তুতি নাও। তবে যে ক’টা দিন তোমার হাতে রয়েছে তার যথাপোযুক্ত ব্যবহার কর। এ বছর ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের প্রতিটি বিষয়ের আগে যথেষ্ট বিরতি রয়েছে যা তোমাদের ভাল প্রস্তুতি গ্রহণে সাহায্য করবে বলে আমারা মনে করি। স্বাস্থ্যের প্রতি যতœ নিতে হবে কারণ এটি পরীক্ষা প্রস্তুতির প্রধান একটি অংশ।

মোঃ আলতাফ হোসেন

সিনিয়র শিক্ষক, বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আবদুর রউফ পাবলিক কলেজ, পিলখানা

ঢাকা

প্রকাশিত : ২২ জানুয়ারী ২০১৫

২২/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: